শনিবার, ১৮ মে ২০২৪ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
মানুষের মৃত্যূ -পূর্ববর্তী শেষ দিনগুলোর প্রস্তুতি যেমন হওয়া উচিত  » «   ব্যারিস্টার সায়েফ উদ্দিন খালেদ টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের নতুন স্পীকার নির্বাচিত  » «   কানাডায় সিলেটের  কাউন্সিলর জাহাঙ্গীর আলমকে সংবর্ধনা ও আশার আলো  » «   টাওয়ার হ্যামলেটসের নতুন লেজার সার্ভিস ‘বি ওয়েল’ এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করলেন মেয়র লুৎফুর রহমান  » «   প্রতিমন্ত্রী শফিকুর রহমান চৌধুরী এমপির সাথে বিসিএর মতবিনিময়  » «   সৈয়দ আফসার উদ্দিন এমবিই‘র ইন্তেকাল  » «   ছাত্রলীগের উদ্যোগে বিয়ানীবাজারে পথচারী ও রোগীদের মধ্যে ইফতার উপহার  » «   ইস্টহ্যান্ডসের রামাদান ফুড প্যাক ডেলিভারী সম্পন্ন  » «   বিসিএ রেস্টুরেন্ট কর্মীদের মানসিক স্বাস্থ্য সুরক্ষায় এনএইচএস এর ‘টকিং থেরাপিস’ সার্ভিস ক্যাম্পেইন করবে  » «   গ্রেটার বড়লেখা এসোশিয়েশন ইউকে নতুন প্রজন্মদের নিয়ে কাজ করবে  » «   স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে বিয়ানীবাজার প্রেসক্লাবের দোয়া ও ইফতার মাহফিল  » «   কানাডা যাত্রায়  ইমিগ্রেশন বিড়ম্বনা এড়াতে সচেতন হোন  » «   ব্রিটিশ রাজবধূ কেট মিডলটন ক্যানসারে আক্রান্ত  » «   যুদ্ধ বিধ্বস্ত গাজাবাসীদের সাহায্যার্থে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অ্যালামনাই ইন দ্য ইউকের অনুদান  » «   বড়লেখায় পাহাড়ি রাস্তা সম্প্রসারণে বেরিয়ে এলো শিলাখণ্ড  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন

‘প্লাস্টিকের’ চালবাজী



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

 

কয়েকদিন আগে বাসার সামনের দোকান থেকে এক ডজন ডিম কিনলাম। দোকানে দুই ধরনের ডিম আছে। একটি একটু ছোট, দাম ডজনপ্রতি ৯৫ টাকা; আরেকটা একটু বড়, দাম ১০৫ টাকা। বড় ডিম দেওয়ার সময় দোকানি খুব আস্থার সঙ্গে বলে দিলেন, প্রতি ডিমে দুটি করে কুসুম পাবেন।

আমি বিশ্বাস না করেই ডিম নিয়ে বাসায় ফিরলাম। এ জীবনে ডিম তো আর কম খাওয়া হয়নি। কখনো এক ডিমে দুটি কুসুম পেয়েছি- এমনটা মনে করতে পারছি না। বা হলেও এটা একেবারেই হাতেগোনা ব্যাপার। কিন্তু সেদিন দোকান থেকে আনা প্রতিটি বড় ডিমেই যথারীতি দুটি করেই কুসুম পেতে থাকলাম। ‘বিবাহিত-ব্যাচেলর’ লাইফে ডিমের এই বিচিত্র ভালাবাসা আমাকে বাড়তি আনন্দ দিয়েছে তাতে কোনো সন্দেহ নাই।

একদিন পরিবারের লোকজনকেও ব্যাপারটা বললাম। তাঁরা প্রথমেই এটা নিয়ে হাসি-ঠাট্টা শুরু করে দিলেন। একজন তো বলেই ফেললেন, আমি বোকা বলে দোকানদার আমাকে এইভাবে ঠকিয়ে দিয়েছে। আরেকজন বললেন, ‘এ নির্ঘাত প্লাস্টিকের ডিম। ডিম ভাঙলেই দুটি কুসুম একসঙ্গে মিশে যাবে। আলাদা করে পাবেন না।’ তিনি আরো বললেন, প্লাস্টিকের চালও নাকি আছে।

আরেকজন বললেন, এটা চীনাদের কাজ। প্লাস্টিক চালে বাজার ছেয়ে যাচ্ছে বলে তিনি শুনেছেন। কোনটা যে আসল আর কোনটা যে নকল চাল- তা নাকি রান্নার পর ভাতের ফেন দেখে বোঝা যায়। ভিডিও শেয়ারের প্লাটফর্ম ইউটিউবে নাকি প্লাস্টিকের চাল, প্লাস্টিকের ডিম বানানোর প্রভূত ভিডিও আছে।

২০১৭ সালে বিষয়টি নিয়ে বিবিসির করা একটি প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে বললাম যে, প্লাস্টিক ডিম বা চাল বলতে আসলে কিছু নেই। এটা একটা মিথ্যা তথ্য। এই অদ্ভূত প্রোপাগান্ডা চীন দিয়ে শুরু। পরে নাইজেরিয়া, সেনেগাল, ঘানা, গাম্বিয়া প্রভৃতি দেশেও ছড়িয়ে পড়ে। এই গুজবের মাত্রা এতোটাই ছিল যে, অনেক দেশের সরকারকে পর্যন্ত এ নিয়ে কথা বলতে হয়। আর প্লাস্টিক দিয়ে চাল বা ডিম তৈরি করা অনেক বেশি খরচ সাপেক্ষ। এই গুজবের মূলে হচ্ছে, মানুষ যাতে আমদানি করা চাল না কিনে স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত চাল কেনে।

তবে এতে তাঁরা সন্তোষ্ট হলেন বলে মনে হলো না। শেষ পর্যন্ত আমার দুই কুসুমের সাধের যে কয়টা ডিম ঘরে ছিল, সেগুলোর মধ্যে দুটো ভেঙে প্রমাণ দিতে হলো। সবার সামনে ডিম ভাঙা হলো, যথারীতি দুটো কুসুম আর সেগুলো আলাদা। প্রকৃত কুসুমের মতোই।

এর মধ্যে আবার গাইবান্ধায় প্লাস্টিকের চাল পাওয়ার ঘটনা ঘটল। সেই চাল নাকি আগুনে দিলেই প্লাস্টিকের মতোই হয়ে যায়! এটা শুধু পরিবার বা লোকজনের কৌতুহলের সীমাবদ্ধ নয়। একেবারে পুলিশ, প্রশাসন পর্যন্ত গিয়ে পৌঁছেছে। যৌথ অভিযান হয়েছে, একেবারে ধরধর-মারমার অবস্থা।

কিন্তু আসলেই প্লাস্টিকের চাল বা ডিম কী আছে? কিংবা নেই। বিষয়টি নিয়ে বৈজ্ঞানিক তথ্য-প্রমাণাদি নিয়ে সরকারের পক্ষ থেকে কথা বলা উচিত। এটা পুলিশ বা উপজেলা প্রশাসনের ব্যাপার নয়। গোটা খাদ্য মন্ত্রণালয়, যারা খাদ্যের মান নিয়ন্ত্রণ করেন, যারা এদেশে বিজ্ঞান নিয়ে কাজ করেন- সবার এ ব্যাপারে দায় আছে। এটা গুজব বা প্লাস্টিকের চাল/ডিম- যাই হোক, দুটোই জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকি।

চন্দন সাহা রায় ; সাংবাদিক,কলামিস্ট


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন