বৃহস্পতিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
শীঘ্রই ৯৯৬ কোটি টাকা ব্যয়ে মনু নদীর স্থায়ী প্রতিরক্ষামূলক কাজ শুরু হবে  » «   আমিরাতে রেমিটেন্স যোদ্ধারা আবারো সক্রিয় হয়ে উঠেছে  » «   দুবাই প্রবাসীরা টিকেট সংকটে: সিলেটে বিক্ষোভ  » «   সৌদি আরবে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব ও শেখ কামালের জন্মদিন উদযাপন  » «   মহানবীকে নিয়ে কটূক্তি : নাইজেরিয়ায় গায়কের মৃত্যুদণ্ড  » «   ভয়াবহ মন্দায় পড়েছে যুক্তরাজ্য  » «   ব্রিটেনে করোনার ঝুকি বাড়াচ্ছে সূর্যস্নান!  » «   কৃষ্ণাঙ্গ-ভারতীয় কমলা হ্যারিসকেই রানিংমেট হিসেবে বেছে নিলেন বাইডেন  » «   ৩০ আগষ্ট থেকে শারজায় বেসরকারী স্কুলে ক্লাস শুরু হচ্ছে  » «   বাতিল হচ্ছে এবারের পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেণির সমাপনী পরীক্ষা  » «   স্পেনের টেনেরিফে ক্রিকেট টুর্নামেন্টে চ্যম্পিয়ন বেঙ্গল ক্লাব  » «   আমিরাত সরকারের আরও ৩০ দিনের বাড়তি সুযোগ  » «   লেবাননের প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ  » «   লেবাননের পাশে দাড়িয়েছে মানবিক বাংলাদেশ  » «   লন্ডনে এম এ খান ফাউন্ডেশন ক্যারম টুর্নামেন্ট’২০ এর উদ্বোধন  » «  

অসমে ভূমিধসে তিন জেলায় মৃত্যু ২১জনের



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

প্রবল বর্ষণে অসমের বরাক উপত্যকার তিন জেলা যথাক্রমে, করিমগঞ্জ, কাছাড় ও হাইলাকান্দিতে একই দিনে ভূমি ধসে ২১ জনের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ছয়টার দিকে সমগ্র উপত্যকা জুড়ে দমকা বাতাসের সঙ্গে ভারী বৃষ্টির দরুন পাহাড় ধসে মাটিচাপা পড়ে মারা যান করিমগঞ্জ জেলার কালিগঞ্জের পার্শ্ববর্তী করিমপুরের একই পরিবারের পাঁচ সদস্য। হতদরিদ্র আজির উদ্দিন (৪৭), তাঁর স্ত্রী রেজিয়া বেগম(৪০), দুই ছেলে যথাক্রমে, আফতার হোসেন(১০), আনোয়ার উদ্দিন(৭) ও মেয়ে তাহেরা বেগম (৫)। তা ছাড়া, গ্রামের ইউছুফ আলির মেয়ে জয়নাব বিবি (১৪) অন্য একটি ভূমিধসের ঘটনায় মারা যায়। গ্রামবাসীরা ঘটনার পরপরই উভয়ক্ষেত্রে উদ্ধারকার্য শুরু করলেও কাউকে জীবিত উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

এদিকে, কাছাড় জেলার জয়পুরে একই দিনে একইভাবে ভূমিধসে বেঘোরে প্রাণ হারিয়েছেন একই পরিবারের ৭জন সদস্য। বরাতজোরে রক্ষা পান দুজন। কাকভোরে প্রবল বৃষ্টির দরুন নয় সদস্যবিশিষ্ট পরিবারের আটজনই ঘুমিয়ে ছিলেন। হঠাৎ ঘরের পেছনে থাকা গাছ ভাঙ্গার বিকট শব্দ পেয়ে ঘর থেকে বেরিয়ে আসতে উদ্যত হন তৈয়বুন নেছা (৪০)। কিন্তু কোনওমতে ঘরের দরজা খুলতেই পেছনের পাহাড় হুমড়ি খেয়ে পড়ে তাদের ঘরের উপর! তিনিসহ পরিবারের বাকি সাত সদস্যও মাটির নীচে চাপা পড়ে যান। কিন্তু লোকজন এসে তাঁকে জীবিত উদ্ধার করতে সক্ষম হলেও বাকি সাত সদস্যকে জীবিত উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। নিহতরা হলেন, গৃহকর্তা তাজিম উদ্দিন লস্কর (৪৬), তিন মেয়ে যথাক্রমে, আনোয়ারা বেগম লস্কর (২৫), আমলা বেগম লস্কর (১৪), সুমলা বেগম লস্কর (১২), তিন ছেলে যথাক্রমে, আলম হুসেইন লস্কর (১৯), আবিস উদ্দিন লস্কর (১৭) ও রেহিম উদ্দিন লস্কর (৮)। বাড়িতে না-থাকায় বরাতজোরে বেঁচে যান গৃহস্থের ছেলে শাহ আলম (১৮)।

একই দিনে, একই সময় হাইলাকান্দি জেলায়ও ভূমিধসে প্রাণ হারিয়েছেন একই পরিবারের ছয় জনসহ মোট আট জন। মোহনপুর আরএ গ্রামের নিহত ছয় জনের মধ্যে তিনটি শিশুও রয়েছে। নিহতরা হলেন, কুটন মিয়া লস্কর (৪০), জুলফা বেগম লস্কর (৩০), রহিমা বেগম লস্কর (৬), পুতুলি বেগম লস্কর (৪), নাজিরা বেগম লস্কর (৬) ও মতিউর রহমান লস্কর (৭০)। তাছাড়া, মোহনপুর গ্রান্ট ও চন্দ্রপুর গ্রান্টে একজন করে ধসচাপা পড়ে নিহত হন। নিহতরা হলেন, চান্দমণি মাল(৫) ও রূপচান্দ সরকার (৪৫)। আহত হন আরও তিনজন। যথাক্রমে, নজরুল হোসেন লস্কর(১৩), আসহাই বিবি লস্কার(৫৫) ও নিজাম উদ্দিন শেখ(৫০)। পৃথক তিনটি ঘটনায় হাইলাকান্দিতে মৃতের সংখ্যা আট জন। আহতদের হাইলাকান্দির স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে। ভারতবর্ষের রাষ্ট্রপতি থেকে শুরু করে বিভিন্ন দলের শীর্ষ স্থানীয় নেতৃবর্গ নিহতদের মৃত্যুতে গভীর শোক জানিয়েছেন। নিহত ও আহতদের উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ দেয়ার জন্য বিভিন্ন ব্যক্তি ও সংগঠন সরকারের নিকট দাবি জানিয়েছে। কাছাড়ের জেলা উপায়ুক্ত শ্রীমতি কীর্তি জল্লি রাতেই কাছাড়ের নিহত সাত জনের নিকটাত্মীয় শাহ আলমের হাতে চার লক্ষ টাকা করে মোট আটাশ লক্ষ টাকার চেক তুলে দিয়েছেন। একই দিনে একুশ জনের অস্বাভাবিক মৃত্যুতে সমগ্র বরাক উপত্যকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। উল্লেখ্য, এ-পর্যন্ত করোনার সংক্রমণে অসমে মৃতের সংখ্যা চার জন।


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •