শনিবার, ২ মার্চ ২০২৪ খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
টাওয়ার হ্যামলেটসের নতুন বাজেটে হাউজিং, শিক্ষা, অপরাধ দমন, তরুণ, বয়স্ক ও মহিলাদের জন্য বিশেষ কর্মসূচিতে বিপুল বিনিয়োগ প্রস্তাব  » «   আজীবন সম্মাননা পেলেন সৈয়দ আফসার উদ্দিন এমবিই  » «   লন্ডন বাংলা স্কুলের আয়োজনে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত  » «   লন্ডনবাসী প্রবীণ মুরব্বী জমির উদ্দিন( টেনাই মিয়া)র ইন্তেকাল  » «   কবি সংগঠক ফারুক আহমেদ রনির পিতা মুমিন উদ্দীনের ইন্তেকাল  » «   একসেস ট্যু জাস্টিস নিশ্চিত করা আইনের শাসনের প্রধান স্তম্ভ  » «   বৃহত্তর সিলেট এডুকেশন ট্রাস্টের নির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত  » «   বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে প্যালেষ্টাইনের জনগণের প্রতি উৎসর্গ করে লন্ডনে সমাবেশ  » «   এডভোকেট মোহাম্মদ আব্বাছ উদ্দিন যুক্তরাজ্যে আসছেন  » «   হিলালপুর গ্রামে সড়ক বাতি উদ্বোধন  » «   বিয়ানীবাজার জনকল্যাণ সমিতি ইউকের কার্যকরী কমিটির পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত  » «   পূর্ব মুড়িয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে এসএসসিপরীক্ষার্থীদের মধ্যে পরীক্ষা উপকরণ বিতরণ  » «   গুচ্ছ কবিতা ।। আতাউর রহমান মিলাদ  » «   ব্রিটেনের রাজা চার্লস ক্যান্সারে আক্রান্ত  » «   গুচ্ছ কবিতা ।। আবু মকসুদ  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন

বাংলাদেশ সেন্টার লন্ডনের মুক্তিযোদ্ধা সংবর্ধনা ৩১ মার্চ
সেন্টারের আর্থিক অনিয়মের রিপোর্ট দ্রুত প্রকাশের আশ্বাস



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

ঐতিহাসিক বাংলাদেশ সেন্টারে কি পরিমান অনিয়ম হয়েছিলো তা দ্রুত প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছে ম্যানেজমেন্ট কমিটি। ২২ মার্চ শুক্রবার লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

১৯৭১ সালে মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে বাংলাদেশ সেন্টারের সাথে যুক্ত বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ যুক্তরাজ্যে গড়ে ওঠা আন্দোলনে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে জনমত গঠন ও অর্থ তহবিল সংগ্রহে ঐতিহাসিক ভূমিকা পালন করেন। বাংলাদেশ সেন্টারের সাথে সম্পৃক্ত স্বাধীনতা সংগ্রামের সময় যুক্তরাজ্যের সংগঠক ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা জানাতে এবং  নব নির্বাচিত ম্যানেজমেন্ট কমিটির অভিষেক অনুষ্ঠান আগামী ৩১ মার্চ রবিবার বিকাল ৫ টায় পূর্ব লন্ডনের রয়েল রিজেন্সি ব্যাংকুটিং হলে জাকজমকপূর্ণ ভাবে আয়োজনের কথা জানাতেই এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

মিডিয়া ও প্রকাশনা কমিটির আহবায়ক আলী আহমেদ বেবুল এর পরিচালনায় সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য রাখেন সেন্টারের ম্যানেজমেন্ট কমিটির সিনিয়র সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন।

সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের করা প্রশ্ন থেকে উঠে আসে প্রতিষ্ঠানটি নিয়ে অনিয়মের বিষয়টিও। বছরের পর পর কেন এই অনিয়মের তদন্ত শেষ হচ্ছে না তারও ব্যাখাদেন ম্যানেজমেন্ট কমিটির সদস্যরা।  তারা জানিয়েছেন-অচিরেই তারা বিস্তারিত প্রকাশ করবেন।
এসময় উপস্থিত ছিলেন সেন্টারের প্রধান উপদেষ্টা নবাব উদ্দিন, ভাইস চেয়ারম্যান মুহিবুর রহমান মুহিব, শাহানুর খান, কবির উদ্দিন , গুলনাহার খান, চীফ ট্রেজারার মামুন রশীদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব আহমদ রাজু, তারাউল ইসলাম, সাংস্কৃতিক কমিটির আহবায়ক শওকত মাহমুদ টিপু , নিজাম উদ্দিন ও সেন্টারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ মোস্তাফিজুর রহমান।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয় ভবনের সংস্কার কাজ দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। আগামী এক বছরের মধ্যে তারা বাংলাদেশ সেন্টারের মূল ভবন থেকে কাজ করতে পারবেন। সেখানে পূর্বের মতোই আরবী শিক্ষা, শিশুদের বাংলাদেশী সংস্কৃতির শিক্ষার ব্যবস্থা, বয়স্কদের জন্য হেলথ প্রোগ্রামসহ নানান কার্যক্রম চালু করা হবে।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আরো বলা হয়, বাংলাদেশ সেন্টারের সংস্কার ও উন্নয়ন কাজ ও সময়ের স্বল্পতার কারণে এবার  স্বাধীনতা সংগ্রামের সময় যুক্তরাজ্যের প্রবাসী সকল সংগঠক ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মুক্তিযুদ্ধ সম্মাননা প্রদান করা যাচ্ছেনা । সেজন্য তারা দু:খ প্রকাশ করেন।

আগামীতে স্বাধীনতা সংগ্রামের সময় অবদান রাখা যুক্তরাজ্যের  সকল সংগঠক ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে বিশাল পরিসরে মুক্তিযুদ্ধ সম্মাননা অনুষ্ঠান আয়োজনের পরিকল্পনা রয়েছে । এ ব্যাপারে তারা সকলের সাহায্য ও সহযোগিতা কামনা করেন। ।

লিখিত বক্তব্যে তারা আরো বলেন, বাংলাদেশ সেন্টারের সেন্ট্রাল লন্ডনের ২৪ প্রেমব্রিজ গার্ডেনের এ ভবনটি বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধের বহু স্মৃতি বিজড়িত । এ ভবনটি থেকে বিচারপতি আবু সাঈদ চৌধুরীর নেতৃত্বে ১৯৭১ সালের ২৭ আগস্ট থেকে বাংলাদেশ হাইকমিশনের কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। যুদ্ধকালীন সময় এখানে বসেই  স্বাধীনতার পক্ষে বিশ্বব্যাপী জনমত গঠনের কাজে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন বিচারপতি আবু সাঈদ চৌধুরী। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭২ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি এ ভবনটিতে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা আনুষ্ঠানিক ভাবে উত্তোলন করা হয়। বহির্বিশ্বের মধ্যে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলনের ঘটনা হিসেবে ছিল এটি সর্বপ্রথম । ১৯৭৪ সাল পর্যন্ত এ ভবনটিতে বাংলাদেশ হাইকমিশন হিসেবে পরিচালিত হয়েছিল। ঐতিহাসিক বাংলাদেশ সেন্টারের এ ভবন আমাদের পূর্ব পুরুষের সূদুরপ্রসারী চিন্তা-চেতনার ফসল। সেন্ট্রাল লন্ডনের চেলসি এন্ড কেনসিংটন বারায় অবস্থিত এ ভবনটি বাংলাদেশের গৌরবের পতাকা বহন করে। এ সেন্টার প্রতিষ্ঠায় আমাদের মুরুব্বীয়ানরা যে ঐতিহাসিক ভূমিকা রেখেছেন, এজন্য তাঁদের প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা ও শ্রদ্ধা জানাচ্ছি। এটি এখন যুক্তরাজ্য প্রবাসী বাংলাদেশীদের ঐতিহ্য , গৌরব ও মর্যাদার অন্যতম প্রতিষ্ঠান।

দীর্ঘমেয়াদী উন্নয়ন পরিকল্পনার অংশ হিসেবে শতবছরের পুরনো এই লিষ্টেড বিল্ডিংটি সংস্কার ও আধুনিকায়নের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। আমরা আশা করছি , এ বছরের মধ্যে সেন্টারের সংস্কার কাজ সম্পন্ন হবে। বাংলাদেশ সেন্টারের এ অগ্রযাত্রার পেছনে বাংলাদেশ হাইকমিশন, সম্মানিত প্রতিষ্ঠাতা সদস্য, স্থায়ী সদস্য, আজীবন সদস্য ও সাধারণ সদস্যসহ কমিনিউটির সর্বস্তরের জনগণের সার্বিক সাহায্য, সহযোগিতা ও সমর্থন ছিল উল্লেখ করার মতো। ম্যানেজমেন্ট কমিটির পক্ষ থেকে সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানানো হয়।

 


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন