বুধবার, ২২ জানুয়ারী ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ মাঘ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
লন্ডনে শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল সমর্থক গোষ্ঠীর আত্নপ্রকাশ  » «   ইউরোপসহ  বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ধর্ষণের পরিসংখ্যান  ও শাস্তি    » «   দুর্নীতিবাজ,নিপাত যা  » «   মুজিববর্ষে মুজিবাদর্শ  » «   পর্তুগালে বাংলাদেশি দুই গ্রুপে সংঘর্ষে ৪জন আহত  » «   সিপিবির সমাবেশে বোমা হামলায় ১০ জনের মৃত্যুদণ্ড  » «   লন্ডন আবারও রক্তাক্ত ছুকিাঘাতে নিহত ৩ জন  » «   রিয়াদে সম্পন্ন হয়েছে বিজয় গোল্ড কাপ ২০১৯  » «   পরবাসে দূর করেন অন্ধকার, ড. হাবিবুল হক খন্দকার  » «   মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক মিম্বর আলী  » «   স্পেনের পর্যটন মেলায় এবারও অংশগ্রহণ করছেনা বাংলাদেশ  » «   একই পরিবারের তিনজন প্রাণ হারালেন সড়ক দুর্ঘটনায়  » «   লন্ডনে  বিএসইটি এর  ব্রিটিশ – বাংলাদেশি গ্র্যাজুয়েট এওয়ার্ড  অনুষ্ঠান  » «   একজন রাজিয়া বেগম বাঁচিয়ে রেখেছিলেন তাঁকে  » «   গোলাপগঞ্জে আরিফ ইকবাল বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠান  » «  

আমিরাতে ‘ইন্টারন্যাশনাল ওমেন আইকন বাংলাদেশ’ ভূষিত হলেন তিশা সেন



আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে বিভিন্ন দেশের আলোকিত তরুণীদের সম্মাননা দিয়েছে আরব আমিরাতের ভারতীয় সাংস্কৃতিক সংগঠন জানকজ। এবারের নারী দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয় ‘ ব্যালেন্স ফর ব্যাটার’ কে সামনে নিয়ে ‘ইন্টারন্যাশনাল ওমেন আইকন বাংলাদেশ’ সম্মাননা পেয়েছেন সংস্কৃতিকর্মী ও সাংবাদিক তিশা সেন।

শুক্রবার আরব আমিরাতের শারজাহের একটি বেসরকারি রূপচর্চা কেন্দ্রে আনুষ্ঠানিকভাবে এ সম্মাননা তুলে দেন প্রধান অতিথি ছিলেন দক্ষিণ ভারতীয় জনপ্রিয় অভিনেত্রী শারু ভারগেস। এ সময় অন্যান্য অতিথি ছিলেন মিস ইন্টারন্যাশনাল ২০১৯ ইশা ফারসা কোরিশ, লেখিকা হানি ভাসকারান, ফ্যাশন কোরিওগ্রাফার এঢভোকেট বীমা বেনজির। অনুষ্ঠানের আয়োজক ছিলেন জানকজ এর কো ফাউন্ডার সৌম্য অরুণ নাইর, যিশা ভেনুগোপাল।

পুরো অনুষ্ঠানটিই ছিলো নারীকে ঘিরে। নারীরা অতিথি আয়োজকেরাও নারী। বাংলাদেশ, ভারত, ফিলিপিন, পাকিস্তান এই ৪ দেশের ৪ জন তরুণীকে স্ব স্ব ক্ষেত্রে নিজ দেশকে তুলে ধরার জন্য এ সময় এ সম্মাননা প্রদান করা হয়।

তিশা সেন ছোটবেলা থেকে মা বাবার সাথে আরব আমিরাতে বেড়ে ওঠেছেন। আজমানের ইন্ডিয়ান স্কুলে পড়াশোনা শেষ করে ২ বছর সে স্কুলেই শিক্ষকতা করেছেন। তিনি ৫২ বাংলা টিভির সংবাদপাঠিকা এবং স্টাফ করেসপন্ডেন্ট। এছাড়া সংহতি সাহিত্য পরিষদ আরব আমিরাত শাখার সাংস্কৃতিক সম্পাদিকা তিশা একজন ক্লাসিকাল নৃত্যশিল্পী এবং মৌলিক চিত্রশিল্পী হিসেবেও কাজের স্বাক্ষর রেখে চলেছেন। শিল্পকলার ষোলকলা জানা তিশার হাত আছে লেখালেখিতেও। নানামাত্রিক সম্ভাবনাময় তিশা তার এগিয়ে যাওয়াতে সকলের সহযোগিতা ও দোয়া চেয়েছেন।

চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলার মেয়ে তিশা সেনের বাবা অনুপ সেন ও মা রূপশ্রী সেন তার এ প্রাপ্তিতে গর্বিত। এদিকে সংহতি আমিরাত এবং ৫২ বাংলা টিভি পরিবারসহ নানা সংগঠন ও ব্যক্তি তিশাকে পৃথক পৃথক অভিনন্দন জানিয়েছেন।