শনিবার, ২ মার্চ ২০২৪ খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
টাওয়ার হ্যামলেটসের নতুন বাজেটে হাউজিং, শিক্ষা, অপরাধ দমন, তরুণ, বয়স্ক ও মহিলাদের জন্য বিশেষ কর্মসূচিতে বিপুল বিনিয়োগ প্রস্তাব  » «   আজীবন সম্মাননা পেলেন সৈয়দ আফসার উদ্দিন এমবিই  » «   লন্ডন বাংলা স্কুলের আয়োজনে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত  » «   লন্ডনবাসী প্রবীণ মুরব্বী জমির উদ্দিন( টেনাই মিয়া)র ইন্তেকাল  » «   কবি সংগঠক ফারুক আহমেদ রনির পিতা মুমিন উদ্দীনের ইন্তেকাল  » «   একসেস ট্যু জাস্টিস নিশ্চিত করা আইনের শাসনের প্রধান স্তম্ভ  » «   বৃহত্তর সিলেট এডুকেশন ট্রাস্টের নির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত  » «   বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে প্যালেষ্টাইনের জনগণের প্রতি উৎসর্গ করে লন্ডনে সমাবেশ  » «   এডভোকেট মোহাম্মদ আব্বাছ উদ্দিন যুক্তরাজ্যে আসছেন  » «   হিলালপুর গ্রামে সড়ক বাতি উদ্বোধন  » «   বিয়ানীবাজার জনকল্যাণ সমিতি ইউকের কার্যকরী কমিটির পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত  » «   পূর্ব মুড়িয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে এসএসসিপরীক্ষার্থীদের মধ্যে পরীক্ষা উপকরণ বিতরণ  » «   গুচ্ছ কবিতা ।। আতাউর রহমান মিলাদ  » «   ব্রিটেনের রাজা চার্লস ক্যান্সারে আক্রান্ত  » «   গুচ্ছ কবিতা ।। আবু মকসুদ  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন

প্রবাসীদের যাপিত জীবন ও প্রবাসের সৌন্দর্য



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

পৃথিবীর সর্বত্র প্রতিদিন নিঝুম সন্ধ্যা নামে, শাশ্বত নিয়মে। পাখিরা নীড়ে ফেরে দিবারাত্রির চক্র মেনে। তেমনিভাবে গত ২৮ ফেব্রুয়ারী শেষ হল বাঙালীর প্রাণের মেলা, অমর একুশে বইমেলা। প্রাণের মেলা শেষে ঘরে ফিরেছেন লেখক, প্রকাশক এবং পাঠকরা। তবে এ ফেরাই শেষ ফেরা নয়, ২০২৪-এর ফেব্রুয়ারিতে আবারও সাজবে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, স্টল কিংবা প্যাভেলিয়নে প্রকাশকরা বসবেন বইয়ের পসরা সাজিয়ে। পাঠক আগ্রহচিত্তে আবারও বই কিনতে যাবেন। তবে তার জন্য অপেক্ষা করতে হবে আরো এগারো মাস তা কিন্তু নয়, আর বিদায় শেষ বিদায় নয় ! তথ্য প্রযুক্তির কল্যাণে, সারা বছরই অনলাইন বুকশপগুলো থেকে পাওয়া যাবে তাদের পছন্দের বই । আশার কথা, বাঙালীর প্রাণের এই মেলাকে কেন্দ্র করে পতি বছরই বাড়ছে প্রবীণ লেখকদের পাশাপাশি নবীন লেখক-প্রকাশক। শিকড়কে ভুলে না যেয়ে প্রবীণদের পাশাপাশি নবীনদের বরণ করা। এটাই বইমেলার সৌন্দর্যই।

এবারের বইমেলায় প্রবাসী লেখক, সাংবাদিক ও গীতিকার জমির হোসেনের দ্বিতীয় গ্রন্থ ‘জীবনের যত গান’ প্রকাশিত হয়েছে। ২০২০ সালে একুশে বইমেলায় লেখকের প্রথম গ্রন্থ প্রবাসে ‘মেঘ জোৎস্না’ গ্রন্থটি দেশে-বিদেশে প্রশংসিত হয়।

এবারের বইটি গীতিকাব্য দিয়ে সাজানো। দেশি-বিদেশি পাঠকের জন্য ইংরেজি ও বাংলা ভাষায় অনুবাদ করা হয়েছে। পরে ইতালিয়ানসহ অন্যানো ভাষায় অনুবাদ করার পরিকল্পনা রয়েছে। ফেলে আসা জীবনের অতীত, বর্তমান অনেক স্মৃতি আনন্দ-বেদনা। এমন ভাবনা থেকেই বোধকরি লেখক জমির হোসেন তার দীর্ঘ প্রবাস-যাপনের অভিজ্ঞতা থেকে লিখেছেন জীবনের গান ও প্রবাসের মেঘ-জ্যোৎস্না বই দুটি।

ইউরোপ-বাংলাদেশ প্রেস ক্লাবের সভাপতি সাংবাদিক জমির হোসেন তার দীর্ঘ প্রবাস জীবনের নানা অনুভূতি প্রকাশের মাধ্যমে জীবিকার তাগিদে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে অবস্থান করা সোয়া কোটি বাংলাদেশির কথা পাঠকের সামনে তুলে ধরেছেন।

তাই দুটো বই সম্পর্কে দুটো কথা লিখতে বসলাম। এর আগে আমি কখনো কোনো  বই নিয়ে লেখার সাহস করিনি। যেখানে একটি পৃষ্ঠা লিখতে শুরু হয় দম বন্ধ হওয়ার উপক্রম। আমি শুনেছি যারা ‘বই নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা’ করে থাকেন বা লেখেন তারা বই রচয়িতার চেয়ে বেশি পাণ্ডিত্য রাখেন। সাহিত্য সম্পর্কে আমার জ্ঞান খুব সীমিত। কোন সময় ছিল না এবং এখনও নেই। তাই বই-পুস্তক নিয়ে আলোচনা বা সমালোচনা করার সাহস কিংবা শক্তি কোনোটাই আমার নেই।

দীর্ঘকাল প্রবাসে থেকেও মাতৃভূমির সঙ্গে লেখক জমির হোসেনের এক ধরনের নাড়ির টান রয়েছে । তার লেখালেখির বিষয়গুলোও তার প্রমাণ করে। যুগান্তর ও জাগো নিউজের কল্যাণে লেখকের সঙ্গে আমার পরিচয় ইউরোপ পাড়ি দেওয়ার পূর্ব থেকে। লেখক তার প্রবাস জীবনের নানা অভিজ্ঞতা এবং অনুভূতি প্রকাশের মাধ্যমে জীবিকার তাগিদে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে অবস্থান করা সোয়া কোটি বাংলাদেশির কথা কিছুটা হলেও পাঠকের সামনে তুলে ধরেছেন। লেখাগুলো সুপাঠ্য, ভাষা প্রাঞ্জল এবং মার্জিত। লেখার যে বিষয়টা আমাকে অবাক করেছে তা হলো, সামাজিক অসঙ্গতি, হানাহানি-মৃত্যু ইত্যাদি বেশ কিছু বিষয় আলোচনায় নিপুনভাবে তুলে ধরেছেন।

দ্বিতীয় বইটি সম্প্রতি অমর একুশে বই মেলায় প্রকাশিত-  গ্রন্থটির  নাম ‘জীবনের যত গান’।  এটি কোনও গল্প , উপন্যাস বা প্রবন্ধ সংকলন নয়। অনেকটা আত্মজীবনীর মতো।  মূলত  প্রবাসের সুখ-দুঃখ, সুবিধা-অসুবিধা, চাওয়া-পাওয়ার কথা ফুটে উঠেছে। ‘জীবনের যত গান’ বইটি  দেশি-বিদেশি পাঠকের জন্য ইংরেজি ও বাংলা ভাষায় অনুবাদ করা হয়েছে।

লেখকের ভাষায় ‘সুন্দর পরিচ্ছন্ন সমাজ বিনির্মাণে সাহিত্য চর্চার কোনো বিকল্প নেই। আর বই পড়া তার-ই বড় একটি অংশ। পাশাপাশি একটি বই একজন মানুষকে পরিবর্তন করতে পারে খুব সহজে। অসৎ পথের উল্টো দিকে পথচলায়ও সহায়ক ভূমিকা রাখতে পারে। তিনি বলেন, শত ব্যস্ত সময়ের ফাঁকে এক একটি লেখার আবিষ্কার।’

আশা করি পাঠকদের ভালো লাগবে।  এই বইয়ের একটি কবিতা এরই মধ্যে গাণ হিসাবে  রেকর্ডিং সম্পন্ন  হয়েছে। খুব শিগগিরই তা শ্রোতারা শুনতে পারবেন। রোমান্টিক ধাচের এ গানের সুর করেছেন তরুণ সুরকার মুরাদ নুর, সঙ্গীত আয়োজনে মুশফিক লিটু এবং গেয়েছেন শিল্পী রুনা বিক্রমপুরী।

‘জীবনের যত গান’  গ্রন্থটির শুভেচ্ছা মূল্য  ২০০ টাকা। বইটির প্রচ্ছদ করেছেন ইউনুস নাজিম। প্রকাশক   পরিবার পাবলিকেশন্স ।

প্রবাস জীবনের সংকট, আশা-নিরাশা, ভ্রমণ, সাহিত্য-সংস্কৃতি সাবলীলভাবে প্রতিফলিত হয়েছে বই দুটিতে । রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সমাজ জীবন নিয়ে রয়েছে সরল বয়ান।  প্রবাসী জীবনের বৈচিত্র নানাদিক জানতে  বই দুটি গুরুত্বপূর্ণ দলিল হিসেবে কাজ করবে বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস।

কবির আল মাহমুদ, সাধারণ সম্পাদক, ইউরোপ-বাংলাদেশ প্রেসক্লাব। ইউরোপ প্রতিনিধি ;৫২বাংলা


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন