বুধবার, ১০ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
জীবন যেখানে দ্রোহের প্রতিশব্দ মৃত্যু সেখানেই শেষ কথা নয়..  » «   শিল্প উদ্যোক্তা ও ক্রীড়া সংগঠক মো: জিল্লুর রাহমানকে  লন্ডনে সংবর্ধনা  » «   ঈদের সামাজিক গুরুত্ব ও বিলাতে ঈদের ছুটি   » «   ব্রিটেনে ঈদের ছুটি  প্রসঙ্গে  » «   হজের খুতবা বঙ্গানুবাদ করবেন মাওলানা শোয়াইব রশীদ ও মাওলানা খলিলুর রহমান  » «   হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু, তাবুর শহর মিনায় হাজিরা  » «   ঈদের ছুটি : আমাদের কমিউনিটিতে সবার আগে শুরু হোক  » «   ঈদের দিনে বিলেত প্রবাসীদের মনোবেদনা  » «   বিলেতে ঈদ উৎসব এবং বাঙ্গালী কমিউনিটির অন্তর্জ্বালা  » «   জলঢুপে বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমান কেম্প  » «   তিলপাড়ায় বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «   করিমগঞ্জ দিবস  » «   ঈদের ছুটি চাই : একটি সমন্বিত উদ্যোগ অগণিত পরিবারে হাসি ফুটাতে পারে  » «   ট্রাক ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাণ গেল তিন বন্ধুর  » «   বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের বিনামূল্যে ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন


ঈদে ছুটি নাই
আবু মকসুদ



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

বেশ কয়েক বছর আগে আমি এক মহৎ কাজ করেছিলাম। তখন আমি একটা রেস্টুরেন্ট পরিচালনা করি ম্যানেজার এবং মালিক। আমার আগে যারা পরিচালনা করতেন তারা ক্রিসমাসের দিন রেস্টুরেন্ট বন্ধ রাখতেন, বছরে মাত্র একটি দিন। আমি দায়িত্ব নেয়ার পর বন্ধ একদিন বাড়িয়ে দিলাম অর্থাৎ ক্রিসমাস এবং বক্সিং ডে রেস্টুরেন্ট বন্ধ থাকবে। আমার স্টাফ বেজায় খুশি মনের মত গাভনার পেয়েছে।

সেই বছর রোজার ঈদে বেশ ঝামেলায় পড়ে গেলাম। ঈদের দুই-তিনদিন আগ থেকে একে একে স্টাফরা ছুটির আবেদন জানাল। সবাইকে ছুটি দেওয়া সম্ভব না। আবার একজনকে দিলে অন্যজন নাখোশ। বেশ বড় ঝামেলা। কি করা যায় ভাবতে ভাবতে সিদ্ধান্ত নিলাম- ঈদের দিন রেস্টুরেন্ট বন্ধ রাখবো। ঈদ হবে সোমবার অথবা মঙ্গলবার তাই সিদ্ধান্ত নিতে তেমন বেগ পেতে হয় নাই। সোমবার অথবা মঙ্গলবার তেমন ব্যবসা হয় না, অথবা এক দিনের জন্য কিছুটা আত্মত্যাগ। রেস্টুরেন্টের সবাই একসাথে ছুটি ভোগ করতে পারবে, ঈদ উদযাপন করতে পারবে, এর চেয়ে আনন্দের কিছু নাই। রেস্টুরেন্টের স্টাফ সবাই বেজায় খুশি, তারা প্রাণ খুলে আমার জন্য দোয়া করল।

ঈদের দিন রেস্টুরেন্ট বন্ধ রাখার কালচার আমাদের সমাজে নাই। যারা মালিক সম্প্রদায় তারা ঈদের পরোয়া করে না। তাদের চাই কাজ এবং পয়সা। ঈদের চেয়ে ব্যবসা তাদের কাছে অনেক গুরুত্বপূর্ণ। বলা বাহুল্য আমি অনেক মালিক কে চিনি, যারা একদিনের ব্যবসার জন্য মারা যাবে না কিংবা এক সপ্তাহ বন্ধ রাখলেও তাদের তেমন ক্ষতি হবে না- তবু তারা ঈদের জন্য বিন্দুমাত্র ছাড় দিতে রাজি হয় না।

আমি অনেক স্টাফের দুঃখের কাহিনী জানি, ঈদের ছুটি না পেয়ে অনেক কে কান্না করতে দেখেছি। মালিক হওয়ার আগের পর্বে আমিও বিভিন্ন রেস্টুরেন্টে কাজ করেছি। তখন আমি সংসারী হইনি। রেস্টুরেন্টের উপরে থাকি, নিচে কাজ করি। পিছুটান তেমন নেই। ঈদে আমাকে ছুটি না দিলে তেমন অসুবিধা না। কিন্তু আমার এক কলিগ আমার মতোই বিয়ে-শাদী করেনি ,তবে তার পরিবার আছে অর্থাৎ বাবা-মা-ভাই-বোন। তার বাবার ক্যান্সার, সে ঈদের ছুটির জন্য মিনতি জানিয়েছিল। তাকে ছুটি দিতে আমরাও অনুরোধ করেছিলাম। কিন্তু না মালিক নিজে পরিবারের সাথে সময় কাটানোর জন্য তাকে ছুটি দেয়নি। ঈদের পরের দিন তার বাবা মারা যান। শেষ ঈদ উদযাপন কিংবা শেষ দেখা কোনটাই তার ভাগ্যে নসিব হয়নি।

অন্য আর এক কলিগের কথা বলি- সদ্য দেশ থেকে বিয়ে করে বউ নিয়ে এসেছে। দাম্পত্য জীবনের প্রথম ঈদ একসাথে করার ইচ্ছা থাকা সত্বেও সম্ভব হয়নি। পাষাণ হৃদয় মালিক স্বামী-স্ত্রীর প্রথম ঈদ আনন্দকে পুরোপুরি নস্যাৎ করে দিয়েছে। ক্যান্সারে বাবা মারা যাওয়া কলিগ-কে যেভাবে উচ্চস্বরে কাঁদতে দেখেছি, ঠিক তেমনিভাবে এই কলিগ-কে ও নীরবে অশ্রু ফেলতে দেখেছি।

আমার মহৎ কাজের পিছনে এসব অভিজ্ঞতা কাজে লেগেছিল বলে মনে করছি। তবে মহৎ কাজ একবারই করতে পেরেছিলাম; রোজার ঈদের পরে কোরবানি ঈদ। কোরবানির ঈদ প্রায় দশ দিন আগে নির্ধারিত হয়ে যায়, দেখা গেল ঈদ হবে শনিবার। শনিবার রেস্টুরেন্ট বন্ধ রাখা আত্মহত্যার শামিল, আমার দৌড় আত্মত্যাগ পর্যন্ত ছিল। যদিও পার্টনারদের (তারা ঘুমন্ত পার্টনার ছিলেন, আমিই একমাত্র জাগ্রত পার্টনার) কাছে বন্ধের কথা বলেছিলাম, তারা আমাকে পাগল ঠাওরেছে। ঈদের জন্য পার্টনারশীপ বিপদে পড়ে যাবে ভেবে দ্বিতীয়বার বন্ধের কথা উচ্চারণ করিনি।

ঈদ বছরে দুবার আসে অর্থাৎ ৩৬৫ দিনের মধ্যে মাত্র দুই দিন। আমরা ক্রিসমাসের মত যদি ঈদকে গুরুত্ব দেই তাহলে মাত্র দুইদিন ব্যবসা বন্ধ রাখা কোন ব্যাপার না। কিন্তু সারা রমজান সোমালিয়ায় পানির কলের জন্য পাউন্ড ব্যয় করতে দ্বিধা করি না। কিন্তু পরিবারের সাথে একদিন ঈদের আনন্দ আমরা সহ্য করতে পারি না। আমরা বাঙালিরা বড় বিচিত্র চরিত্রের মানুষ।

আবু মকসুদ:  কবি ও  সম্পাদক, শব্দপাঠ

 


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন