বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
সৈয়দ আফসার উদ্দিন এমবিই‘র ইন্তেকাল  » «   ছাত্রলীগের উদ্যোগে বিয়ানীবাজারে পথচারী ও রোগীদের মধ্যে ইফতার উপহার  » «   ইস্টহ্যান্ডসের রামাদান ফুড প্যাক ডেলিভারী সম্পন্ন  » «   বিসিএ রেস্টুরেন্ট কর্মীদের মানসিক স্বাস্থ্য সুরক্ষায় এনএইচএস এর ‘টকিং থেরাপিস’ সার্ভিস ক্যাম্পেইন করবে  » «   গ্রেটার বড়লেখা এসোশিয়েশন ইউকে নতুন প্রজন্মদের নিয়ে কাজ করবে  » «   স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে বিয়ানীবাজার প্রেসক্লাবের দোয়া ও ইফতার মাহফিল  » «   কানাডা যাত্রায়  ইমিগ্রেশন বিড়ম্বনা এড়াতে সচেতন হোন  » «   ব্রিটিশ রাজবধূ কেট মিডলটন ক্যানসারে আক্রান্ত  » «   যুদ্ধ বিধ্বস্ত গাজাবাসীদের সাহায্যার্থে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অ্যালামনাই ইন দ্য ইউকের অনুদান  » «   বড়লেখায় পাহাড়ি রাস্তা সম্প্রসারণে বেরিয়ে এলো শিলাখণ্ড  » «   মাইল এন্ড পার্কে ট্রিস ফর সিটিস এর কমিউনিটি বৃক্ষরোপণ  » «   রয়েল টাইগার্স স্পোর্টস ক্লাবের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন সম্পন্ন  » «   গোলাপগঞ্জ স্যোশাল এন্ড কালচারাল ট্রাস্ট ইউকে’র সাধারণ সভা ও নির্বাচন সম্পন্ন  » «   যুক্তরাজ্যবাসি  সাংবা‌দিক সাইদুল ইসলামের পিতা আব্দুল ওয়াহিদের ইন্তেকাল  » «   ইউকে বাংলা রিপোটার্স ইউনিটি‘র নতুন কার্যকরী কমিটির অভিষেক  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন

সাদ্দাম রাতেই দুলাভাইকে ফোন দিয়ে বলেছিলেন তাকে মেরে ফেলার হুমকি দেওয়া হচ্ছে



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

 

 

বাংলাদেশ চলচিত্র উন্নয়ন সংস্থার (এফডিসি) শুটিং সহকারী হিসেবে কর্মরত সাদ্দাম হোসেন নামক এক যুবকের লাশ ২ জুন  রবিবার বিকেল ৩টার দিকে বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলার ভুতেরদিয়া এলাকার একটি নদী থেকে উদ্ধার করেছে স্থানীয় পুলিশ।

৫২বাংলা‘র এই প্রতিবেদক নিহত সাদ্দামের দুলাভাই মাইনুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করলে  তিনি জানান, ‘ছুটিতে গত ৩১ মে ঢাকা-ভান্ডারিয়া রুটে চলাচলকারী এমভি ফারহান-১০ লঞ্চযোগে ঢাকা থেকে বাড়ির উদ্দেশে বের হন সাদ্দাম। আসার পথে লঞ্চের ভিতরে অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়ে সে। এ সময় অজ্ঞান পার্টির সদস্যদের সাথে হাতাহাতি হয় সাদ্দামের। এক পর্যায়ে অবিশ্বাস্য ভাবে লঞ্চ স্টাফরাও সাদ্দামের ওপর হামলা চালায়। ঘটনার কিছু সময় পরেই সাদ্দাম তাকে ফোন দিয়ে জানান তারা সবাই মিলে তাকে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে’।

সাদ্দামের বন্ধু আনোয়ার হোসেন বলেন, লঞ্চের কর্মচারীরা তাঁকে মেরে ফেলবে এ কথা সাদ্দাম বুঝতে পেরে তাকেও অবগত করেছিলেন। লঞ্চে নিজ এলাকার দুইজনকে পেয়েছিলেন যাদের আরেকজন নাঈম। দুলাভাই- ভাগ্নে ভাগ্নিরজন্য কেনা নতুন জামা কাপড় সাদ্দাম নাঈমের হাতে তুলে দেন। নাঈমকে বলেন, ‘আমি যদি কোনোভাবে বাড়ি যেতে না পারি তাহলে এটা তুমি পৌঁছে দিও।‘

সাদ্দামের দুলাভাই মাইনুল ইসলাম আরো জানান, ‘সাদ্দাম রাত আড়াইটায় যখন ফোন দেয় তখন লঞ্চ মধ্যপথে। তাকে নিজে গিয়ে নিয়ে আসারও কোন পথ ছিল না, তা না হলে মটর সাইকেল করে নিয়ে আসতে পারতাম। ফোন রাখার কিছু সময় পর থেকে তার ফোন বন্ধ হয়ে গিয়েছিল।’

তারপর সকাল আটটার দিকে লঞ্চঘাট থেকে আনোয়ার নাঈমের কাছ থেকে সাদ্দামের দেয়া ভাগ্নে-ভাগ্নিদের জন্য কাপড় আর তার মোবাইল গ্রহন করেন তিনি।

বাবুগঞ্জ থানার ওসি দিবাকর চন্দ্র দাস জানান, লাশটি ভাসতে দেখে এলাকাবাসী থানায় খবর দেয়। পরে পুলিশ লাশটিউদ্ধার করে খবর পেয়ে মাইনুল ইসলাম(নিহতের দুলাভাই) নামের এক ব্যক্তি থানায় গিয়ে লাশ সনাক্ত করেন। পরে ময়না তদন্তের জন্য তার লাশ বরিশাল মর্গে প্রেরণ করা হয়।

এ ঘটনায় লিখিত অভিযোগসহ একটি মামলা প্রক্রিয়াধীন আছে বলে জানান ওসি। দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নেয়ারও আশ্বাস দেন ।

এদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে শিল্পী সমাজের অনেককেই  সাদ্দাম হত্যার প্রতিবাদ এবং বিচার চাইতে দেখা গেছে। হত্যাকারীদের কঠোর বিচার দাবী করেন তারা। আজ বিকেলে শিল্পী ও পরিচালকেরা মগবাজারে বিক্ষোভসমাবেশ ও মানববন্ধনের ডাক দিয়েছেন।


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন