মঙ্গলবার, ২৮ মার্চ ২০২৩ খ্রীষ্টাব্দ | ১৪ চৈত্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
বিয়ানীবাজারবাসীর কাছে দানবীর পবিত্র নাথ দাসের খোলা চিঠি : আপনাদের ঐতিহ্যকে বাঁচান  » «   প্রতীকি ‘মধ্যবিত্ত পরিবার’ হিসাবে  রমজানের পুরো মাসের খাবার উপহার  » «   রমজান : সামাজিক যোগাযোগে ইফতার, দানের ছবি এবং মেয়ের বাবার ইফতারী  » «   ট্রিস ফর সিটিস এর কমিউনিটি বৃক্ষরোপণ  » «   রামাদ্বানে ইস্ট লন্ডন মসজিদের নানা আলোকিত আয়োজন  » «   স্বাগত মাহে রমজান  » «   স্মার্ট ব্যাংকিং সেবা নিয়ে ইউরোপে আবারো চালু হচ্ছে নেক মানি ট্রান্সফার  » «   সেতারা চাল পছন্দ না হলে টাকা ফেরত  » «   টরন্টোতে বিসিএসসির ফ্লাওয়ার (কর্ক) উৎসব  » «   ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অ্যালামনাই ইন দ্য ইউকের বসন্তবরণ ও পিঠা উৎসব  » «   প্রবাসীদের যাপিত জীবন ও প্রবাসের সৌন্দর্য  » «   পান্ডব একজনই  » «   বিয়ানীবাজার ডেভলাপমেন্ট সোসাইটি ইউকের বার্ষিক সাধারণ সভা ও সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত  » «   স্পেনের বার্সেলোনায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত  » «   অমর একুশে ফেব্রুয়ারিকে ‘লন্ডন মাল্টিলিংগুয়াল ডে’ হিসেবে পালনের আহ্বান জানালেন যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন

জামাত নিয়ে সিলেট-৫ ও সিলেট-৬ আসনে বিএনপি’র মাথাব্যথা



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

জামায়াতে ইসলামকে নিষিদ্ধ ঘোষনা করা হলেও কার্যত তাদের কার্যক্রম সারা দেশেই দৃশ্যমান।আগের মতোই জামায়াতের সাথে অঘোষিত ঐক্যের মাঝেই আছে বিএনপি। রাজনৈতিক অঙ্গনে নানা বিতর্কে থাকা জামায়াতে ইসলামীকে কোনভাবেই জাতীয় রাজনীতি থেকে নির্বাসিত করা যাচ্ছে না।এসব বিতর্ক আলোচনা-সমালোচনা থাকা সত্ত্বেও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এখন পর্যন্ত জামায়াতের প্রায় ২৪ নেতার হাতে ধানের শীষ প্রতীক তুলে দিয়েছে বিএনপি। এসব আসনে বিএনপি মহাসচিব স্বাক্ষরিত মনোনয়নপত্র দেয়া হয়েছে, জামায়াত নেতাদের দেখানো হয়েছে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে। এর মধ্যে রয়েছে সিলেট-৫ ও সিলেট-৬ আসন।

সিলেট-৫ (জকিগঞ্জ-কানাইঘাট) আসনে জামায়াতের প্রার্থী কেন্দ্রীয় পরিষদের সদস্য মাওলানা ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী। নিজস্ব ভোট ব্যাংক রয়েছে দাবি করে ১৯৯১ এর পঞ্চম সংসদ নির্বাচন থেকেই এই আসনে নির্বাচন করেন তিনি। ২০০১ সাল থেকে জোটের হিসাবে এ আসনে জামায়াতকে ছাড় দিয়ে আসছে বিএনপি। তবে এবার আর ছাড় দিতে নারাজ সিলেটের স্থানীয় নেতাকর্মীরা।

নেতাকর্মীদের দাবি জামায়াতের নিজস্ব ভোট ব্যাংকের দাবি পুরোপুরি অযৌক্তিক। এই আসনে জামায়াতের কোনো ভোট নেই। ১৯৯১ সালের নির্বাচনে এই আসনে জামায়াতের একক প্রার্থী মাওলানা ফরিদ উদ্দিন ভোট পেয়েছিলেন ১৫ হাজার ২০৭টি। ৯৬ সালের নির্বাচনে তিনি পান ২৮ হাজার ১২০ ভোট। কিন্তু পাঁচ বছরের ব্যবধানে ২০০১ সালে জোটের প্রার্থী হয়ে ৭৭ হাজার ৭৫০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন।

সিলেট ৫ সংসদীয় আসন জামায়াতের প্রার্থীরা প্রতিবারই ভোট ব্যাংকের দোহাই দেন। কিন্তু নিকট অতীতে এমন কোনো কিছু দেখাতে পারেননি তারা। আদতে তাদের যা ভোট আছে তার সবই বিএনপির। বিগত উপজেলা নির্বাচনে তাদের প্রার্থী কোনো প্রতিদ্বন্দ্বিতাই গড়তে পারেননি।

একই অবস্থা সিলেট-৬ আসনেও। সিলেটের গোলাপগঞ্জ ও বিয়ানিবাজার দুই উপজেলা নিয়ে এ আসনটিতে জামায়াতের মাওলানা হাবিবুর রহমানকে দলীয় মনোনয়ন দিয়েছে বিএনপি। তবে এই সিদ্ধান্ত সহজভাবে নেয়নি স্থানীয় নেতাকর্মীরা। ১১ জন জনপ্রতিনিধি একসঙ্গে সংবাদ সম্মেলন করে জানান, তারা দলের বাইরে কাউকে ধানের শীষ প্রতীকে মেনে নেবেন না।

এই আসনটিতে জামায়াতের ভোটের অবস্থা করুণ। ২০০১ সালে জোটগত নির্বাচনের সময়ও জামায়াত প্রার্থী জামানত হারিয়েছেন। ২০০৮ সালেও প্রায় ৮০ হাজার ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন জামায়াতের হাবিবুর রহমান। এবারও তিনি মনোনয়ন পাওয়ায় ক্ষুব্ধ বিএনপি নেতাকর্মীরা।

সেজন্যেই এ আসনের বিজয় নিয়ে আসতে বিএনপি’র নিজস্ব নেতাই প্রয়োজন বলে মনে করছেন স্থানীয় নেতা-কর্মীরা।সিলেট-৬ এ মহাজোটের হেভীওয়েট প্রার্থীর বিপরীতে জামায়াতের প্রার্থী টিকে থাকতে পারবেন না বলেই তারা মনে করছেন।

এই আসনে বিএনপির দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন সাবেক জেলা ছাত্রদলের আহবায়ক ফয়সল আহমদ চৌধুরী।


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন