শনিবার, ২৫ জুন ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
পদ্মা সেতুর স্মারক নোট বাজারে আসবে রবিবার  » «   পদ্মা সেতুর জন্য অভিনন্দন বিশ্বব্যাংক প্রতিনিধির  » «   অদম্য বাংলাদেশ, খুলল পদ্মার দ্বার  » «   আছে শুধু ভালোবাসা, দিয়ে গেলাম তাই: প্রধানমন্ত্রী  » «   রেমিটেন্স প্রেরণে উদ্বুদ্ধকরণে মাদ্রিদে মতবিনিময় সভা’ অনুষ্ঠিত  » «   বিশ্বনাথে মায়ের কোল থেকে ভেসে গেল শিশু, ৫ জনের মৃত্যু  » «   লন্ডনে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র ইউকের বিশ বছরপূর্তি উদযাপন  » «   মধ্যপ্রাচ্যের প্রতিবাদ এবং সাধারণ জনগণ  » «   স্পেনে ঢাকা ফ্রুতাস (Frutas) এর ১৬ বছর পূর্তি উৎসব অনুষ্ঠিত  » «   সিলেটে বন্যা : বৃষ্টি হয়েছে নদ-নদীর পানি কমেছে  » «   সিলেটে রানওয়েতে বন্যার পানি, বন্ধ বিমানের ফ্লাইট  » «   যুক্তরাজ্যে ঈদে ছুটির দাবীতে আলতাব আলী পার্কে সমাবেশ ২২শে জুন  » «   বিয়ানীবাজারে বিদ্রোহী প্রার্থী ও গোলাপগন্জে নৌকা বিজয়ী  » «   রুয়ান্ডা যাওয়ার প্রথম ফ্লাইটটি বাতিল : প্রীতি প্যাটেল আশা ছাড়েন নি  » «   মরহুম এম এ গণির আত্মার মাগফিরাত কামনায় বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের শোক সভা ও দোয়া মাহফিল  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন


সিলেটের ইকো পার্কে এক সকাল



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

ডিপার্টমেন্টে এখনো ক্লাস শুরু হয়নি পুরোদমে। এডমিশনের পর, এই অল্প দিনে তেমন কারো সাথে পুরোপুরি বন্ধুত্ব গড়ে উঠেনি। গ্রুপ স্টাডির জন্য ভালো কয়েকটা বন্ধু দরকার।

অন্তু দা’র সাথে কথা বলে একটা ভালো আইডিয়ার সন্ধান মিললো। কোথাও বেড়াতে যাওয়া যায়।
বিষয়টা ডিপার্টমেন্টে জানালে, আগ্রহী পাঁচ-ছয়জনকে পাওয়া গেলো। হোয়াটস আ্যাপে একটা গ্রুপের মাধ্যমে কথা-বার্তা চললো, ডিসিশন ফাইনাল।
ইকো পার্ক আমাদের ক্যাম্পাসের কাছাকাছি। হেঁটে যেতে আধঘণ্টা লাগবে। আর বৃহস্পতিবার ক্লাস সাড়ে বারোটায়। সিদ্ধান্ত হলো নয়টায় রওয়ানা দেবো।

রাত থেকেই ব্যাগ গুছিয়ে নিলাম। সকাল নয়টা বাজার আগে-আগেই বাসা থেকে বের হলাম। ও মা, ক্যাম্পাসে সব রেডি। কয়েকটা নতুন মুখও।
ইকোনমিক্স থেকে মাইগ্রেশন করে ফাতেহা ইংলিশে গেলেও প্রথম দিনের পরিচয় ছেড়ে যায়নি। সবার কাছেই সে কম দিনে পরিচিত হয়েছে। ভীষণ রকম বন্ধু টাইপের মেয়েটি। ওর সাথে এসেছে আরমিন। আর আমাদের ডিপার্টমেন্টের অন্তু, মিসবাহ, রামিম, তালহা, আকছার, রেশমি, ইমা ও তপু। এগারো জনের টিম। সদলবলে হেঁটে-হেঁটে রওয়ানা দিলাম।

আজকের বেড়ানোর মূল টার্গেট সবার সাথে সবার পরিচয় আর বন্ধুত্ব পাকাপোক্ত করা।
পথে-পথে, গল্প আর আড্ডা দূরত্ব যেন কমিয়ে দিলো। টিকেট নিয়ে আমরা ঢুকে পড়লাম ভেতরে।
শহরের মাঝখানে প্রায় ১১১একর জায়গা জুড়ে এমন গাছ-গাছালির সমাহার, স্নিগ্ধ বাতাস আর মিষ্টি রোদ মন ভালো করার মত। এখানকার চিরসবুজ প্রকৃতিতে আমরা ক’জন যেন হারিয়ে গিয়েছিলাম। আস্তে-আস্তে হাঁটছি।
একে একে জেব্রা, চিত্রা হরিণ, ময়ূর, গোল্ডেন ফিজেন্ট পাখি, সিলভার ফিজেন্ট পাখি, ম্যাকাও পাখি, আফ্রিকান গ্রে পেরট, সান কানিউরি, ছোট লাভ বার্ড এবং অজগর দেখা হলো।
এখানকার পাখিদের উড়াউড়ি আর কল-কাকলি অন্যরকম অনুভূতির সৃষ্টি করে। ইকো পার্কে দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের আচরণ ভীষণ ভালো লাগলো। এখানে প্রচুর পর্যটকের সমাগমও পড়লো চোখে।

এতক্ষণে রোদ কড়া হতে শুরু করেছে। অনেকক্ষণ হাঁটায় কিছুটা ক্লান্তির সৃষ্টি হলো। এবার বসার পালা।
রোদমুক্ত দেখে একটা জায়গা বাছাই হলো। বসা হবে এক্ষুণি। ততক্ষণে ফাতেহার ওয়াটার পট খালি করে দিয়েছে রামিম।

কিছু খেলাধূলা দরকার। আমরা এখন কানামাছি খেলবো। প্রথমেই ধরা পড়েলো মিসবাহ। কানামাছি ভূঁ ভূঁ, কানামাছি ভূঁ, ভূঁ বলতে-বলতে ওকে ঝালাপালা করে দিলো সবাই। তবে রেহাই পায়নি কেউ, সবাই ধরা পড়েছে একবার করে।
ক্লান্তির রেশটা কেটে গেছে। এবার খেলা হবে ট্রুথ-ডেয়ার। যে ধরা পড়বে ট্রুথ নিলে প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে আর ডেয়ার নিলে করে দেখাতে হবে। ট্রুথে হাজারো প্রশ্ন আর ডেয়ারে সকলের আবৃত্তি, গান, নাচ, অভিনয় সবাইকে হাসালো। সবার মন ভালো হয়ে গেলো।

ক্লাসের সময় কাছাকাছি, এক্ষুণি ফিরতে হবে। দুটো সি.এন.জি. করে আমরা ছুটলাম ক্যাম্পাসের দিকে। অল্প সময়ে বেশী ভালো লাগার সুযোগ হয়েছে আজকের বেড়ানোতে। আর জায়গাটাওও ছিলো দারুণ।
সবমিলিয়ে বৃহস্পতিবারের বেড়ানোটা সবার মন সতেজ করেছে। সেদিন থেকে আমরা সবাই বন্ধু।


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন