শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ ভাদ্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
জীবন যেখানে দ্রোহের প্রতিশব্দ মৃত্যু সেখানেই শেষ কথা নয়..  » «   শিল্প উদ্যোক্তা ও ক্রীড়া সংগঠক মো: জিল্লুর রাহমানকে  লন্ডনে সংবর্ধনা  » «   ঈদের সামাজিক গুরুত্ব ও বিলাতে ঈদের ছুটি   » «   ব্রিটেনে ঈদের ছুটি  প্রসঙ্গে  » «   হজের খুতবা বঙ্গানুবাদ করবেন মাওলানা শোয়াইব রশীদ ও মাওলানা খলিলুর রহমান  » «   হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু, তাবুর শহর মিনায় হাজিরা  » «   ঈদের ছুটি : আমাদের কমিউনিটিতে সবার আগে শুরু হোক  » «   ঈদের দিনে বিলেত প্রবাসীদের মনোবেদনা  » «   বিলেতে ঈদ উৎসব এবং বাঙ্গালী কমিউনিটির অন্তর্জ্বালা  » «   জলঢুপে বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমান কেম্প  » «   তিলপাড়ায় বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «   করিমগঞ্জ দিবস  » «   ঈদের ছুটি চাই : একটি সমন্বিত উদ্যোগ অগণিত পরিবারে হাসি ফুটাতে পারে  » «   ট্রাক ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাণ গেল তিন বন্ধুর  » «   বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের বিনামূল্যে ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন


এমন দিন আসবে
সাইফউদ্দিন আহমেদ বাবর



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

বেশ কিছু দিন ধরে রেষ্টুরেন্টের জীবন যাপন নিয়ে ‘রেষ্টুরেন্টের ভেতরের গল্প’ নামে সত্য ঘটনা লিখে,ফেইসবুকে পোস্ট করে আসছি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে আমার প্রায় দুই হাজারের মতো ফ্রেন্ড। এদের মাঝে এক শতাংশও আমার লেখা পড়েন বলে মনে হয় না। পড়লে তাদের প্রতিক্রিয়া জানতে পারতাম।তারা আমার সাথে একমত পোষণ করতেন। কেননা আমি যা লিখেছি বা লিখছি সেসব আমার নিজের অভিজ্ঞতার আলোকেই লিখছি।

আমার চোখের সামনে যা ঘটছে,আমার সাথে যা ঘটছে-এসবই আমি হুবহু তুলে ধরছি। আমরা,যারা রেষ্টুরেন্ট কর্মী,আমাদের সাথে গাভনারদের আচরণ,আমাদের প্রতি গাভনারদের মনোভাব,কোন পর্যায়ের হয়ে থাকে-সেটিই আমি সকলের কাছে স্পষ্ট করে তুলে ধরতে চাচ্ছি।

দীর্ঘ পঁয়ত্রিশ বছরের রেষ্টুরেন্ট জীবন -যাপনের অভিজ্ঞতা আমার। শুরু থেকেই যা দেখে আসছি,বিভিন্ন সময় বিভিন্ন জনের কাছ থেকে যা শোনে আসছি,তাতে বারো হাজার ইন্ডিয়ান,বাংলাদেশী রেস্টুরেন্টের ছত্রিশ হাজার (একটি রেস্টুরেন্টে গড়ে তিনজন গাভনার হিসাবে ধরেছি )গাভনার- আমাদের বাহাত্তর হাজার (একটি রেস্টুরেন্টে গড়ে ছয়জন স্টাফ হিসাবে ) কর্মীদের সাথে,যে ধরণের আচরণ করে আসছেন,আমাদের উপর তাদের ইচ্ছা অনুযায়ী নিয়ম- কানুন আরোপ করে আসছেন,যে ধরণের অবহেলা প্রদর্শন করে আসছেন,তার যতোটুকু আমার দ্বারা সম্ভব-লিখে তুলে ধরার চেষ্টা করছি।

জানিনা কতোটুকু আমার লেখায় ফুটিয়ে তুলতে পারছি! তবে আমি আশাবাদী,সামনে এমন দিন আসবে,যখন আমরা রেস্টুরেন্ট কর্মীরা সংঘবদ্ধ হতে পারবো, তখন আমাদের সাথে গাভনারদের করা অবহেলা,অপমানের প্রতিবাদি হয়ে,আমাদের প্রাপ্য আদায় করে নেবো। আমরা আর সব ন্যায্য অধিকারের সাথে,রোজারর মাসে ইফতারির জন্য দশ মিনিটের জন্য হলেও ব্রেক পাবো।পরিবার পরিজন নিয়ে ঈদ উদযাপনের জন্য আমরা সবাই ছুটি পাবো।

সাইফউদ্দিন আহমেদ বাবর: কবি, লেখক, লন্ডন।


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন