মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৪ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতাল কর্তৃক বন্যা দুর্গতদের চিকিৎসার্থে বিনামূল্যে ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «   যুক্তরাজ্যে ঈদের ছুটির দাবীতে  আলতাব আলী পার্কে সমাবেশ অনুষ্ঠিত  » «   পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে স্পেনে দূতাবাসের বিশেষ আয়োজন  » «   পদ্মা সেতুর স্মারক নোট বাজারে আসবে রবিবার  » «   পদ্মা সেতুর জন্য অভিনন্দন বিশ্বব্যাংক প্রতিনিধির  » «   অদম্য বাংলাদেশ, খুলল পদ্মার দ্বার  » «   আছে শুধু ভালোবাসা, দিয়ে গেলাম তাই: প্রধানমন্ত্রী  » «   রেমিটেন্স প্রেরণে উদ্বুদ্ধকরণে মাদ্রিদে মতবিনিময় সভা’ অনুষ্ঠিত  » «   বিশ্বনাথে মায়ের কোল থেকে ভেসে গেল শিশু, ৫ জনের মৃত্যু  » «   লন্ডনে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র ইউকের বিশ বছরপূর্তি উদযাপন  » «   মধ্যপ্রাচ্যের প্রতিবাদ এবং সাধারণ জনগণ  » «   স্পেনে ঢাকা ফ্রুতাস (Frutas) এর ১৬ বছর পূর্তি উৎসব অনুষ্ঠিত  » «   সিলেটে বন্যা : বৃষ্টি হয়েছে নদ-নদীর পানি কমেছে  » «   সিলেটে রানওয়েতে বন্যার পানি, বন্ধ বিমানের ফ্লাইট  » «   যুক্তরাজ্যে ঈদে ছুটির দাবীতে আলতাব আলী পার্কে সমাবেশ ২২শে জুন  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন


ব্রিটিশ রানির ওবিই খেতাব পেলেন বিসিএ’র প্রেসিডেন্ট  এম এ  মুনিম   



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

২রা জুন ছিল ব্রিটেনের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের শাসনের সত্তর বছর পূর্তি ও ৯৬তম জন্মদিন। ব্রিটেনে বসবাসরত বাংলাদেশী কমিউনিটির উন্নয়নে বিশেষ অবদানের জন্য এম এ মুনিম রানি এলিজাবেথ সম্মাননা প্রদান করা হয়।

রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের শাসনের সত্তর বছর পূর্তি ও ৯৬তম জন্মদিন উপলক্ষে ব্রিটেনসহ সংশ্লিষ্ট দেশগুলিতে ‘প্ল্যাটিনাম জুবিলি’ পালিত হয়েছে ৫ জুন পর্যন্ত।  ২রা জুন জন্মদিন উপলক্ষে এ বছরের এই দিনটি ব্রিটিশদের জন্য ছিল বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ। এ দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখতে ব্রিটেনে বসবাসরত বিভিন্ন গুণী ব্যক্তিদেরকে রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ সম্মাননা প্রদান করেন। তাদের মধ্যে মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া উপজেলার কৃতি সন্তান বাংলাদেশ ক্যাটারার্স এসোসিয়েশন ইউকে এর সভাপতি মোহাম্মদ আব্দুল মুনিম কমিউনিটির উন্নয়নে বিশেষ অবদানের জন্য পেলেন ওবিই পদক।

এম এ মুনিম বাংলাদেশ ক্যাটারার্স এসোসিয়শন ইউকে  এর সম্মানিত সভাপতি, জালালাবাদ এসোসিয়েশন ইউকের ভাইস প্রেসিডেন্টসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে জড়িত। এম এ মুনিম এ পদক পাওয়ায় দেশ-বিদেশের বিভিন্ন গুণী ব্যক্তিবর্গ ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

এক বিবৃতিতে মোহাম্মদ মুনিম বলেন, ‘আমি দীর্ঘদিন ধরে কমিউনিটির জন্য বিশেষ করে ক্যাটারার্স এসোসিয়শনের জন্য যে কাজ করে যাচ্ছি তারই স্বীকৃতি হিসাবে এ পদক পেয়েছি বলে আমি গর্বিত। আমি ক্যাটারার্স এসোসিয়শনের সকল সদস্য, কর্মকর্তার কাছে কাজ করার সুযোগ দানের জন্য কৃতজ্ঞ।’

কুলাউড়ার সন্তান হিসাবে এমন সম্মানীত পদক পাওয়ায় তার অনুভূতি জানতে চাইলে বলেন, ‘আমি তো কুলাউড়ারই একজন মানুষ, বাংলাদেশের মানুষ, তাই আমার এ সম্মান প্রাপ্তি, কুলাউড়ার সকল মানুষের জন্যই সম্মান বয়ে এনেছে বলে আমি বিশ্বাস করি।’

মোহাম্মদ মুনিমের ওবিই খেতাব প্রাপ্তিতে অভিনন্দন জানিয়েছেন  বিসিএ এর সাবেক প্রেসিডেন্ট বজলুর রশিদ এমবিই, পাশা খন্দকার এমবিই,  জালালাবাদ এসোসিয়েশন ইউকের প্রেসিডেন্ট মুহিবুর রহমান মুহিব, সেক্রেটারি আমিনুল হক জিল্লু, প্রেস এন্ড পাবলিকেশন সেক্রেটারি মো: আব্দুল মুনিম জাহেদী ক্যারল, ইস্টহ্যান্ডস ইন্টারন্যাশনাল চ্যারিটির চেয়ারম্যান বিশিষ্ট ক্রীড়াবিদ সাংবাদিক নবাব উদ্দিন, বাংলা কাগজের চেয়ারম্যান আজাদ আবুল কালাম, সাধারণ সম্পাদক খছরু মোহাম্মদ খান, নির্বাহী সম্পাদক রিয়াদ আহাদ এবং মৌলবীবাজার জেলা জনকল্যাণ ট্রাস্ট মিডল্যান্ডস-এর সহসভাপতি আব্দুল কাদির আবুল।

উল্লেখ্য যে, একসময়ের সিলেটের তুখোড় ছাত্র নেতা বর্তমান বিসিএ সভাপতি এম এ মুনিম ১৯৫৮ সালে মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া উপজেলার কামার কান্দি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা মরহুম আলহাজ্ব মো: আবদুল বারী ছিলেন একজন প্রখ্যাত ঠিকাদার ও সফল ব্যবসায়ী।

শিক্ষা জীবনে এম এ মুনিম কুলাউড়া এনসি হাই স্কুল থেকে ১৯৭৩ সালে প্রথম বিভাগে এসএসসি পাশ করেন। ৭৪ সালে সিলেট এমসি কলেজে ভর্তি হন এবং সেখানেই উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগে (অনার্স) অধ্যয়ন করেন।

এম এ মুনিম সিলেট সরকারি কলেজে (এমসি) দু’বার ছাত্রলীগের সভাপতি এবং দু’বার বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সিলেট জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। তিনি তখন শিক্ষা আন্দোলন বিশেষ করে সিলেটে একটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার দাবিতে প্রচার কর্মকান্ড পরিচালনা করেন। সিলেট বিভাগ প্রতিষ্ঠার আন্দোলনেও তিনি অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন।

১৯৯৯ সালে মোহাম্মদ মুনিম বাংলাদেশ ক্যাটারার্স এসোসিয়েশনের সাউথ ইস্ট রিজিওনের সভাপতি নির্বাচিত হন। ২০০৪ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত তিনি বিসিএ কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি এবং ২০০৭ থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত অর্গানাইজিং সেক্রেটারি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০১২ সালে বিসিএর সেক্রেটারি জেনারেল নির্বাচিত হন। ২০১৭ সাল পর্যন্ত তিনি অত্যন্ত যোগ্যতার সাথে দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৭ থেকে ২০১৯ পর্যন্ত নির্বাহী সদস্য এবং ২০১৯ থেকে সভাপতি হিসেবে নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন।


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন