বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২৭ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
জীবন যেখানে দ্রোহের প্রতিশব্দ মৃত্যু সেখানেই শেষ কথা নয়..  » «   শিল্প উদ্যোক্তা ও ক্রীড়া সংগঠক মো: জিল্লুর রাহমানকে  লন্ডনে সংবর্ধনা  » «   ঈদের সামাজিক গুরুত্ব ও বিলাতে ঈদের ছুটি   » «   ব্রিটেনে ঈদের ছুটি  প্রসঙ্গে  » «   হজের খুতবা বঙ্গানুবাদ করবেন মাওলানা শোয়াইব রশীদ ও মাওলানা খলিলুর রহমান  » «   হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু, তাবুর শহর মিনায় হাজিরা  » «   ঈদের ছুটি : আমাদের কমিউনিটিতে সবার আগে শুরু হোক  » «   ঈদের দিনে বিলেত প্রবাসীদের মনোবেদনা  » «   বিলেতে ঈদ উৎসব এবং বাঙ্গালী কমিউনিটির অন্তর্জ্বালা  » «   জলঢুপে বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমান কেম্প  » «   তিলপাড়ায় বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «   করিমগঞ্জ দিবস  » «   ঈদের ছুটি চাই : একটি সমন্বিত উদ্যোগ অগণিত পরিবারে হাসি ফুটাতে পারে  » «   ট্রাক ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাণ গেল তিন বন্ধুর  » «   বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের বিনামূল্যে ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন


বানিয়াচংয়ে জঙ্গল থেকে প্রতিবন্ধী কিশোরের লাশ উদ্ধার



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে জঙ্গল থেকে এক প্রতিবন্ধী কিশোরের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। নিহত কিশোরের নাম আশরাফ (১৫)। তার পিতার নাম আব্দুল আহাদ।

২০ মার্চ দুপুর ১২টায় উপজেলার ৩ নম্বর ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের জাতুকর্ণ পাড়া গ্রামের মাইজের মহল্লার মেস্তরী বাড়ির পাশের জঙ্গল (পুতা বাড়ি) থেকে লাশ উদ্ধার করা হয়।

বানিয়াচং থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হবিগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতালে প্রেরন করেছে।

উদ্ধারকৃত লাশটি অর্ধনগ্ন অবস্থায় পাওয়া গেছে। এছাড়া চোখ দুটি উপরে তোলার চেষ্টা করার কারনে রক্তাক্ত ও খুবলানো অবস্থায় পাওয়া গেছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়,নিহত কিশোরের বাবার বাড়ি পাশ্ববর্তী আজমিরীগঞ্জ উপজেলায়। বাবা মায়ের বিচ্ছেদ হওয়ার কারনে মা আমীরুন্নেছা অন্যত্র বিয়ে করে অন্য আরেকজনের সাথে সংসার করছেন। এ অবস্থায় কিশোরটির বাবাও খোজ করতেননা।

নিহত আশরাফ তার নানী আরশ বিবির সাথে একই ইউনিয়নের দোয়াখানী গ্রামে থাকতো।শারিরীকভাবে প্রতিবন্ধী নিহত কিশোর স্পষ্টভাবে কথাও বলতে পারতো না।

নিহতের মামাতো বোন ডালিয়া বেগম জানান, শনিবার সকালে ভাত খেয়ে অন্যান্য দিনের মত সকাল ৯টায় সে বাড়ি থেকে বেরিয়ে ছিল।

সে সাধারনত বাড়ির আশপাশেই ঘোরাঘুরি করে দুপুরে বাড়ি ফিরে আসতো। ডালিয়ার দাবি তাদের বাড়ি থেকে এতদূরে সে কোন দিন যায় নাই। আর প্রতিবন্ধী হওয়ার কারনে তার সাথে অন্য কারো কোন সমস্যাও ছিলোনা।

এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মৌঃ হাবিবুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, নিহত কিশোরের লাশটি একটি জঙ্গলঘেরা স্থান থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে বানিয়াচং থানার অফিসার ইনচার্য মোঃ এমরান হোসেন বলেন, নিহত কিশোর প্রতিবন্ধী ছিল। লাশ উদ্ধার করার সময় লাশের গায়ে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। তদন্ত ছাড়া হত্যার কারন বলা যাচ্ছেনা।


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন