রবিবার, ৫ জুলাই ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ আষাঢ় ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
জালালাবাদ এসোসিয়েশনের প্রচেষ্টায় চাটার্ড ফ্লাইটে ফ্রান্স ফিরলেন ১৫০ জন বাংলাদেশী  » «   জালালাবাদ এসোসিয়েশনের প্রচেষ্টায় ফ্রান্স ফিরেছেন ১৫০ বাংলাদেশী  » «   আরব আমিরাতে ৫২বাংলার নতুন টীম, ৩০ এপ্রিল থেকে লন্ডন প্রতিনিধিকেও অব্যাহতি  » «   বাংলাদেশে করোনায় মৃত্যু দুই হাজার ছাড়ালো  » «   লন্ডনে দ্বিতীয় আউটডোর ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্ট ইউকে ২০২০ সম্পন্ন  » «   ব্রিটেনে বর্ষসেরা জিপি চিকিৎসক বাংলাদেশী বংশদ্ভোদ ডা. ফারজানা  » «   পাটকল বন্ধ করা মুক্তিযুদ্ধের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা  » «   ইতালি ছাত্রলীগ নেতার উদ্যোগে সিলেটে বৃক্ষরােপন  » «   ফটিকছড়িতে করোনা হাসপাতাল প্রস্তুতিতে সহায়তা করলো ‘নারায়ণহাট প্রবাসী জনকল্যাণ পরিষদ’  » «   এম এ হকের জানাজায় মানুষের ঢল  » «   পুরো মন্ত্রীসভা নিয়ে পদত্যাগ করেছেন ফ্রান্সের প্রধানমন্ত্রী এডওয়ার্ড ফিলিপ  » «   সৌদি থেকে দেশে ৪১৫ জন, মিসর গেলেন ১৪০ বাংলাদেশি  » «   ১৩ জুলাই থেকে লন্ডনের মসজিদগুলো পরিক্ষামুলক খোলা হবে  » «   ঢাকা থেকে প্যারিস বিশেষ ফ্লাইট আসছে আগামীকাল ৪ জুলাই  » «   সিলেট বিভাগে করোনা আক্রান্ত ৫ হাজারের কাছাকাছি  » «  

আমিরাতে এক বাংলাদেশী বীরের গল্প

৩ বছরের পাকিস্তানী বাচ্চার প্রাণ বাঁচালেন বাংলাদেশী ফারুক



দূর প্রবাসে হাজার প্রতিকুলতার মধ্য থেকেও, সবাই স্ব-স্ব স্থান থেকে তুলে ধরি নিজের দেশ কে, কেউ জেনে, আবার কেউ অজান্তে। তেমনই কিছু করেছেন বাংলাদেশের চট্টগ্রাম জেলার রাউজান থানার, কদলপুর গ্রামের ফারুক ইসলাম। তার পিতার নাম নুরুল হক। আজমানের নাইমিয়াতে জ্বলন্ত বিল্ডিংয়ের দিকে তাকিয়ে থাকা লোকেদের ভিড়ের মধ্যে ৫৭ বছরের এই সাহসী প্রবাসী দৌড়ে এসে প্রাণ বাঁচান তিনবছর বয়সী একটি বাচ্চার যাকে তার মা আগুন লাগায় তৃতীয় তলা থেকে নিচে ছেড়ে দেয়।

ছেলেটির জীবন রক্ষা করার জন্য মঙ্গলবার ফারুক ইসলাম কে আজমান সিভিল ডিফেন্সের পক্ষ থেকে সম্মানিত করা হয়।

তিনি বাইরে এসে মহিলার চিৎকার শুনতে পান। তিনি তাকিয়ে দেখলেন মা তার বাচ্চাকে ধরে রেখে একটি বড় জানালার পাশে দাঁড়িয়ে আছেন। সেখানে জনতার ভিড় ছিল, কিন্তু কেউ তাকে উদ্ধার করার চিন্তা করে নি। এই মহিলা ও তার সন্তানকে বাঁচানোর জন্য ফারুক এগিয়ে আসেন ।

শনিবার রাতে নুয়াইমিয়ায় তিন তলার এই অ্যাপার্টমেন্টটিতে ভীষণভাবে আগুন লাগায়, কালো, কালো ধোঁয়ায় একটু সময়েই পুরো ফ্ল্যাট ভরে যায়। জানালা ছাড়া অন্য কোন পথ খুঁজে বের করা সম্ভব হচ্ছিলো না।

বাচ্চা কে সুরক্ষিত দেখে, মা ও সেখান থেকে লাফ মারেন, কিন্তু পার্কিং এ রাখা একটি গাড়ির উপর পরে, উনি গুরুতর ভাবে আহত হন l তিনি এখন শেখ খালীফা হাসপাতাল এ চিকিৎসাধীন আছেন।

বাচ্চার বাবা যিনি ঘটনার সময় অফিস এ ছিলেন, উনি ফারুক ইসলামের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন যে তিনি উনাদের জন্য কোন ফেরেস্তার চেয়ে কম না।

আরব আমিরাতের প্রভাবশালী সকল পত্রিকায় তাঁর এ বীরত্বের কথা ছাপা হয়েছে। এ জন্য আরব আমিরাতে থাকা বাংলাদেশীরাও অনেক খুশি।

মেশিনে বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিটগুলির কারণে ভবনটিতে আগুন লাগে, যার ফলে ভবনটিতে কালো ধোঁয়া দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। আরো একটি মহিলা ও পুরুষ ও জানালা দিয়ে লাফ মারেন আর এখন সুস্থ আছেন।

এমন ভালো কাজে পুরস্কৃত হওয়ায় তিনি খুব খুশি, এবং বাংলাদেশী প্রবাসীদেরও নিজ-নিজ ভাবে দেশকে তুলে ধরতে বলেন।