মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
মাসা আমিনির মৃত্যুতে ইরানের ‘নীতি পুলিশ’ এখন আলোচনায়  » «   অনশনে বসতে আ’লীগ কার্যালয়ে ইডেন ছাত্রলীগের ১২ নেত্রী  » «   ইতালিতে জাঁকজমকপূর্ণভাবে বিএনপি’র ৪৪তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   ইতালির জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এমপি ও সিনেট পদপ্রার্থীদের রোমের বাংলাদেশী কমিউনিটির সাথে মতবিনিময়  » «   রানির প্রস্থান, রাজার আগমন এবং আধুনিক ব্রিটেন  » «   আন্তর্জাতিক হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় তৃতীয় বাংলাদেশি তাকরিম  » «   ফুটবলার আঁখির বাবার সঙ্গে অসদাচরণ, দুই পুলিশ ক্লোজড  » «   গোলাম কিবরিয়া  : সংগ্রামেই যিনি সাফল্যের উচ্চশিখরে  » «   ফুডেক্স সৌদি মেলায় বাংলাদেশি খাদ্য পন্য নিয়ে চার বৃহৎ কোম্পানি  » «   দশ বছর পর রোমে ইতালী আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত  » «   বিশ্বনেতারা রানির শেষকৃত্য অনুষ্ঠানে যাবেন বাসে চড়ে  » «   আল হাবীব ফাউন্ডেশনের সহাহতায় সফল শিক্ষার্থীদের জন্য ম্যানচেষ্টার মেট্রপলিটন বিশ্ববিদ্যালয়ের আয়োজন  » «   ইতালিতে সংসদ সদস্য আ ক ম বাহার উদ্দিন বাহারকে সংবর্ধনা দিয়েছে কুমিল্লাবাসী  » «   রানির জীবনাবসানে যুক্তরাজ্যে যা হতে পারে  » «   ব্রিটেনের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের জীবনাবসান  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন


যুক্তরাজ্যে নাইফ ক্রাইম বেড়েছে, কম্পিউটার অপরাধ কমেছে



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

নাইফ ক্রাইম ইংল্যন্ডে অত্যন্ত আলোচিত একটা অপরাধ। প্রতি বছরই এ  অপরাধ বাড়ছে। ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসে এই অপরাধ এবছর উদ্বেগজনকভাবে বেড়েছে বলে রিপোর্ট বেরিয়েছে। নাইফ কিংবা চাকু ব্যবহার করে হত্যাকান্ডের সংখ্যা বেড়েছে গতবছরের তুলনায় এবছর অন্তত ১২ শতাংশ। অন্যদিকে চাকু কিংবা ধারালো কোন জিনিষ ব্যবহার করে অপরাধ সংগঠিত করার হার বেড়েছে ২০ শতাংশ।
ইংল্যান্ডে এবং ওয়েলসে সংগঠিত ৪০,১৪৭ অপরাধের মাঝে দেখা গেছে চাকু দিয়ে আপরাধ করার প্রবনতাটাই অধিক। ছোট-বড় মিলে প্রায় ৫.৫ মিলিয়ন অপরাধ সংগঠতি হয়েছে গতবছর। এ বছরে সংগঠিত অপরাধ তুলনা করে দেখা গেছে এখন পর্যন্ত ইংল্যান্ড এবং ওয়েলস এ সংগঠিত অপরাধের সংখ্যা বেড়েছে প্রায় ১১ শতাংশ।
এ হিসেবে দেখা গেছে গান ক্রাইম অর্থাৎ বন্দুক দিয়ে অপরাধ সংগঠিত করা কিছুটা কমেছে অর্থাৎ বছরের মোট আনুপাতিক হারের হিসাবে তা বেড়েছে তাদের রেকর্ড অনুযায়ী মাত্র ২ শতাংশ। সার্বিকভাবে বড় ধরণের অপরাধের সংখ্যা হ্রাস পেলেও ছোট-খাট অপরাধ বৃদ্ধি পাওয়ায় সামগ্রিক অপরাধের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে।
যেমন বাসা কিংবা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান চুরি বা ডাকাতির সংখ্যা বেড়েছে ৩০ ভাগ, ছিটকা  চুর কর্তৃক গাড়ির জানালা ভেঙ্গে চুরির সংখ্যা বেড়েছে ১৭ শতাংশ। তবে আশার কথা হলো, কম্পিউটার সংশ্লিষ্ট অপরাধ প্রায় ৩১ শতাংশ  হ্রাস পেয়েছে। বলা হচ্ছে কম্পিউটারে ভাইরাস প্রবেশ কমে যাওয়ায় তা রোধ করা সম্ভব হয়েছে।
এরপরও দেশটির জাতীয় পরিসংখ্যান বিভাগ (ওএনএস) থেকে প্রকাশিত এক তথ্যে বলা হচ্ছে দেশটিতে অপরাধ প্রবনতা কিছুটা হলেও স্থিতিশীল রয়েছে। ওএনএস’র এর মূখপাত্র ক্যরোলাই ইওল এক বিবৃতিতে বলেছেন এরপরও তারা মনে করেন অধিকাংশ ক্ষেত্রেই অপরাধ একটা সীমাবদ্ধতার মধ্যেই আছে অর্থাৎ স্থিতিশীল রয়েছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন