রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
বাংলাদেশে বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থী ও সাংবাদিকের প্রাণহানি এবং সৃষ্ট অস্থিরতা-সহিংসতায় লন্ডন বাংলা প্রেস ক্লাবের ক্ষোভ-নিন্দা  » «   সৃজনের আলোয় মুস্তাফিজ শফি, লন্ডনে বর্ণাঢ্য সংবর্ধনা  » «   বৃটেনে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত তাহমিনার অসাধারণ সাফল্য  » «   দুই বঙ্গকন্যা ব্রিটিশ মন্ত্রীসভায় স্থান পাওয়ায় বঙ্গবন্ধু লেখক এবং সাংবাদিক ফোরামের আনন্দ সভা ও মিষ্টি বিতরণ  » «   কেয়ার হোমের লাইসেন্স বাতিলের বিরুদ্ধে আইনী লড়াইয়ে ল’ম্যাটিক সলিসিটর্সের সাফল্য  » «   যুক্তরাজ্যে আবারও চার ব্রিটিশ-বাংলাদেশী  পার্লামেন্টে  » «   আমি লুলা গাঙ্গ : আমার আর্তনাদ কেউ  কী শুনবেন?  » «   বাংলাদেশে মানবাধিকার লঙ্ঘনের প্রতিবাদে লন্ডনে ইউনিভার্সেল ভয়েস ফর হিউম্যান রাইটসের সেমিনার অনুষ্ঠিত  » «   লন্ডনে বাংলা কবিতা উৎসব ৭ জুলাই  » «   হ্যাকনি সাউথ ও শর্ডিচ আসনে এমপি প্রার্থী শাহেদ হোসাইন  » «   ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অ্যালামনাই ইন দ্য ইউকে’র সাথে ঢাবি ভিসি প্রফেসর ড. এএসএম মাকসুদ কামালের মতবিনিময়  » «   মানুষের মৃত্যূ -পূর্ববর্তী শেষ দিনগুলোর প্রস্তুতি যেমন হওয়া উচিত  » «   ব্যারিস্টার সায়েফ উদ্দিন খালেদ টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের নতুন স্পীকার নির্বাচিত  » «   কানাডায় সিলেটের  কাউন্সিলর জাহাঙ্গীর আলমকে সংবর্ধনা ও আশার আলো  » «   টাওয়ার হ্যামলেটসের নতুন লেজার সার্ভিস ‘বি ওয়েল’ এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করলেন মেয়র লুৎফুর রহমান  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন

যুক্তরাজ্যে নাইফ ক্রাইম বেড়েছে, কম্পিউটার অপরাধ কমেছে



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

নাইফ ক্রাইম ইংল্যন্ডে অত্যন্ত আলোচিত একটা অপরাধ। প্রতি বছরই এ  অপরাধ বাড়ছে। ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসে এই অপরাধ এবছর উদ্বেগজনকভাবে বেড়েছে বলে রিপোর্ট বেরিয়েছে। নাইফ কিংবা চাকু ব্যবহার করে হত্যাকান্ডের সংখ্যা বেড়েছে গতবছরের তুলনায় এবছর অন্তত ১২ শতাংশ। অন্যদিকে চাকু কিংবা ধারালো কোন জিনিষ ব্যবহার করে অপরাধ সংগঠিত করার হার বেড়েছে ২০ শতাংশ।
ইংল্যান্ডে এবং ওয়েলসে সংগঠিত ৪০,১৪৭ অপরাধের মাঝে দেখা গেছে চাকু দিয়ে আপরাধ করার প্রবনতাটাই অধিক। ছোট-বড় মিলে প্রায় ৫.৫ মিলিয়ন অপরাধ সংগঠতি হয়েছে গতবছর। এ বছরে সংগঠিত অপরাধ তুলনা করে দেখা গেছে এখন পর্যন্ত ইংল্যান্ড এবং ওয়েলস এ সংগঠিত অপরাধের সংখ্যা বেড়েছে প্রায় ১১ শতাংশ।
এ হিসেবে দেখা গেছে গান ক্রাইম অর্থাৎ বন্দুক দিয়ে অপরাধ সংগঠিত করা কিছুটা কমেছে অর্থাৎ বছরের মোট আনুপাতিক হারের হিসাবে তা বেড়েছে তাদের রেকর্ড অনুযায়ী মাত্র ২ শতাংশ। সার্বিকভাবে বড় ধরণের অপরাধের সংখ্যা হ্রাস পেলেও ছোট-খাট অপরাধ বৃদ্ধি পাওয়ায় সামগ্রিক অপরাধের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে।
যেমন বাসা কিংবা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান চুরি বা ডাকাতির সংখ্যা বেড়েছে ৩০ ভাগ, ছিটকা  চুর কর্তৃক গাড়ির জানালা ভেঙ্গে চুরির সংখ্যা বেড়েছে ১৭ শতাংশ। তবে আশার কথা হলো, কম্পিউটার সংশ্লিষ্ট অপরাধ প্রায় ৩১ শতাংশ  হ্রাস পেয়েছে। বলা হচ্ছে কম্পিউটারে ভাইরাস প্রবেশ কমে যাওয়ায় তা রোধ করা সম্ভব হয়েছে।
এরপরও দেশটির জাতীয় পরিসংখ্যান বিভাগ (ওএনএস) থেকে প্রকাশিত এক তথ্যে বলা হচ্ছে দেশটিতে অপরাধ প্রবনতা কিছুটা হলেও স্থিতিশীল রয়েছে। ওএনএস’র এর মূখপাত্র ক্যরোলাই ইওল এক বিবৃতিতে বলেছেন এরপরও তারা মনে করেন অধিকাংশ ক্ষেত্রেই অপরাধ একটা সীমাবদ্ধতার মধ্যেই আছে অর্থাৎ স্থিতিশীল রয়েছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন