বুধবার, ৫ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২০ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
মাথিউরা ইউনিয়ন উন্নয়ন সংস্থা ইউকে এর সম্মেলন ও  কার্যকরি কমিটি গঠিত  » «   প্রবাসী ৭ ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে বিসিএ ও ইউকে বিবিসিআই’র সংবাদ সম্মেলন  » «   বিসিএ’র  ১৬তম  এওয়ার্ড অনুষ্ঠান ৩০ অক্টোবর  লন্ডনের পার্ক প্লাজায়  » «   সাত ব্যবসায়ীর ষড়যন্ত্রমূলক গ্রেফতারে বিচার এবং তাঁদের নিরাপদে যুক্তরাজ্যে ফিরিয়ে আনার দাবীতে সংবাদ সম্মেলন  » «   বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতাল কর্তৃক আঙ্গুরায় বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান  » «   স্পেনে বিয়ানীবাজার পৌরসভা ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট বার্সেলোনা কমিটি গঠিত  » «   স্পেনে বাংলাদেশ কালচারাল ইয়ং ফেডারেশন কমিটি গঠিত  » «   গোলাপগঞ্জে সাংবাদিক জাহেদের উপর সন্ত্রাসী হামলা  » «   মাসা আমিনির মৃত্যুতে ইরানের ‘নীতি পুলিশ’ এখন আলোচনায়  » «   অনশনে বসতে আ’লীগ কার্যালয়ে ইডেন ছাত্রলীগের ১২ নেত্রী  » «   ইতালিতে জাঁকজমকপূর্ণভাবে বিএনপি’র ৪৪তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   ইতালির জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এমপি ও সিনেট পদপ্রার্থীদের রোমের বাংলাদেশী কমিউনিটির সাথে মতবিনিময়  » «   রানির প্রস্থান, রাজার আগমন এবং আধুনিক ব্রিটেন  » «   আন্তর্জাতিক হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় তৃতীয় বাংলাদেশি তাকরিম  » «   ফুটবলার আঁখির বাবার সঙ্গে অসদাচরণ, দুই পুলিশ ক্লোজড  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন


‘সবাই বাবার সঙ্গে স্কুলে যায়, আমিই শুধু পারি না’



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

‘সবাই সবার বাবার সঙ্গে স্কুলে যায়। আমিই শুধু যেতে পারি না। আমি কী আমার বাবার সঙ্গে স্কুলে যেতে পারবো? আমার কি দোষ যে আমি আমার বাবার সঙ্গে স্কুলে যেতে পারবো না! প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ আমার বাবাকে ফিরিয়ে দিন। বাবাকে ছাড়া আমার ভালো লাগে না।’

আন্তর্জাতিক গুম প্রতিরোধ দিবস উপলক্ষে মঙ্গলবার (৩০ আগস্ট) রাজধানীর শাহবাগ জাদুঘরের সামনে গুম হওয়া স্বজনদের সংগঠন ‘মায়ের ডাক’ আয়োজিত এক মানববন্ধনে এভাবে কথাগুলো বলছিল ২০১৩ সালে ‘গুম’ হওয়া পারভেজ হোসেনের ১১ বছরের আদিবা ইসলাম।

শুধু আদিবা নয়, মানববন্ধনে ‘গুমের শিকার’ শতাধিক ব্যক্তির স্বজন অংশ নেন। তাদের কারও বুকে সন্তানের, কারও বুকে বাবার, কারও বুকে স্বামীর, আবার কারও বুকে ভাইয়ের ছবি ঝুলছিল। স্বজনদের আহাজারিতে ভারী হয়ে ওঠে সেখানকার পরিবেশ। উপস্থিত সবাই প্রধামন্ত্রীর কাছে তাদের স্বজনদের ফিরিয়ে দেওয়ার দাবি জানান। এসময় মানববন্ধনে সংহতি প্রকাশ করেন বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারাও।

জানা যায়, আদিবার বাবা পারভেজ হোসেন বংশাল থানা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। আদিবার মায়ের দাবি, তার স্বামীকে ২০১৩ সালে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পরিচয়ে তুলে নেওয়ার পর গুম করা হয়।

বাবার কথা বলতে গিয়ে কেঁদে ফেলেন আদিবা। কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলে, আমার বাবাকে ছাড়া আমার ভালো লাগে না। আমার বাবাকে ফিরিয়ে দিন। আমি বাবার সঙ্গে স্কুলে যেতে চাই। বাবাকে ছাড়া আমার একটুও ভালো লাগে না।

মানববন্ধনে ১০ বছরের শিশু সাদিকা সরকার সাফার মায়ের দাবি, ২০১৩ সালে তার স্বামী মো. সোহেলকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তুলে নিয়ে যাওয়ার পর এখনো তার সন্ধান পাওয়া যায়নি। মো. সোহেল বংশাল থানা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি ছিলেন।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে সাদিকা বলেন, আমার বাবাকে ফিরিয়ে দিন। বন্ধুদের সবার বাবা আছে। বাবাকে নিয়ে তারা স্কুলে যায়। শুধু আমিই বাবার কাছে যেতে পারি না। তখন আমার খুব কষ্ট লাগে।

কিশোরী তামান্না ইসলাম বলে, আমার বাবা ইসমাইল হোসেন বাতেন ২০১৯ সালে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) হাতে আটক হন। আমাদের স’মিল থেকে বাসার উদ্দেশ্যে আসার পথে বাবাকে গুম করা হয়। সেদিনই আমরা সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করতে গিয়েছিলাম। কিন্তু র‌্যাবের বিরুদ্ধে জিডি নেয়নি পুলিশ। পরে আমরা একটি লিখিত অভিযোগ করেছিলাম।

তামান্না বলেন, এরপর আমরা র‌্যাব হেডকোয়ার্টার, পুলিশ, ডিবি, ডিএমপি কমিশনারের কার্যালয় এবং মানবাধিকার কমিশন এমন কোনো জায়গা নেই যে যেখানে যায়নি। কিন্তু আজ পর্যন্ত বাবার কোনো সন্ধান পাইনি। দিনের পর দিন আমি আমার বাবার ছবি হাতে দাঁড়িয়ে এসেছি। এসব কথা বলতে গিয়ে কান্নায় বাকরুদ্ধ হয়ে পড়ে তামান্না।

আক্ষেপ করে তামান্না বলে, আমরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে বারবার আবেদন করেছি, বাবাকে আমাদের কাছে ফিরিয়ে দিন। কিন্তু আজ পর্যন্ত আমার বাবার কোনো সন্ধান পাইনি। আমি বাবার সন্ধান চাই।

বিএনপি নেতা চৌধুরী আলমের ছোট ভাই খুরশীদ আলমও মানববন্ধনে অংশ নেন। তিনি বলেন, ২০১০ সালের ২৫ জুন ইন্দিরা রোড থেকে আমার বড় ভাইকে সাদা পোশাকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। সেই থেকে তার খোঁজ নেই। সরকারকে বলছি, আপনি যদি আমার ভাইকে মেরে ফেলেন, তাহলে এক মুষ্টি মাটি দেওয়ার জন্য মরদেহটা ফেরত দেন। আর বিচার চাইবো না। আর কোনো দাবিও নেই। শুধু ভাইয়ের মরদেহটা চাই।

মানববন্ধনে আরেক ভুক্তভোগীর পরিবারের সদস্য বলেন, বাংলাদেশ স্বাধীন দেশ। প্রতিটি নাগরিকের সুরক্ষা পাওয়ার অধিকার আছে। আমরা চাই, একটি নিরপেক্ষ তদন্ত কমিটি গঠন করা হোক। যেখানে গুম হওয়া ব্যক্তিদের ব্যাপারে পুঙ্খানুপুঙ্খ তথ্য থাকবে। তাদের কোথায় নেওয়া হয়েছে, কে নিয়ে গেছে এবং বর্তমানে তারা কী অবস্থায় আছে সেটি আমরা জানতে চাই। আমরা সরকারের কাছে সুস্পষ্ট বক্তব্য চাই। আমরা আমাদের স্বজনদের ফিরত চাই।

বিএনপির আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক কমিটির সদস্য তাবিথ আউয়াল বলেন, আমাদের একটাই প্রশ্ন, আমাদের পরিবারের সদস্যরা কই? আমার পরিবারের সদস্যরা কোথায় আছে এটির উত্তর অবশ্যই বর্তমান সরকারকে দিতে হবে। দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক মহল থেকে বারবার গুম-খুনের সুষ্ঠু তদন্তের দাবি করা হচ্ছে। তদন্তসাপেক্ষে যেটা সত্য সেটা আমরা সবাই মেনে নেবো। কিন্তু যখন বারবার অস্বীকার করা হচ্ছে বুঝা যায় এর সঙ্গে সরকার জড়িত। সেইদিন খুব বেশি দূরে নয় যেদিন আমরা ন্যায় বিচার পাবো।

এসময় সংহতি জানিয়ে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণ অধিকার পরিষদের সদস্য সচিব নুরুল হক নুরসহ অনেকে বক্তব্য দেন।

জাগো নিউজের সৌজন্যে


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন