বুধবার, ৫ অগাস্ট ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ শ্রাবণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
লেবাননে দেড় লাখ বাংলাদেশি আতঙ্কে : রাষ্ট্রদূত  » «   জলঢুপ গ্রামের প্রবীন মুরব্বি হাজি আব্দুল মতিনের ইন্তেকাল  » «   আবুধাবিতে বিপুল পরিমান মাদকদ্রব্য জব্দ  » «   লেবাননে  ভয়াবহ বিস্ফোরণ নিহত ৫০ আহত ২২৭  » «   হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে লেবাননে বাংলাদেশীর মৃত্যু  » «   বিয়ানীবাজার পৌরসভা ওয়েলফেয়ার ট্রাষ্ট ইউকের যাত্রা শুরু  » «   দেশটাতো কাউয়াদের নয়!  » «   সিলেটের গোলাপগঞ্জে ৬২ লক্ষ টাকা মূল্যের চোরাই মোবাইল ফোন উদ্ধার  » «   আওয়ামী লীগের সদ্য প্রয়াত নেতৃবৃন্দের স্মরণে যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের শোক সভা  » «   রিয়াদে নারীদের ম্যাগাজিন ‘প্রস্ফুটিত’ এর মোড়ক উন্মোচন  » «   লন্ডন, দুবাই ও আবুধাবি ছাড়া বিমানের আন্তর্জাতিক ফ্লাইট ১৫ আগস্ট পর্যন্ত বাতিল  » «   শফিউল বারির মৃত্যুতে ইতালিতে স্বেচ্ছা সেবক দলের দোয়া ও মিলাদ মাহফিল  » «   একটি মহতি উদ্যোগের সাক্ষী হতে পেরে গর্বিত বোধ করছি- রাহাত আহমেদ রাফি  » «   সিলেট-লন্ডন ফ্লাইট পুনরায় চালু হচ্ছে : জালালাবাদ এসোসিয়েশন ইউকে’র অভিনন্দন  » «   সরকারি বিধি নিষেধ মেনে যুক্তরাজ্যে পবিত্র ঈদুল আযহা পালিত  » «  

দুবাইয়ে আনসারি এক্সচেঞ্জের ড্রয়ে ১০ লাখ দেরহাম পেলেন এক বাংলাদেশি



সংযুক্ত আরব আমিরাতে আল আনসারি এক্সচেঞ্জের গ্রীষ্মকালিন গ্রাহক ড্রয়ে ১০ লক্ষ দেরহাম জিতেছেন ৩০ বছর বয়েসি বাংলাদেশি আবদুল্লাহ আল আরাফাত। তার গ্রামের বাড়ি ফেনী জেলার সোনাগাজীতে। বাবার নাম মোম্মদ মহসিন। মাত্র ২৬১ দেরহাম দেশে পাঠিয়েছিলেন তিনি। তার ফলে ঘুরে গেলো ভাগ্যের চাকা। বৈধপথে টাকা পাঠানোর এ আরেক ফল বলেও মনে করেন তিনি।

মঙ্গলবার দুবাইয়ে আল আনসারি এক্সচেঞ্জের ড্রতে তিনি এ পুরস্কার পেয়ে নিজেকে ভাগ্যবান বলেছেন। আট জন চূড়ান্ত প্রার্থীকে (দুজন আমিরাতী, দুজন ফিলিপিনো, একজন ভারতীয়, একজন পাকিস্তানি, একজন ইন্দোনেশিয়ান এবং আরেকজন বাংলাদেশী) পিছনে ফেলে এই পুরস্কার জিতে নেন। অন্য আটজন চূড়ান্ত প্রতিযোগীদেরও খালি হাতে ফিরতে হয়নি। তাদেরকে ও ১০ হাজার দিরহাম প্রতিজন করে দেয়া হয়েছে।

আব্দুল্লাহ প্রথমবারের মতো বাবা হতে যাচ্ছেন। তার এ প্রাপ্তিতে সন্তানের ভাগ্য জড়ি আছেন বলেও তিনি আবেগাপ্লুত কণ্ঠে জানান।
নয় বছর ধরে দুবাইয়ে বসবাসরত আবদুল্লাহ বলেন-তিনি তার স্ত্রীর কাছে পুরস্কারের কিছু ভাগ বাড়িতে পাঠিয়ে দেবেন। আগামি মাসে তাদের প্রথম সন্তানের জন্ম দেওয়ার প্রত্যাশা করছেন। এবং বাকী অংশটি তিনি নিজের টেইলারিং ও মোবাইল আনুষাঙ্গিক ব্যবসার সম্প্রসারণে বিনিয়োগ করবেন।