মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
মাসা আমিনির মৃত্যুতে ইরানের ‘নীতি পুলিশ’ এখন আলোচনায়  » «   অনশনে বসতে আ’লীগ কার্যালয়ে ইডেন ছাত্রলীগের ১২ নেত্রী  » «   ইতালিতে জাঁকজমকপূর্ণভাবে বিএনপি’র ৪৪তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   ইতালির জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এমপি ও সিনেট পদপ্রার্থীদের রোমের বাংলাদেশী কমিউনিটির সাথে মতবিনিময়  » «   রানির প্রস্থান, রাজার আগমন এবং আধুনিক ব্রিটেন  » «   আন্তর্জাতিক হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় তৃতীয় বাংলাদেশি তাকরিম  » «   ফুটবলার আঁখির বাবার সঙ্গে অসদাচরণ, দুই পুলিশ ক্লোজড  » «   গোলাম কিবরিয়া  : সংগ্রামেই যিনি সাফল্যের উচ্চশিখরে  » «   ফুডেক্স সৌদি মেলায় বাংলাদেশি খাদ্য পন্য নিয়ে চার বৃহৎ কোম্পানি  » «   দশ বছর পর রোমে ইতালী আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত  » «   বিশ্বনেতারা রানির শেষকৃত্য অনুষ্ঠানে যাবেন বাসে চড়ে  » «   আল হাবীব ফাউন্ডেশনের সহাহতায় সফল শিক্ষার্থীদের জন্য ম্যানচেষ্টার মেট্রপলিটন বিশ্ববিদ্যালয়ের আয়োজন  » «   ইতালিতে সংসদ সদস্য আ ক ম বাহার উদ্দিন বাহারকে সংবর্ধনা দিয়েছে কুমিল্লাবাসী  » «   রানির জীবনাবসানে যুক্তরাজ্যে যা হতে পারে  » «   ব্রিটেনের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের জীবনাবসান  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন


আবারো রেমিটেন্স প্রেরণে আমিরাত প্রবাসীরা দ্বিতীয়



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

আবারো রেমিটেন্স প্রেরণে সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রবাসীরা দ্বিতীয় স্থানে আছেন। জরিপে দেখা গেছে রেমিটেন্স প্রেরণের সিংহভাগ আসে ৬টি দেশ থেকে। দেশগুলো হচ্ছে সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, যুক্তরাষ্ট্র, কুয়েত, মালয়েশিয়া এবং যুক্তরাজ্য। গত অর্থবছরে (২০১৭-১৮) এসব দেশ থেকে ১ হাজার ৪৩ কোটি ডলারের রেমিটেন্স আসে। চলতি অর্থবছরের নয় মাসেও দেশগুলো থেকে প্রবাসী আয়ের একই চিত্র দেখা গেছে।

  • বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদনে এসব তথ্য মিলেছে। গত অর্থবছরে আসা ১ হাজার ৪৯৮ কোটি ডলার রেমিটেন্সের মধ্যে শীর্ষ ৩০ দেশ থেকে এসেছে ১ হাজার ৩৬১ কোটি ডলার। অন্যান্য দেশ থেকে আসে ১৩৭ কোটি ডলার। একইভাবে দেশভিত্তিকভাবে চলতি অর্থবছরের নয় মাসের চিত্রও প্রায় অভিন্ন। এ সময় ৩০ দেশ থেকে রেমিটেন্স এসেছে ১ হাজার ১৭৪ কোটি ডলার। আর অন্যান্য দেশ থেকে ১২৭ কোটি ডলার।

সূত্র জানায়, প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্স বাড়ছেই। গত অর্থবছরের মতো চলতি অর্থবছরেও ভালো প্রবৃদ্ধি ধরে রেখেছে বাংলাদেশ। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্যে দেখা যায়, ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রথম নয় মাসে অর্থাৎ জুলাই-মার্চ সময়ে ১ হাজার ১৮৬ কোটি ৮২ লাখ ডলারের রেমিটেন্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। ২০১৭-১৮ অর্থবছরের একই সময়ে এসেছে ১ হাজার ৭৬ কোটি ১০ লাখ ডলার। সে হিসাবে এই নয় মাসে গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ১০ দশমিক ৩ শতাংশ বেশি রেমিটেন্স দেশে এসেছে। সর্বশেষ মার্চ মাসে ১৪৫ কোটি ৮০ লাখ ডলারের রেমিটেন্স এসেছে। গত বছরের মার্চে এসেছিল ১৩১ কোটি ৭৭ লাখ ডলার। সে হিসাবে মার্চে গত বছরের একই সময়ের চেয়ে রেমিটেন্স বেড়েছে ১২ দশমিক ১৭ শতাংশ।
টাকার বিপরীতে ডলারের উচ্চমূল্য এবং হুন্ডি ঠেকাতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নানা পদক্ষেপের কারণে গত অর্থবছরের মতো চলতি অর্থবছরেও রেমিটেন্সে ইতিবাচক ধারা অব্যাহত রয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম বলেন, রেমিটেন্স প্রবাহের গতি খুবই ভালো। প্রতি মাসেই বাড়ছে। প্রবাসীদের বৈধ পথে রেমিটেন্স পাঠাতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পক্ষ থেকে বিভিন্ন সময়ে নানা পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। তারই ফল পাওয়া যাচ্ছে।

২০১৯ সালের প্রথম মাস জানুয়ারিতে ১৫৯ কোটি ডলার দেশে পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা, যা ছিল একক মাসের হিসাবে রেকর্ড। এর আগে এক মাসে সর্বোচ্চ রেমিটেন্স এসেছিল ১৫০ কোটি ৫০ লাখ ডলার; গত বছরের মে’তে।

  • রেমিটেন্স প্রবাহ বাড়াতে মাশুল না নেয়াসহ নানা ঘোষণাও দিয়েছিলেন সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। কিন্তু এখন পর্যন্ত মাশুল কমানোর সেই ঘোষণার বাস্তবায়ন হয়নি। হুন্ডি ঠেকাতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নানা পদক্ষেপের কারণে গত অর্থবছর রেমিটেন্স বাড়ে। খরা কাটিয়ে বাংলাদেশ ২০১৭-১৮ অর্থবছর শেষ করেছিল ১৭ দশমিক ৩ শতাংশ প্রবৃদ্ধি নিয়ে।

বর্তমানে এক কোটির বেশি বাংলাদেশি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অবস্থান করছেন। তাদের পাঠানো অর্থ বাংলাদেশে অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে আসছে। বাংলাদেশের জিডিপিতে রেমিটেন্সের অবদান ১২ শতাংশের মতো।


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন