রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
বঙ্গবন্ধু স্কলারশিপ আন্তর্জাতিক অঙ্গণে বাংলাদেশের উন্নয়নের প্রতিচ্ছবি  » «   লীলা নাগের স্মৃতি রক্ষায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় উদ্যোগ নেবে  » «   ফুসফুস-ক্যান্সার পরীক্ষার জন্য মাইল এন্ড লেজার সেন্টারে স্থাপন করা হচ্ছে বিশেষ ‘স্ক্রিনিং মেশিন’  » «   অলি-মিঠু-টিপু প্যানেলের পরিচিতি ও ইশতেহার ঘোষণা  » «   ২০ নভেম্বর লন্ডনের রয়েল রিজেন্সিতে ৫ম বেঙ্গলী ওয়েডিং ফেয়ার  » «   একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির যুক্তরাজ্য শাখা গঠিত  » «   টি আলী স্যার ফাউন্ডেশন সম্মাননা পেলেন সিলেটের ২৪গুণী শিক্ষক  » «   নওয়াগ্রাম প্রগতি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ফুল, ফল ও ঔষধি বৃক্ষরোপণ  » «   আলোকিত মানুষ শিক্ষক মো. সমছুল ইসলাম এর ৬ষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী  » «   সিলেটের বিয়ানীবাজারে একটি পরিত্যক্ত কূপে তাজা গ্যাসের মজুদ আবিষ্কৃত  » «   বাংলাদেশী কারী  ব্রিটেনের প্রবৃত্তি ও খাবার সংস্কৃতিতে অনন্য  অবদান রাখছে  » «   পুরুষতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থায় নারীবাদের প্রতিবন্ধকতা  » «   রিষি সুনাক এশিয়ান বংশদ্ভোত, কনজারভেটিভ এবং ধনীদের বন্ধু  » «   গোলাপগঞ্জ প্রেসক্লাব নিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টিকারীদের ব্যাপারে সতর্ক থাকার আহবান  » «   স্পেনে যুবলীগের উদ্যোগে আলোচনা ও কর্মীসভা অনুষ্ঠিত  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন


বিশ্বকাপ এলে ব্রিটেনে পারিবারিক সহিংসতা বেড়ে যায়



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

বিশ্বকাপ সারা বিশ্বকেই যেন একাকার করে তোলে। প্রত্যেকটা বিশ্বকাপে সারা বিশ্বের মানুষের চোখ থাকে একটা দেশের দিকে। বিশ্বসেরা খেলোয়াড়দের নৈপুন্য দেখতে সকাল-বিকাল সন্ধ্যা কিংবা মধ্যরাতে পৃথিবীর অগণন মানুষ চোখ রাখে টিভি পর্দায়। সারা বিশ্ব যেন একই গ্রন্থিতে মিলিত হয়। এবারও রাশিয়া থেকে আমেরিকা, ইউরোপ কিংবা মধ্যপ্রাচ্য থেকে এশিয়া সব জায়গার মানুষের চোখ একই দিকে। রাশিয়ার দিকে।

বিশ্বকাপ ঘিরে যেমন মানুষ একাকার হয়, ঠিক তেমনি এক উন্মাদনায় যেন বোঁদ হয়ে যায় সারা বিশ্বের অগনিত মানুষ। বাংলাদেশেও এ উন্মাদনা স্পর্শ করে, তরুনরা ব্রাজিল-আর্জেন্টিনায় বিভক্ত হয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অশালীন আচরণ করে। ঝগড়ায় মেতে উঠে, মিছিল করে, এমনকি রক্তপাতও ঘঠায়।

ব্রিটেনে বিশ্বকাপ নিয়ে উচ্ছাস আছে, আছে ‘রাশিয়া ২০১৮’ নিয়ে মাতামাতি। বাইরে কোন মিছিল নেই, খুব কম জায়গায়ই আছে গাড়ির ভেঁপু বাজানো, এমনকি বিজয়ী হবার পরও। পাব কিংবা বাসায় দলবদ্ধ হয়ে টেলিভিশনে চোখ থাকে দর্শকদের।

কিন্তু বিশ্বকাপ এলে ব্রিটেনে বেড়ে যায় পারিবারিক সংঘাত।  বৃদ্ধি পায় পারিবারিক সহিংসতা। বিশেষত ইংল্যান্ডের খেলার দিনে একের পর এক বিয়ার-লাগারের পাইন্ট নিঃশেষ করে টিভি পর্দায় চোখ রাখা ইংল্যান্ড সমর্থকদের অধিকাংশই হয়ে যায় মাতাল। ক্রমশই এরা চলে যায় অন্য এক জগতে। মাতাল হয়ে এরা যখন ঘরে ফিরে,তখন ছেলে হোক কিংবা মেয়ে হোক জয়ের আনন্দে হোক কিংবা পরাজয়ের গ্লানিতে হোক তারা মারমুখী হয়ে যায়। এমনকি হাতও তোলে সঙ্গী কিংবা সঙ্গীনির গায়ে।

সেজন্যেই এবারের বিশ্বকাপ ঘিরে ব্রিটেনের পুলিশ নিয়েছে বাড়তি তৎপরতা। বিশেষত ইংল্যান্ডের খেলার দিনে পারিবারিক সহিংসতা ঠেকাতে তাদের প্রস্তুতি আছে সারা দেশেই।  ব্রিটিশরা এমনিতেই ফুটবল পাগল। বিশ্বকাপে তারা সবাই-ই একধরনের উন্মাদনায় থাকে। সম্প্রতি এক রিপোর্ট দেখা গেছে, ইংল্যান্ডের খেলার দিন তাদের মাতলামী বেড়ে যায়। এবং ঐদিন পারিবারিক সহিংসতা বৃদ্ধি পায় সারা দেশব্যাপী। দি ন্যাশনাল সেন্টার ফর ডমেসটিক ভায়োলেন্স, জাতীয় পুলিশ চীফ’স কাউন্সিল ও বিবিসি পারিবারিক এ সহিংসতার চিত্র জনসমক্ষে আনতে কাজ করছে এবং বিভিন্ন তথ্যাদি নিয়ে এসেছ ইতিমেধ্যে। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন এবং তথ্যবহুল গবেষণা বেরিয়ে এসেছে ল্যাংকাষ্টার ইউনিভার্সিটি’র বিশ্বকাপ ফুটবল গবেষণা থেকে।  শুধু পারিবারিক সম্পর্কের উপর ভিন্ন ভিন্ন গবেষণার মধ্য দিয়ে এ প্রতিষ্ঠানটি বের করেছে এসব তথ্য। ল্যাংকাষ্টার ইউনিভার্সিটি ২০০২, ২০০৬, ২০১০ এবং ২০১৪ সালের বিশ্বকাপের উপর তাদের চলমান গবেষণায় দেখিয়েছে বিশ্বকাপ নিয়ে এই উদ্বেগজনক ফলাফল। দেখা গেছে স্বাভাবিক যে পারিবারিক সহিংসতা আছে ব্রিটেনে, তার চেয়ে অনেক বেশী বৃদ্ধি পায় এসময়ে। ইংল্যান্ড যেদিন পরাজিত হয়, সেদিন দেখা গেছে ৩৮ শতাংশ সহিংসতা বাড়ে এবং এমনকি বিজয়ী হলে কিংবা ড্র করলে আনন্দের উন্মাদনায় তা বৃদ্ধি পায় ২৬ শতাংশ। ২০১৪ সালের এক গবেষণায় দেখা গেছে ঐ বছর ইংল্যান্ডে খেলার দিন ৭৯.৩ শতাংশ পারিবারিক সহিংসতা বেড়েছিল বলে বিভিন্ন সূত্র থেকে রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছিল।

বিশ্বকাপ চলাকালীন ব্রিটেনে ফুটবল নিয়ে যাতে সহিংসতা বৃদ্ধি না পায় সেজন্যে ২০১৪ সাল থেকে ক্যম্পেইন গ্রুপ কাজ করছে। বিশেষত ইটালীর সাথে ইংল্যান্ড ২-১ গোলে পরাজিত হবার পর সহিংসতা বৃদ্ধি পেলে দি ‘ন্যাশনাল ফর ডমেস্টিক ভায়োলেন্স’ ক্যাম্পেইন শুরু করে পারিবার সহিংসতা প্রতিরোধ করতে। এছাড়া ‘গিভ ডমেস্টিক এবিউজ দ্যা রেড কার্ড’ ক্যাম্পেইনের সাথে কাজ করছে ‘উইম্যানস এইড’। এই সংস্থাটি প্রচারনা চালাচ্ছে ‘ফুটবল ইউনাইটেড এগেইনষ্ট ডমেস্টিক ভায়োলেন্স’ পুলিশ, জাতীয় ফুটবলিং কমিটি, স্পোর্টস মিডিয়া, খেলোয়াড় এবং বিভিন্ন ক্লাবেব সমর্থকদের নিয়ে। সে কারণে ২০১৮তে পুলিশ পারিবারিক সহিংসতাকে অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে দেখছে এবং পারিবারিক সহিংসতা এবারে সহনীয় পর্যায়ে আছে বলেই মনে করা হচ্ছে।

 

 


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

"এই বিভাগে প্রকাশিত মতামত ও লেখার দায় লেখকের একান্তই নিজস্ব " -সম্পাদক

,সাংবাদিক, কলামিস্ট
ফারুক যোশী; কলামিস্ট, প্রধান সম্পাদক; ৫২বাংলাটিভিডটকম
লেখকের অন্যান্য পোষ্ট