শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ ভাদ্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
জীবন যেখানে দ্রোহের প্রতিশব্দ মৃত্যু সেখানেই শেষ কথা নয়..  » «   শিল্প উদ্যোক্তা ও ক্রীড়া সংগঠক মো: জিল্লুর রাহমানকে  লন্ডনে সংবর্ধনা  » «   ঈদের সামাজিক গুরুত্ব ও বিলাতে ঈদের ছুটি   » «   ব্রিটেনে ঈদের ছুটি  প্রসঙ্গে  » «   হজের খুতবা বঙ্গানুবাদ করবেন মাওলানা শোয়াইব রশীদ ও মাওলানা খলিলুর রহমান  » «   হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু, তাবুর শহর মিনায় হাজিরা  » «   ঈদের ছুটি : আমাদের কমিউনিটিতে সবার আগে শুরু হোক  » «   ঈদের দিনে বিলেত প্রবাসীদের মনোবেদনা  » «   বিলেতে ঈদ উৎসব এবং বাঙ্গালী কমিউনিটির অন্তর্জ্বালা  » «   জলঢুপে বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমান কেম্প  » «   তিলপাড়ায় বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «   করিমগঞ্জ দিবস  » «   ঈদের ছুটি চাই : একটি সমন্বিত উদ্যোগ অগণিত পরিবারে হাসি ফুটাতে পারে  » «   ট্রাক ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাণ গেল তিন বন্ধুর  » «   বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের বিনামূল্যে ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন


সৌখিন চাষী মুকিতুরের বাগানের সবজির মালিক স্বজন –প্রতিবেশীরা !



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

একজন পরিশ্রমী মানুষ মুকিতুর রহমান। ইংল্যান্ডের পশ্চিম মিডল্যান্ডসের ঐতিহাসিক কাউন্ট্রি  উস্টারশায়ার থাকেন। প্রকৃতিবান্ধব মুকিতুর রহমানের প্রিয় শখ বাগান করা।  সেই শখ কে সুখ ও আনন্দময়  করে প্রতিবছর ব্রিটেনের সামার সময়টায়  গড়ে তুলেন  শাকসবজি  ও ফলমূলের বাগান। এবারও এর ব্যতিক্রম হয়নি।

স্থানীয় কাউন্সিল থেকে ভূমি বরাদ্দ নিয়ে কোভিড -১৯ থেকে  বের হওয়া সামারে এবারও গড়ে তুলেছেন একটি বড় বাগান।

মুকিতুর রহমানের বাগানে বলা যায় বাঙালি ঐতিহ্যের প্রধান শাকসবজি ও ফলমূল অর্থাৎ  বাংলাদেশী লাউ, শশা,ডাটা,ফরাস  বা ঝাড়শিম , টমেটো,কজেট,লালশাক,পালংশাক, পিয়াজ, আলু, রানার বিনস,ধনিয়া পাতা  ইত্যাদি। এবারের ব্রিটিশ সামারে রোদ-বৃষ্টির  লোকচুরি থাকলেও  ফলন পেয়েছেন আশানুরুপ বলে জানিয়েছেন মুকিতুর রহমান ।

সৌখিন কৃষকের বাগান থেকে এবার তিনি এখন পর্যন্ত  ৩০টি লাউ পেয়েছেন।২০ কেজির মতো পিয়াজ ঘরে তুলতে পেরেছেন। আর প্রায় প্রতিদিন বাগান থেকে তুলেছেন অগুনতি টমেটো , ঝাড়শিম সহ নানাজাতের শবজি।বাগানের  আপেল, চেরী ও স্টভেরী ফলনও হয়েছে আশাতীত।

সবজি চাষে কোন রাসায়নিক সার প্রয়োগ করেননি । তবে তাকে প্রতিদিন বাগানের পিছনে দুই থেকে তিন ঘন্টা পরিশ্রম করতে হয়।

ব্রিটেনের যান্ত্রিক জীবনে প্রতিবছর বাগানে নিজের  বড় একটি সময় ব্যয় করা  কী  শুধুমাত্র শখ করে? ৫২বাংলার এমন প্রশ্নের উত্তরে মুকিতুর রহমান  হাসি ছড়িয়ে জানালেন, অল্প সময়ের সামরে, বাগান করতে সুখ ও আনন্দের শেষ নেই। চারা রোপন, বেড়ে ওঠা, ফুল ও ফলন ধরার দৃশ্যটি জন্মদেয় এক অন্যরকম অনুভুতির।

তারপর বাগান থেকে ঘরে তোলা। এবং সর্বোপরি নিজের বাগানের শাকসবজি ও ফল যখন প্রতিবেশী আত্নিয় স্বজনদের দিতে পারি- এইসব আনন্দের কথা বলে বুঝানো যাবে না।

সৌখিন চাষী মুকিতুরের বাগানের সবজির মালিক স্বজন –প্রতিবেশীরা !

 


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন