শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
লীলা নাগের স্মৃতি রক্ষায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় উদ্যোগ নেবে  » «   ফুসফুস-ক্যান্সার পরীক্ষার জন্য মাইল এন্ড লেজার সেন্টারে স্থাপন করা হচ্ছে বিশেষ ‘স্ক্রিনিং মেশিন’  » «   অলি-মিঠু-টিপু প্যানেলের পরিচিতি ও ইশতেহার ঘোষণা  » «   ২০ নভেম্বর লন্ডনের রয়েল রিজেন্সিতে ৫ম বেঙ্গলী ওয়েডিং ফেয়ার  » «   একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির যুক্তরাজ্য শাখা গঠিত  » «   টি আলী স্যার ফাউন্ডেশন সম্মাননা পেলেন সিলেটের ২৪গুণী শিক্ষক  » «   নওয়াগ্রাম প্রগতি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ফুল, ফল ও ঔষধি বৃক্ষরোপণ  » «   আলোকিত মানুষ শিক্ষক মো. সমছুল ইসলাম এর ৬ষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী  » «   সিলেটের বিয়ানীবাজারে একটি পরিত্যক্ত কূপে তাজা গ্যাসের মজুদ আবিষ্কৃত  » «   বাংলাদেশী কারী  ব্রিটেনের প্রবৃত্তি ও খাবার সংস্কৃতিতে অনন্য  অবদান রাখছে  » «   পুরুষতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থায় নারীবাদের প্রতিবন্ধকতা  » «   রিষি সুনাক এশিয়ান বংশদ্ভোত, কনজারভেটিভ এবং ধনীদের বন্ধু  » «   গোলাপগঞ্জ প্রেসক্লাব নিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টিকারীদের ব্যাপারে সতর্ক থাকার আহবান  » «   স্পেনে যুবলীগের উদ্যোগে আলোচনা ও কর্মীসভা অনুষ্ঠিত  » «   ইতালিতে সিলেট বিভাগ জাতীয়তাবাদী ফোরামের আংশিক কমিটি ঘোষণা  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন


বাদল দিনের প্রেম কদমফুল



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

বাঙালি মন ও মনন জুড়ে আছে প্রেম, প্রকৃতি ও উৎসব। সেকারণে ষড়ঋতুর বাংলাদেশে ফুল- পাখি -গাণ বড় একটি জায়গা নিয়েই আছে।

প্রকৃতিতে এখন চলছে বর্ষা কাল।আষাঢ়-শ্রাবণ নিয়ে এই বর্ষা ঋতু জুড়ে  প্রকৃতি এখন ঝড়-বৃষ্টিময়। চারদিকে ফল-মুলের মৌ- মৌ গন্ধ । সাথে আছে  পাখির মুগ্ধকর ডাক।

বর্ষার আগমন যখন চারপাশে, তখন তার সঙ্গী হতে গাছে গাছে দেখা মিলে আবহমান বাংলার চিরচেনা  আরেক অতিথির। সে হলো কদম ফুল।

গ্রীষ্মের প্রখরতা কমাতে যখন আম, জামসহ নানা ফলের ঘ্রাণে মুখর চারপাশ, তার পরই আগমন ঘটে বর্ষার সঙ্গী কদম ফুলের।

রবীন্দ্রনাথের গানে, আষাঢ়ের শুরুর দিন থেকেই গুনগুন করে ওঠে বাঙালি মন, ‘বাদল দিনের প্রথম কদম ফুল করেছ দান। আমি দিতে এসেছি শ্রাবণের গান’।কিংবা জাতীয় কবি কাজী নজরুলের ‘দোলে শিহরে কদম, বিদরে কেয়া, নামিলো দেয়া।’

সাহিত্য ও প্রকৃতি প্রেমীরা বলে থাকেন, বৃষ্টি হচ্ছে আর হাতে কদম নিয়ে ভাবেন না কোন সৃজনশীল বাঙালি তা ভাবা যায় না।

সরু সবুজ পাতার ডালে ডালে গোলাকার মাংসলো পুষ্পাধার আর সরু হলুদ পাপড়ির মুখে সাদা অংশ কদমকে সাজিয়ে রাখে  অপরুপভাবে। কদম ফুলের আছে আরও অনেক নাম। ললনাপ্রিয়, সুরভী, কর্ণপূরক, মেঘাগমপ্রিয়, বৃত্তপুষ্প ছাড়াও নীপ মানে পরিচিত এ কদম ফুল।

কদমের একেকটি গাছ ৪০ থেকে ৫০ ফুট পর্যন্ত লম্বা হয়ে থাকে। গাছের পাতা শীতকালে ঝরে যায় । আর কচি সবুজ পাতা নিয়ে আগমন ঘটে বসন্তের।

কদম গাছের ফুল ছাড়া আরও রয়েছে ফল। এ ফলগুলো দেখতে অনেকটা লেবুর মতো।  প্রাণ প্রতিবেশ গবেষকরা বলছেন, ভাদ্রমাসে যখন গাছে গাছে ফল থাকে না তখন, পাখিদের  খাবারের আকাল চলে। কদম তখন প্রধান খাবার হয়ে ওঠে পাখ-পাখালি, বাদুড় ও কাঠবিড়ালির জন্য। এবং প্রকৃতিতে ওরাই হয় মূলত বীজ ছড়ানোর বাহন।

একটা কদম ফলের ভেতরে প্রায় ৮ হাজার বীজ থাকে। ফুল ছাড়া কদম গাছও বেশ উপকারী। গাছ থেকে যেমন জ্বরের ওষুধ তৈরি করা হয় তেমনি এ গাছ দ্রুত বাড়ে বিধায় একে জ্বালানি কাঠ হিসেবেও ব্যবহার করা হয়।

এটির ফুল ও ফল দিয়ে ইদানিং নানা পদের মুখরোচক খাবারের তালিকা বাড়ছে। অনলাইনে রাধুনী অথবা শেফরাও কদম ফুল- ফলের রেসিপি নিয়ে প্রকাশ করছেন তাদের অনুভূতি।

আর আষাঢ় মাষের শুরু থেকে রমণীর চুলে কদমফুল গুজে অথবা সেজে নিজের আনন্দঅনুভুতির প্রকাশ তো অনেকদিন ধরেই আমাদের বর্ষা ঋতুর ঐতিহ্য বহন করেই আসছে।

 


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন