শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
জীবন যেখানে দ্রোহের প্রতিশব্দ মৃত্যু সেখানেই শেষ কথা নয়..  » «   শিল্প উদ্যোক্তা ও ক্রীড়া সংগঠক মো: জিল্লুর রাহমানকে  লন্ডনে সংবর্ধনা  » «   ঈদের সামাজিক গুরুত্ব ও বিলাতে ঈদের ছুটি   » «   ব্রিটেনে ঈদের ছুটি  প্রসঙ্গে  » «   হজের খুতবা বঙ্গানুবাদ করবেন মাওলানা শোয়াইব রশীদ ও মাওলানা খলিলুর রহমান  » «   হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু, তাবুর শহর মিনায় হাজিরা  » «   ঈদের ছুটি : আমাদের কমিউনিটিতে সবার আগে শুরু হোক  » «   ঈদের দিনে বিলেত প্রবাসীদের মনোবেদনা  » «   বিলেতে ঈদ উৎসব এবং বাঙ্গালী কমিউনিটির অন্তর্জ্বালা  » «   জলঢুপে বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমান কেম্প  » «   তিলপাড়ায় বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «   করিমগঞ্জ দিবস  » «   ঈদের ছুটি চাই : একটি সমন্বিত উদ্যোগ অগণিত পরিবারে হাসি ফুটাতে পারে  » «   ট্রাক ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাণ গেল তিন বন্ধুর  » «   বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের বিনামূল্যে ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন


আলেহার ঋণ পরিশোধ হবে কিভাবে: ধূলায় দিশেহারা কৃষক



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

”কুমড়া ক্ষেত নষ্ট হইয়া যাইতাছে পানি না দেয়ার খাতিরে, বারো মাসের মধ্যে একটা ফল হয় আম, এটাও যাইলো গা,ঘরবাড়ি নষ্ট হইতাছে, রাস্তা দিয়ে হাটতে পারতেছি না, মূলত রাস্তার ধুলার লাগইয়া হাটতে পারতেছিনা, শ্বাসকষ্ট রোগীদের শ্বাসকষ্ট বাড়তাছে, যাইতেছে গা ফসল, সারাদিন একবারও পানি দিতাছে না তারা, আমরা রাস্তার ঠিকাদারের কাছে দাবি করছিলাম ডেলি দু,বেলা পানি দেওয়ার জন্য, কিন্ত একদিন দিয়া চলে যায়, পরে সাপ্তাহর পর সাপ্তাহ চলে যায়, আর পানি দেয় না, ধুলার জন্য ফসল নষ্ট হইয়া গেছে গা। আমরা কুমড়া ক্ষেত করলাম মাইর খাইলাম উপজেলা কৃষি অফিস থাকইয়া আইয়া কেউ জিজ্ঞাসা করলো না দেখলোনা, আমরা ২০/৩০ জন কৃষক খুব আশা করিয়া দেনা কইরা কুমড়া ক্ষেত করলাম। আমরা লক্ষ লক্ষ টাকার ক্ষতিগ্রস্ত হইলাম। আমরার ক্ষতিপূরণ কে দিবে? আমরা ক্ষতিপূরণ চাই।”
সরেজমিনে গেলে ঠিক এভাবে এই প্রতিবেদকের কাছে কথাগুলো বলেন, নেত্রকোণার কলমাকান্দা উপজেলার সদর ইউনিয়নের সড়ক ও জনপদ সড়কের দু,পাশে মাইজপাড়া ও বাবনী এলাকার ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকেরা।

বাবনি এলাকার ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক মো.মজনু মিয়া বলেন, ”গত বছরে আমার কুমড়া ক্ষেতে ভাল ফলন হইছিল, কিন্তু  করোনা প্রাদুভাবে গাড়ি অভাবে বিক্রি করতে পারি নাই। ওই সময় ফলে লক্ষ লক্ষ টাকার লোকসান হইছিল । এ বছর খুব আশা করিয়া আমি ফের দেনা করে ৩২ কাঠা জমিতে চাল কুমড়া চাষ করি। এতে আমার প্রায় ৪ লক্ষ টাকা খরচ হইছে। রাস্তার ধুলার  কারণে আমাদের এই ফসলের ক্ষতি হইছে ? আমারা পরিবার লোকজন নিয়া কেমনে চলবাম ?”

মাইজপাড়া এলাকার ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক ছায়েদ আলী জানান ”আমিসহ এলাকার ২০/৩০ জন কৃষক খুব আশা করিয়া দেনা কইরা কুমড়া ক্ষেত করলাম। রাস্তার অতিরিক্ত ধুলার কারণে আমরা লক্ষ লক্ষ টাকার ক্ষতিগ্রস্ত হইলাম। আমরার ক্ষতিপূরণ কে দিবে?  আমরা ক্ষতিপূরণ চাই।”

এবিষয়ে উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ ফারুক আহমেদ এর নিকট জানতে চাইলে তিনি  ৫২ বাংলাটিভি কে জানান, সড়ক ও জনপদ বিভাগের  কলমাকান্দা টু ঠাকুরাকোনা সড়কের কাজ চলমান থাকায় অতিরিক্ত ধুলার কারণে বিশেষ করে পাতার ওপর ধুলোর আস্তরণ পড়ে গিয়ে ফসল উৎপাদনের ক্ষতি হয়েছে। ওই সড়কের দু,পাশে মাইজপাড়া ও বাবনি এলাকার ২০ জন কৃষকের মতো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এতে ক্ষতি পরিমাণ  আনুমানিক ১৫ লক্ষ টাকার হবে। পাশাপাশি এবছর যে বোরো ধান করা হয়েছে। অন্যান্য ফসল গুলো আছে রাস্তার দু’পাশে। এগুলো অতিরিক্ত ধুলার কারণে ক্ষতির আশঙ্কার মধ্যে আছে।

উপজেলা কৃষি অফিস থেকে কোন খোঁজ খবর না নেওয়ার অভিযোগের কথা অস্বীকার করে তিনি আরো বলেন, উপজেলায় উপ-সহকারি  কৃষি  কর্মকর্তার সংখ্যা খুবই কম। তদুপরি কৃষকের পাশে থেকে আমরা চেষ্টা করছি। খুব দ্রুত যাতে করে কৃষককের ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়া যায়। রাস্তার ধুলাকে  নিয়ন্ত্রণ করার জন্য নেত্রকোণার সড়ক ও জনপথ বিভাগের সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন ।

এব্যপারে নেত্রকোণা সড়ক ও জনপদ বিভাগ নির্বাহী প্রকৌশলী মো. হামিদুল ইসলামের নিকট মুঠোফোনে সাপ্তাহে একদিন পানি দেয়া হয় কি -না তা জানতে চাইলে তিনি ৫২ বাংলাটিভি কে বলেন, এটা ঠিক না। এখন শীতকাল, শুকনো মৌসুম,কিছুটা ধুলো হবেই। রাস্তার কাজ করতে গেলে সবই বালু, সুড়কি ধুলো হবেই।  তারপরও আমি বিষয়টি দেখবো। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের ক্ষতিপূরণ দাবির বিষয়টি দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি ৫২ বাংলাটিভি কে বলেন এবিষয়ে আমার  কোন বক্তব্য নাই।


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন