শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
জীবন যেখানে দ্রোহের প্রতিশব্দ মৃত্যু সেখানেই শেষ কথা নয়..  » «   শিল্প উদ্যোক্তা ও ক্রীড়া সংগঠক মো: জিল্লুর রাহমানকে  লন্ডনে সংবর্ধনা  » «   ঈদের সামাজিক গুরুত্ব ও বিলাতে ঈদের ছুটি   » «   ব্রিটেনে ঈদের ছুটি  প্রসঙ্গে  » «   হজের খুতবা বঙ্গানুবাদ করবেন মাওলানা শোয়াইব রশীদ ও মাওলানা খলিলুর রহমান  » «   হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু, তাবুর শহর মিনায় হাজিরা  » «   ঈদের ছুটি : আমাদের কমিউনিটিতে সবার আগে শুরু হোক  » «   ঈদের দিনে বিলেত প্রবাসীদের মনোবেদনা  » «   বিলেতে ঈদ উৎসব এবং বাঙ্গালী কমিউনিটির অন্তর্জ্বালা  » «   জলঢুপে বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমান কেম্প  » «   তিলপাড়ায় বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «   করিমগঞ্জ দিবস  » «   ঈদের ছুটি চাই : একটি সমন্বিত উদ্যোগ অগণিত পরিবারে হাসি ফুটাতে পারে  » «   ট্রাক ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাণ গেল তিন বন্ধুর  » «   বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের বিনামূল্যে ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন


বিটিএ-র শহীদ দিবস পালন



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

বাংলাদেশ টিচার্স এসোসিয়েশন ইঊকে (বিটিএ) ২১শে ফেব্রুয়ারি রোববার জুমের মাধ্যমে শহীদ দিবস পালন করেছে। এ উপলক্ষে বিটিএ ঐদিন সন্ধ্যে ৬টায় একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এতে সভাপতিত্ব করেন বিটিএ-র সভাপতি আবু হোসেন। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল বাসিত চৌধুরী অনুষ্ঠানের গোড়াপত্তন করেন এবং আলোচনাপর্ব পরিচালনা করেন।

অনুষ্ঠানে যুক্ত হওয়ার জন্য সবার নাম উল্লেখ করে বিটিএ-র পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানান যুগ্ম সম্পাদক ড: রোয়াব উদ্দীন। সভাপতি আবু হোসেন এতে যোগদানকারী সবাইকে স্বাগত জানিয়ে তাঁর স্বাগত বক্তব্যে বলেন, “একুশ আমাদের অহঙ্কার ও গৌরব। একুশ আমাদের স্বাধীনতার বীজ বপন করেছে”।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা দিয়েছেন পপলার ও লাইন হাউস আসনের এমপি আফসানা বেগম। তিনি বলেছেন, “কমিউনিটি ল্যাংগুয়েজ সার্ভিস (সিএল এস) আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ, বাংলাও যার অন্তর্ভুক্ত ছিল। টাওয়ার হ্যামলেটসে সিএলএস-কে বাঁচানোর আন্দলনে কঠোর পরিশ্রম করার জন্যে আমি বিটিএ-কে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। বিশ্বের ৪৩ শতাংশ ভাষা এখন বিলুপ্তির দ্বারপ্রান্তে এসে উপনীত হয়েছে। মানুষ স্বীয় ভাষা সংরক্ষণের জন্য সংগ্রাম করেছে ও জীবন উৎসর্গ করেছে”।একুশের পটভূমি নিয়ে আলোচনা করেন এডভোকেট শাহ ফারুক আর স্বাধীনতা সংগ্রামে শহীদ দিবসের গুরুত্ব এবং তাৎপর্য নিয়ে আলোচনা করেন ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজী বিভাগের প্রধান ড: শামসুল হক। এছাড়া এতে অংশ নেন সাংস্কৃতিক সম্পাদক মুজিবল হক মনি।

সাংস্কৃতিক পর্বে কথন ও আবৃত্তিতে অংশ গ্রহন করে কিশোর আদি, আদৃত ও কিশোরী সাবা আলম। পিয়ানো বাজিয়েও শুনিয়েছে সারা আলম। স্বরচিত কবিতা আবৃত্তি করেন সওদা মুনিম, রেহানা খানম রহমান, রাজিয়া মান্নান ও কোষাধ্যক্ষ মিসবাহ আহমেদ। অতিথিদের মধ্য থেকে সৈয়দ তারিকুল ইসলাম আবৃত্তি করে শোনান। গান পরিবেশন করেন মোস্তফা কামাল মিলন, সাঈদা চৌধুরী এবং স্যামুয়েল চৌধুরী। আমন্ত্রিত প্রখ্যাত শিল্পী তারিক সৈয়দ বাংলাদেশ থেকে যুক্ত হয়ে বেশ কয়েকটি গান পরিবেশন করেছেন।


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন