বুধবার, ১০ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
জীবন যেখানে দ্রোহের প্রতিশব্দ মৃত্যু সেখানেই শেষ কথা নয়..  » «   শিল্প উদ্যোক্তা ও ক্রীড়া সংগঠক মো: জিল্লুর রাহমানকে  লন্ডনে সংবর্ধনা  » «   ঈদের সামাজিক গুরুত্ব ও বিলাতে ঈদের ছুটি   » «   ব্রিটেনে ঈদের ছুটি  প্রসঙ্গে  » «   হজের খুতবা বঙ্গানুবাদ করবেন মাওলানা শোয়াইব রশীদ ও মাওলানা খলিলুর রহমান  » «   হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু, তাবুর শহর মিনায় হাজিরা  » «   ঈদের ছুটি : আমাদের কমিউনিটিতে সবার আগে শুরু হোক  » «   ঈদের দিনে বিলেত প্রবাসীদের মনোবেদনা  » «   বিলেতে ঈদ উৎসব এবং বাঙ্গালী কমিউনিটির অন্তর্জ্বালা  » «   জলঢুপে বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমান কেম্প  » «   তিলপাড়ায় বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «   করিমগঞ্জ দিবস  » «   ঈদের ছুটি চাই : একটি সমন্বিত উদ্যোগ অগণিত পরিবারে হাসি ফুটাতে পারে  » «   ট্রাক ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাণ গেল তিন বন্ধুর  » «   বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের বিনামূল্যে ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন


‘অক্সফোর্ডের টিকা ৮ থেকে ১২ সপ্তাহ বিরতিতে অধিক কার্যকর’



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) নতুন ধরন শনাক্ত হওয়া দেশগুলোতেও অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি টিকা ব্যবহারের সুপারিশ করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। টিকাটির দুই ডোজ নেওয়ার ক্ষেত্রে ৮ থেকে ১২ সপ্তাহ পর্যন্ত বিরতি নেওয়ার কথা বলছেন সংস্থাটির বিশেষজ্ঞরা। তাঁদের মতে, এতে টিকার কার্যকারিতা বাড়ে ও বেশি সুরক্ষা পাওয়া যায়।

যুক্তরাজ্যের সংবাদমাধ্যম বিবিসির খবরে এসব কথা জানানো হয়। এর আগে ব্যতিক্রমী পরিস্থিতিতেই কেবল দুই ডোজের টিকার মধ্যে ছয় সপ্তাহের মতো বিরতি দেওয়ার সুপারিশ করেছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। সংস্থাটি বলছে, ৬৫ বছরের বেশি বয়সীদের ক্ষেত্রেও অক্সফোর্ডের তৈরি টিকা ব্যবহার করা যেতে পারে। কয়েকটি দেশ অবশ্য এই টিকা ৬৫–ঊর্ধ্বদের দেওয়ার বিরোধী। যুক্তরাজ্যে এই টিকার দুই ডোজের মধ্যে বেশি বিরতিতে ভালো কার্যকারিতার প্রমাণ মিলেছে বলে দাবি করা হচ্ছে।

বিবিসির খবরে বলা হয়, অক্সফোর্ডের টিকাকে ‘বৈশ্বিক টিকা’ হিসেবে দেখা হচ্ছে। কারণ, টিকাটি দামে তুলনামূলক সস্তা, গণহারে উৎপাদন করা যায় এবং সাধারণ ফ্রিজের তাপমাত্রায় তা সংরক্ষণযোগ্য। তবে করোনার নতুন ধরনের ক্ষেত্রে এ টিকার কার্যকারিতা নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। এ ছাড়া তথ্যের স্বল্পতা থাকায় এটি বয়স্কদের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা যাবে কি না বা দুটি ডোজের মধ্যে কত দিন বিরতি দিতে হবে, তা নিয়ে বিতর্ক চলছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার টিকা বিশেষজ্ঞ ফোরাম স্ট্র্যাটেজিক অ্যাডভাইজরি গ্রুপ অব এক্সপার্টস (এসএজিই) টিকা পরীক্ষার তথ্য–প্রমাণ যাচাই করে। এর অন্তর্বর্তীকালীন সুপারিশ বলছে, অক্সফোর্ডের টিকাটি মোটের ওপর ৬৩ শতাংশ কার্যকর।
তবে দক্ষিণ আফ্রিকায় টিকাটির পরীক্ষামূলক প্রয়োগে দেখা যায়, মৃদু ও মাঝারি মাত্রার অসুস্থ তরুণদের ক্ষেত্রে টিকাটি ‘সামান্য সুরক্ষা’ দিতে পারে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার টিকাদানবিষয়ক পরিচালক ক্যাথেরিন ও’ব্রায়েন বলেন, দক্ষিণ আফ্রিকার গবেষণাটি ছিল অসম্পূর্ণ। এই টিকা গুরুতর পর্যায়ের কোভিড ঠেকাতে এখনো সম্ভাবনাময়। অক্সফোর্ডের গবেষকেরা দাবি করেন, তাঁদের টিকাটি কোভিড-১৯ রোগীদের গুরুতর অসুস্থতা থেকে বাঁচাতে পারে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এসএজিইয়ের চেয়ারম্যান আলেজান্দ্রো ক্যারাভিয়োটো বলেন, যেসব দেশে করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ছড়িয়ে পড়েছে, সেখানেও এ টিকা ব্যবহারের সুপারিশ না করার কোনো কারণ নেই।

যদিও ফ্রান্স ও জার্মানির মতো দেশ এই টিকার কার্যকারিতা নিয়ে যথেষ্ট তথ্য নেই বলে সমালোচনা করেছে। টিকাটি ৬৫ বছরের বেশি বয়সীদের না দেওয়ার কথা বলছে তারা। তবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ৬৫ বছরের বেশি বয়স্কদের ক্ষেত্রে টিকাটি পরীক্ষার তথ্য কম থাকলেও অন্যান্য গবেষণায় দেখা গেছে, বয়স্কদের ক্ষেত্রেও এটি প্রতিরোধব্যবস্থা তৈরি করে। তাই এই টিকা ব্যবহার করা উচিত।

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সারাহ গিলবার্ট বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা টিকাটির সুপারিশ করেছে, এটা দারুণ খবর। এ সিদ্ধান্ত টিকাটির আরও বিস্তৃত ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নেওয়ার পথ খুলে দেবে।

যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সুপারিশ ও ডোজের মধ্যে দীর্ঘ বিরতির বিষয়টিকে স্বাগত জানিয়েছেন।


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন