শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
জীবন যেখানে দ্রোহের প্রতিশব্দ মৃত্যু সেখানেই শেষ কথা নয়..  » «   শিল্প উদ্যোক্তা ও ক্রীড়া সংগঠক মো: জিল্লুর রাহমানকে  লন্ডনে সংবর্ধনা  » «   ঈদের সামাজিক গুরুত্ব ও বিলাতে ঈদের ছুটি   » «   ব্রিটেনে ঈদের ছুটি  প্রসঙ্গে  » «   হজের খুতবা বঙ্গানুবাদ করবেন মাওলানা শোয়াইব রশীদ ও মাওলানা খলিলুর রহমান  » «   হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু, তাবুর শহর মিনায় হাজিরা  » «   ঈদের ছুটি : আমাদের কমিউনিটিতে সবার আগে শুরু হোক  » «   ঈদের দিনে বিলেত প্রবাসীদের মনোবেদনা  » «   বিলেতে ঈদ উৎসব এবং বাঙ্গালী কমিউনিটির অন্তর্জ্বালা  » «   জলঢুপে বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমান কেম্প  » «   তিলপাড়ায় বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «   করিমগঞ্জ দিবস  » «   ঈদের ছুটি চাই : একটি সমন্বিত উদ্যোগ অগণিত পরিবারে হাসি ফুটাতে পারে  » «   ট্রাক ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাণ গেল তিন বন্ধুর  » «   বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের বিনামূল্যে ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন


অদ্বৈত কান্ত দাস : একজন আদর্শ শিক্ষকের প্রতিচ্ছবি



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

সিলেটের গুণী শিক্ষক অদ্বৈত কান্ত  দাস। যিনি সবার কাছে ‘অদ্বৈত স্যার’ নামেই পরিচিত । মানুষ গড়ার এই কারিগর  মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলার নিজ বাহদুরপুর গ্রামে ১৯৫১ সালের ২৪ শে ফেব্রুয়ারি এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন । পিতা স্বর্গীয় বৈকণ্ঠ  চরন   দাস এবং মাতা  স্বর্গীয় ললিতা বালা দাস ।

প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা শুরু হয় নিজ বাহাদুরপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। মাধ্যমিক শিক্ষা শুরু জলঢুপ উচ্চ বিদ্যালয়ে ।স্কুলে থাকা অবস্থায় অষ্টম শ্রেণীর বার্ষিক পরীক্ষার পূর্বে  টাইফয়েডে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর খুব কাছ থেকে ফিরে আসেন । টাইফয়েডে আক্রান্ত  হয়ে একমাস পাঁচ দিন বিছানায় ছিলেন। সে সময় তাঁর  স্বরণ শক্তি হারিয়ে যায় ,মাথার চুল পড়ে যায় ,গলার স্বর হারিয়ে ফেলেন। সেই সময় টাইফয়েড একটি জটিল ব্যাধি হিসাবে স্বীকৃত ছিল।কার্যকর    চিকিৎসা ছিল না বললেই চলে । তখন লোক মুখে প্রচলিত ছিল, টাইফয়েড থেকে ভাল হওয়ার শেষ সময়ে শরীর টান দিলে বিকলাঙ্গ হওয়ার আশংকা থাকত । এই আশংকার জন্য বাবা স্বর্গীয় বৈকণ্ঠ  চরন   দাস এলাকার কয়েকজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করেন । তাদের পরামর্শ অনুযায়ী ভারত থেকে একটি ঔষধ এনে সেবনের পর সেই যাত্রা প্রাণে বেঁচে যান তিনি । সেই সময় শারিরীকভাবে এত দুর্বল হয়েছিলেন যে, বাড়ী থেকে স্কুলে যাওয়ার পথে দুই তিনবার  তাকে  পথিমধ্যে বসে বিশ্রাম নিতে হতো। শরীর পুরোপুরি ভালো না হলেও বার্ষিক পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করেন, এবং নিয়মিত কৃতকার্যও হন।

অদ্বৈত কান্ত  দাস ১৯৬৬ সালে জলঢুপ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মানবিক বিভাগ থেকে ২য় বিভাগে এসএসসি পাশ করেন ।১৯৬৬ সালে কুমিল্লার ভিক্টোরিয়া কলেজে  বিজ্ঞান বিভাগে ভর্তি হয়ে কৃতিত্বে সাথে প্রথম বর্ষ  শেষ করেন ১৯৬৭ সালে । দ্বিতীয় বর্ষের টেস্ট পরীক্ষা শেষে ফাইনাল পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে  পরীক্ষার পূর্বে বইপত্র নিয়ে বাড়ীতে চলে আসেন  ।প্রস্তুতি শেষে পরীক্ষার  কয়েক দিন আগে কুমিল্লা যাওয়ার দিন ঠিক করা হয় । বন্ধু আব্দুল লতিফ ভুইয়া , আব্দুল মতিন একসাথে যাওয়ার জন্য সিদ্ধান্ত হয়।  সবাই চান্দগ্রাম বাজার থেকে বাস যোগে সকাল সাতটায় কুলাউড়ায় গিয়ে উল্কা এক্সপ্রেসে কুমিল্লায় যেতে হবে । বাবা বইপত্রের ট্রানক বাড়ী থেকে  বাসে তুলে দেওয়ার জন্য একজন মানুষও রেডি করেন। ভদ্রলোক বাড়ীতে এসে অপেক্ষা করছেন, মা খাবার রেডি করছেন ছেলে কিছু খেয়ে যাবে । কিন্তু ছেলে তখনও ঘুম থেকে উঠছে না। বাবা- মা ডাকাডাকি শুরু করলেন। কে শুনে কার ডাক । অনেক কষ্ট করে বাহির থেকে জানালা খুলে  ঘরে ঢুকে  দেখলেন-  প্রচন্ড জ্বরে যেন তার গা পোড়ে যাচ্ছে।  তখন বাবা মার বুঝতে বাকি থাকল না যে, ছেলের হয়তো আবার টাইফয়েড হয়ে গেছে । এদিকে বন্ধুরা যারা বাসে অপেক্ষায় ছিলেন, তারাও চলে গেলেন, তাদেরও জানা হয়নি  কী হয়েছে বন্ধু অদ্বৈত ‘র

ফাইনাল পরীক্ষায় অংশ নিতে না পারায় শরীর  সুস্থ হওয়ার পর পুনরায় ভর্তি হওয়ার জন্য কুমিল্লার ভিক্টোরিয়া কলেজে গেলে কলেজ কর্তৃপক্ষ জানালেন,  পুলিশ  ক্লিয়ারেন্স ও মেডিকেল সার্টিফিকেট ছাড়া পুনরায় ভর্তি হওয়া যাবে না । বাবা চেষ্টা করেও পুলিশ ক্লিয়ারেন্স যোগাড় করতে পারেননি। সেই সময় একই গ্রামের অরুন কুমার দাস মৌলভীবাজারে শিক্ষকতা করতেন। ছুটিতে বাড়ীতে এসেছেন তিনি ।

অদ্বৈত কান্ত  দাস এর    অসুস্থতা এবং এই কারণে  পরীক্ষা দিতে না পারা এবং পূনরায় ভিক্টোরিয়া কলেজে ভর্তি হতে  না পারার কারণ বিস্তারিত  শুনে তিনি বললেন, সব ডকুমেন্ট  নিয়ে তার সাথে মৌলভীবাজার দেখা করার জন্য ।  সব ডকুমেন্ট নিয়ে  অরুন কুমার দাস এর কাছে গেলে তিনি সেই সময়ের মৌলভীবাজার কলেজের প্রাক্তন ভিপি গজনফর আলী চৌধুরীর সহযোগিতায় কলেজের প্রিন্সিপাল সাহেবের কাছে নিয়ে  বিস্তারিত জানান। কলেজের প্রিন্সিপাল সবশুনে তিনি সহকারী প্রিন্সিপাল পদার্থ বিজ্ঞানের প্রভাষক আব্দুল্লাহ সাহেবের কাছে পাঠান ।তিনি  প্রথম বর্ষের মার্কসিট দেখে  তাকে ভর্তি করলে ১৯৬৯ সালে ফাইনাল পরীক্ষা দেওয়া নিশ্চিত হয়। পরীক্ষার সপ্তাহ আগে আবারও   জল বসন্ত রোগে আক্রান্ত  হন। এবারও বাঁধা পড়ে ফাইনাল পরীক্ষায় ।

তবে  দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি এবার সহায় হয়। গুণী এই শিক্ষকের পরীক্ষার কয়েক দিন পূর্বে শিক্ষা মন্ত্রণালয় এক মাস দশ দিন পিছিয়ে দেয় ফাইনাল পরীক্ষা ।মোটামুটি সুস্থ হয়ে পরীক্ষায় অংশ নিয়ে ২য় বিভাগে মৌলভীবাজার  কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করেন তিনি ।পরবর্তিতে সিলেটের মুরারীচাদ কলেজে বিএসসি কোর্সে পড়ার সময় স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরু হলে ১৯৭১ সালের মার্চ মাসে হোস্টেল থেকে বইপত্র নিয়ে বাড়ীতে চলে আসেন । বাড়ীতে আসার পর সবার অনুরোধে ভারতে চলে যান । অবশ্য যুদ্ধ চলাকালীন সময়ে কাউকে না জানিয়ে একবার বাড়ীতে চলে আসেন । আবার সবার অনুরোধে পুনরায় ভারতে চলে যান ।

মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে হাকালুকিতে পাকিস্তানিদের সাথে একটি যুদ্ধ সংগঠিত হয় । মুক্তিযোদ্ধা আবুবক্কর  ( গল্লাসাংগন ) যুদ্ধের একটি অংশের নেতৃত্ব দেন । যুদ্ধ শেষে এলাকা ছাড়তে হবে, পথিমধ্যে মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে এলাকার নিরাপদ কোন বাড়ীতে থাকার ব্যবস্থা করে দেওয়ার জন্য স্বাধীনতার সংগঠক মনুহর আলী ( পসারী সাব ), নঈম আলী , আব্দুল হেকিম , নজীর আলী  অদ্বৈত কান্ত দাসের নিজ বাহাদুরপুর গ্রামের পৈতৃক বাড়ীতে যান । তাদের অনুরোধে পিতা  বৈকণ্ঠ চরন দাস ১২/১৪জনের মুক্তিযোদ্ধার একটি গ্রুপকে তার বাড়ীতে থাকার ব্যবস্থা করে দেন । দেশ প্রেমিক পিতা বুঝতে পারেননি এটাই তার জীবনে নিয়ে আসবে কঠিন সমস্যা । বৃহস্পতিবার  রাত্রে আশ্রয় নেয়া মুক্তিবহিনীর খবর স্থানীয় রাজাকার , বলই ( গল্লাসাংগন ) , রহিম উদ্দিন  ( রম ) ( গল্লাসাংগন ) , লুৎফুর রহমান ( শাহবাজপুর , লাতু )পাকিস্তানী সেনাবাহিনীকে জানিয়ে দিলে পরদিন শুক্রবার সন্মুখ যুদ্ধে একজন মুক্তিযুদ্ধা খতিব আলী , পিতা : হাচই মিয়া , গ্রাম : চতি বাহাদুরপুর ( গাং পার ) ১৭/১৮ বৎসরের তরতাজা যুবক  গুরুতর আহত হন ।শরীরের রক্তক্ষরণ বন্ধ না হওয়ায় তাকে বহন করে এলাকা ছেড়ে যাওয়া সম্ভব নয় । এদিকে তাড়াতাড়ি এলাকা ছাড়তে হবে।

উপায়ান্তর না দেখে মুক্তিযোদ্ধারা গুরুতর আহত এই মুক্তিযোদ্ধা খতিব আলী কে বাড়ীর উত্তর পাশে ফেলে এলাকা ছেড়ে চলে যান । সেখানে মৃত্যু বরণ করেন দেশপ্রেমিক এই  মুক্তিযুদ্ধা খতিব আলী ।

স্বাধীনতার পর অদ্বৈত কান্ত  দাস বাড়ীতে এসে দেখেন, একমাত্র ঘর ছাড়া আর কোন কিছুই নেই ।স্থানীয় রাজাকাররা সবকিছু লুট করে নিয়ে গেছে । ঘরের মালামাল লুট করে নেয়াতে আর্থিক লোকসান হলেও নোটবুকসহ অন্যান্য বইগুলি না পাওয়ায় মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়েন তিনি। তবে মনে মনে প্রত্যয় রাখেন,  কোন অবস্থায় ফাইনাল পরীক্ষা মিছ  না করার। কিছু দিনের মধ্যে পরীক্ষা দেবার চুড়ান্ত  সিদ্ধান্ত নিয়ে  হোস্টেলে যাবার মনস্থির করেন। উদ্দেশ্য ছিল হোস্টেলে  গেলে হয়তো   কিছু বইয়ের ব্যবস্থা হবে । ।কারণ  হোস্টেলে কিছু ছাত্রের কাছে বই আছে। সে সময়ে  বাজারে  বই পাওয়া যাচ্ছিল না । অবশেষে অন্যদের কাছ থেকে বই ধার করে, ১৯৭২ সালে পরীক্ষায় অংশগ্রহন করে বিএসসি পাশ করেন গুণী এই শিক্ষক ।

১৯৭৩ সালের জুন মাসে জলঢুপ উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষক হিসেবে যোগদান করে ১৯৮৪-১৯৮৫ শিক্ষাবর্ষে  কুমিল্লা বিএড কলেজ  থেকে বিএড পাশ করেন ।  ১৯৯২ সালের সেপ্টেম্বর  মাসে জলঢুপ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে শিক্ষকতা জীবনের ১৯ বৎসরের ইতি টেনে ইউরোপ পাড়ি দেন ।

শিক্ষক অদ্বৈত কান্ত  দাস বর্তমানে যুক্তরাজ্যে স্থায়ীভাবে  বসবাস করছেন। বিশ্বের অনেক দেশে ভ্রমন করেছেন তিনি ।যে দেশে গিয়েছেন, সেখানে থাকা ছাত্রের ভালোবাসায় সিক্ত হয়েছেন তিনি । ছাত্রদের কাছ থেকে ভালোবাসাই তার জীবনের সবচেয়ে বড় পাওয়া বলে মনে করেন তিনি ।

তবে, না পাওয়ার আক্ষেপও আছে তার জীবনে । দেশ স্বাধীনের সময় স্থানীয় রাজাকার মহোৎসব করে তাদের বাড়ী লোট ও নিজ বাড়ীতে মুক্তিযোদ্ধা খতিব আলী শহীদ  হওয়ার ঘটনা

তাঁকে বেদনাহত  করে। এখনও  অনেক রাত্রে স্বপ্নে দেখেন- তার প্রাণপ্রিয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জলঢুপ উচ্চ বিদ্যালয়ে  হাটতেছেন । শুনতে পান স্কুল ক্যাম্পাসে ছাত্র ছাত্রীদের কোলাহল।

লন্ডনে থাকার সুবাদে যুক্তরাজ্য প্রবাসী  জলঢুপ স্কুলের অনেক প্রাক্তন শিক্ষার্থী সময় করে তাঁকে দেখতে আসেন,নিয়মিত  কুশলাদি বিনিময়ও করেন -এ জন্য তিনি  মনে করেন তার শিক্ষকতা জীবন সার্থক হয়েছে । মানুষ গড়ার কারিগর অদ্বৈত কান্ত  দাস স্যারের দীর্ঘায়ু কামনা করছি ।

লেখক : ফয়সল আহমদ ( রুহেল ), সাউথ ইস্ট লন্ডন নিউজ করেসপনডেন্ট;চ্যানেল এস টেলিভিশন ,লন্ডন ।


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

"এই বিভাগে প্রকাশিত মতামত ও লেখার দায় লেখকের একান্তই নিজস্ব " -সম্পাদক