শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
জীবন যেখানে দ্রোহের প্রতিশব্দ মৃত্যু সেখানেই শেষ কথা নয়..  » «   শিল্প উদ্যোক্তা ও ক্রীড়া সংগঠক মো: জিল্লুর রাহমানকে  লন্ডনে সংবর্ধনা  » «   ঈদের সামাজিক গুরুত্ব ও বিলাতে ঈদের ছুটি   » «   ব্রিটেনে ঈদের ছুটি  প্রসঙ্গে  » «   হজের খুতবা বঙ্গানুবাদ করবেন মাওলানা শোয়াইব রশীদ ও মাওলানা খলিলুর রহমান  » «   হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু, তাবুর শহর মিনায় হাজিরা  » «   ঈদের ছুটি : আমাদের কমিউনিটিতে সবার আগে শুরু হোক  » «   ঈদের দিনে বিলেত প্রবাসীদের মনোবেদনা  » «   বিলেতে ঈদ উৎসব এবং বাঙ্গালী কমিউনিটির অন্তর্জ্বালা  » «   জলঢুপে বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমান কেম্প  » «   তিলপাড়ায় বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «   করিমগঞ্জ দিবস  » «   ঈদের ছুটি চাই : একটি সমন্বিত উদ্যোগ অগণিত পরিবারে হাসি ফুটাতে পারে  » «   ট্রাক ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাণ গেল তিন বন্ধুর  » «   বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের বিনামূল্যে ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন


লেবাননে আন্দোলনে যাচ্ছে বাংলাদেশি প্রবাসীরা, সোমবার মানববন্ধন  



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

ভয়াবহ আর্থিক সংকটে রয়েছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ লেবানন। এতে সবচেয়ে সংকটে রয়েছে সেখাকার প্রবাসী বাংলাদেশিরা। কর্ম হারিয়ে বেকার হয়ে পড়েছেন হাজারো প্রবাসী কর্মী। অনেকে দেশ থেকে টাকা নিয়ে অনাহারে অর্ধাহারে দিন কাটাচ্ছেন। দীর্ঘদিন ধরে দেশে ফিরিয়ে আনার দাবি জানিয়ে আসছেন তারা। তবে এখন পর্যন্ত প্রবাসী বাংলাদেশিদের  ফিরিয়ে আনতে সরকারের পক্ষ থেকে কার্যকর কোন উদ্যোগ নেয়া হয়নি।

কবে নাগাদ তারা দেশে ফেরত আসতে পারবেন তাও নিশ্চিত করে বলতে পারছে না কেউ। এ অবস্থায় আন্দোলনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন লেবাননে অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশিরা।আগামী ১৪ ডিসেম্বর রোজ সোমবার বৈরুতে বাংলাদেশ দূতাবাসের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। আউট পাসের দাবিতে আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন তারা। লেবাননের আল কলা ব্রিজের নিচে জমায়েত হবেন তারা। সেখান থেকে মিছিল নিয়ে সাফা রাতে যাবেন তারা। পরে বৈরুতে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস ঘেরাও করবেন  প্রবাসী বাংলাদেশিরা।

এদিকে নজিরবিহীনভাবে লেবাননের মুদ্রাস্ফীতি ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। ডলারের বিপরীতে লেবানিজ পাউন্ডের ভয়াবহ দরপতন অব্যাহত রয়েছে।  ডলারের আন্ত:প্রবাহ কমে যাওয়ায় লেবাননের কেন্দ্রীয় ব্যাংক জ্বালানি, গম এবং ওষুধ এবং কিছু প্রাথমিক পণ্য আমদানি করতে বৈদেশিক মুদ্রা সরবরাহের জন্য অবনতিশীল রিজার্ভ ব্যবহার করেছে।

ভর্তুকি শেষ হওয়ার এই খবরে আতঙ্ক তৈরি হয়েছে। কারণ সংকট দেশটির অর্ধেক মানুষকে দরিদ্র করে দিয়েছে। গভর্নর মঙ্গলবার বলেন, দুই মাসের ভর্তুকি দেয়ার মতো অর্থ আমাদের রয়েছে। দেশটিতে এরই মধ্যে প্রয়োজনীয় পণ্য আমদানিতে সরকারের দেয়া ভর্তুকিও শেষ হতে চলেছে।
মহামারি করোনা এবং  দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক আর অর্থনৈতিক সংকটে বেসামাল লেবাননের শ্রমবাজার। দেশটিতে তাই কাজ করে পর্যাপ্ত আয় করতে পারছেন না প্রবাসী বাংলাদেশিরা। খেয়েপড়ে থাকাই যেখানে দুরূহ, সেখানে দেশে টাকা পাঠানোর কোনো সুযোগই নেই তাদের। এতে চরম মানবেতর জীবনযাপন করছেন প্রায় এক লাখ প্রবাসী বাংলাদেশি।

এদিকে, অর্থসংকট ও টিকিটের উচ্চমূল্যের কারণে দেশেও যেতে পারছেন না তারা। তাই আবারও বাংলাদেশ দূতাবাসের মাধ্যমে দেশে ফেরার আবেদন জানিয়েছেন প্রবাসীরা। পাশাপাশি সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণে বৈরুতে সোমবার বিক্ষোভের ডাক দিয়েছেন প্রবাসী শ্রমিকরা।

প্রবাসী বাংলাদেশিরা একদিকে প্রায় সাত-আট মাস ধরে কোনো কাজ করতে পারছেন না, অন্যদিকে টাকার মূল্য কমে গেছে। এতে বিপাকে পড়েছেন তারা । তাই সরকারের কাছে দেশে ফেরার আকুতি তাদের।

অন্যথায় দাবি পূরণে মাঠে নামার বিকল্প দেখছেন না প্রবাসীরা। বলছেন, আমাদের কাজের মূল্যয়ন করা হয় না। এসব নিয়ে আমরা আগেও কথা বলেছি দূতাবাসে কিন্তু প্রতিবারই আমাদের তাড়িয়ে দেওয়া হয়।

দেশটিতে দেড় লাখের মতো বাংলাদেশি বাস করে। এর মধ্যে প্রায় ৪০ হাজার রয়েছেন কাগজপত্রহীন। আগস্টে বৈরুত বিস্ফোরণ আর সরকার পরিবর্তনের পর  আরও প্রকট হয়েছে সংকট।

স্বেচ্ছায় দেশে ফিরতে অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন হাজারো লেবানন প্রবাসী বাংলাদেশি। মূলত কাজের অভাবেই দেশে ফিরছেন তারা। দেশ থেকে টাকা নিয়ে চলতে হচ্ছে অনেক প্রবাসীকে। তবে বৈধ কাগজপত্র না থাকায় দেশে ফিরতে পারছেন না এসব প্রবাসী।

লেবাননে অভ্যন্তরীন সমস্যার কারণে ২০১৯ সাল থেকে দেশটির অর্থনীতি ভেঙ্গে পড়ায় এর বিশাল প্রভাব পড়েছে প্রবাসীদের উপর।


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন