শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
জীবন যেখানে দ্রোহের প্রতিশব্দ মৃত্যু সেখানেই শেষ কথা নয়..  » «   শিল্প উদ্যোক্তা ও ক্রীড়া সংগঠক মো: জিল্লুর রাহমানকে  লন্ডনে সংবর্ধনা  » «   ঈদের সামাজিক গুরুত্ব ও বিলাতে ঈদের ছুটি   » «   ব্রিটেনে ঈদের ছুটি  প্রসঙ্গে  » «   হজের খুতবা বঙ্গানুবাদ করবেন মাওলানা শোয়াইব রশীদ ও মাওলানা খলিলুর রহমান  » «   হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু, তাবুর শহর মিনায় হাজিরা  » «   ঈদের ছুটি : আমাদের কমিউনিটিতে সবার আগে শুরু হোক  » «   ঈদের দিনে বিলেত প্রবাসীদের মনোবেদনা  » «   বিলেতে ঈদ উৎসব এবং বাঙ্গালী কমিউনিটির অন্তর্জ্বালা  » «   জলঢুপে বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমান কেম্প  » «   তিলপাড়ায় বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «   করিমগঞ্জ দিবস  » «   ঈদের ছুটি চাই : একটি সমন্বিত উদ্যোগ অগণিত পরিবারে হাসি ফুটাতে পারে  » «   ট্রাক ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাণ গেল তিন বন্ধুর  » «   বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের বিনামূল্যে ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন


সংযুক্ত আরব আমিরাতে বিদেশী নাগরিকদের জন্য ব্যবসায় শত ভাগ মালিকানার অনন্য সুযোগ 



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

 

 

বিদেশি বিনিয়োগকারীরা এখন থেকে আমিরাতের স্পনসর ছাড়াই মূলভূমিতে সম্পূর্ণ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে একশ ভাগ মালিকানা পেতে পারেন।
সংযুক্ত আরব আমিরাতের মহামান্য রাষ্ট্রপতি শেখ খলিফা বিন জায়েদ আল নাহিয়ানের একটি নির্দেশ জারির মাধ্যমে এই আইনটি পাশ হওয়াতে দেশটিতে এখন যেকোনো বিদেশি নাগরিক স্থানীয় পৃষ্টপোষক ছাড়াই ১০০% মালিকানা নিয়ে যেকোনো ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলতে পারবেন ।

২০১৫ সালের বাণিজ্যিক সংস্থা আইন এর আওতায় বিদেশী শেয়ার হোল্ডাররা মূল ভূখণ্ডের একটি সংস্থার সর্বাধিক ৪৯ শতাংশ মালিক হতে পারতো ।
নতুন এই আইন অনুযায়ী পূর্বের মত এখন আর স্থানীয় স্পন্সরকে ৫১% মালিকানা দিতে হবে না যা আগে বলবদ ছিল । নতুন এই আইনটি কার্যকর হবে ১ ডিসেম্বর ২০২০ থেকে ।

মূলত এই নির্দেশটি এসেছে আমিরাতে আন্তর্জাতিক বিনিয়োগকারীর জন্য অনুকূল পরিবেশ আরও মজবুত এবং বিশ্বব্যাপী সংযুক্ত আরব আমিরাতের অবস্থানকে আরো আকর্ষণীয় গন্তব্য হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে । এই আইনের সাথে আরও কিছু পরিবর্তন এসেছে , যেমন কোনও সংস্থার প্রধান না চেয়ারম্যান পদে আমিরাতি নাগরিক হওয়া বাধ্যতামূলক নয় এবং প্রতিষ্ঠান পরিচালনায় পরিষদেও আমিরাতি সংখ্যাগরিষ্ঠের প্রয়োজন নেই বলে বলা হযেছে।

তেল ,গ্যাস, ইউটিলিটি , পরিবহন এর মত খাতে ও এই আইন প্রযোজ্য বলে নির্দেশনায় উল্লেখ করা হয় । একজন আমিরাতি ব্যক্তি প্রতিষ্ঠানটির বাকী ৫১ শতাংশ রাখতে পারে।

এই সংস্কারের মধ্য দিয়ে আমিরাতে বৈদেশিক বিনিয়োগকে আরো আকৃষ্ট করবে বলে আশা করা হচ্ছে।

 


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন