শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
জীবন যেখানে দ্রোহের প্রতিশব্দ মৃত্যু সেখানেই শেষ কথা নয়..  » «   শিল্প উদ্যোক্তা ও ক্রীড়া সংগঠক মো: জিল্লুর রাহমানকে  লন্ডনে সংবর্ধনা  » «   ঈদের সামাজিক গুরুত্ব ও বিলাতে ঈদের ছুটি   » «   ব্রিটেনে ঈদের ছুটি  প্রসঙ্গে  » «   হজের খুতবা বঙ্গানুবাদ করবেন মাওলানা শোয়াইব রশীদ ও মাওলানা খলিলুর রহমান  » «   হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু, তাবুর শহর মিনায় হাজিরা  » «   ঈদের ছুটি : আমাদের কমিউনিটিতে সবার আগে শুরু হোক  » «   ঈদের দিনে বিলেত প্রবাসীদের মনোবেদনা  » «   বিলেতে ঈদ উৎসব এবং বাঙ্গালী কমিউনিটির অন্তর্জ্বালা  » «   জলঢুপে বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমান কেম্প  » «   তিলপাড়ায় বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «   করিমগঞ্জ দিবস  » «   ঈদের ছুটি চাই : একটি সমন্বিত উদ্যোগ অগণিত পরিবারে হাসি ফুটাতে পারে  » «   ট্রাক ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাণ গেল তিন বন্ধুর  » «   বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের বিনামূল্যে ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন


দুর্গাপুরে বেঁদে পরিবারের মাঝে চাল ও নগদ অর্থ বিতরণ করলেন রিক্সাচালক



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

নেত্রকোণার দুর্গাপুরে মানবতার ফেরিওয়ালা নামে খ্যাত রিক্সাচালক তারা মিয়ার দানের হাত বর্তমান করোনা প্রেক্ষাপটেও থেমে নেই। বিদ্যালয় গুলো বন্ধ থাকায়, এলাকার মাদরাসা গুলোতে কোরআন শরীফ বিতরণ করার পর দুর্গাপুর পৌরএলাকায় অবস্থিত অভুক্ত থাকা বেঁদে সম্প্রদায়ের ১৫টি পরিবারের মধ্যে চাউল ও নগদ অর্থ বিতরণ করেছেন। শুক্রবার দুপুরে বিরিশিরি পিসিনল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে অবস্থানরত বেঁদে সম্প্রদায়ের হাতে এ চাউল বিতরণ করা হয়।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে স্কুল শিক্ষক আশরাফ উদ্দিন, মানবাধিকারকর্মী সুমন রায়, ব্যবসায়ী রমিজ উদ্দিন সহ স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিগন উপস্থিত ছিলেন।

রিক্সাচালক তারা মিয়া ৫২ বাংলা টিভিকে বলেন, দীর্ঘ পাঁচ বছর যাবত রিক্সা চালানোর উপার্জন থেকে প্রতি মাসেই কিছু কিছু টাকা দিয়ে জমিয়ে এলাকার বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয় ও মাদ্রাসায় শিক্ষা উপকরন বিতরন করে আসছি। আমি ছোট বেলায় টাকার অভাবে পড়াশুনা করতে পারিনি বিধায় প্রতিমাসেই দরিদ্র শিক্ষার্থীদের এ সহযোগিতা করে থাকি। বর্তমান করোনা প্রেক্ষাপটে সবাই কিছু না কিছু কাজ করলেও বেঁদে সম্প্রদায় তেমন কোন কাজ না করতে পেরে অভুক্ত থাকছে। এ বিষয়টি আমার কষ্ট লেগেছে। তাই প্রত্যেক পরিবারকে আমার কষ্টার্জিত। উপার্জন থেকে ৫কেজি করে চাউল ও নগদ অর্থ বিতরণ করেছি।


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন