শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
জীবন যেখানে দ্রোহের প্রতিশব্দ মৃত্যু সেখানেই শেষ কথা নয়..  » «   শিল্প উদ্যোক্তা ও ক্রীড়া সংগঠক মো: জিল্লুর রাহমানকে  লন্ডনে সংবর্ধনা  » «   ঈদের সামাজিক গুরুত্ব ও বিলাতে ঈদের ছুটি   » «   ব্রিটেনে ঈদের ছুটি  প্রসঙ্গে  » «   হজের খুতবা বঙ্গানুবাদ করবেন মাওলানা শোয়াইব রশীদ ও মাওলানা খলিলুর রহমান  » «   হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু, তাবুর শহর মিনায় হাজিরা  » «   ঈদের ছুটি : আমাদের কমিউনিটিতে সবার আগে শুরু হোক  » «   ঈদের দিনে বিলেত প্রবাসীদের মনোবেদনা  » «   বিলেতে ঈদ উৎসব এবং বাঙ্গালী কমিউনিটির অন্তর্জ্বালা  » «   জলঢুপে বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমান কেম্প  » «   তিলপাড়ায় বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «   করিমগঞ্জ দিবস  » «   ঈদের ছুটি চাই : একটি সমন্বিত উদ্যোগ অগণিত পরিবারে হাসি ফুটাতে পারে  » «   ট্রাক ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাণ গেল তিন বন্ধুর  » «   বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতালের বিনামূল্যে ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন


নিউ বসুন্ধরা রিয়েল এস্টেটের প্রতারনায় মোংলার ৭ শতাধিক পরিবার এখন নিঃস্ব



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

মোংলা উপজেলার চাঁদপাই ইউনিয়নের কাইনমারী গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল মালেক (৭০)। চার সন্তান আর স্ত্রী সহ পরিবার পরিজন নিয়ে এক সময় বেশ ভালই ছিলেন তিনি। উপজেলা পরিষদের সামনে নিজের প্লট ও দোকান ছিল তার। তার আয়ের উৎস ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের দিকে নজর পড়ে নিউ বসুন্ধরা রিয়েল এস্টেট নামের একটি প্রতারক চক্রের। তাদের প্রলোভনে পড়ে ১০ লাখ টাকায় বিক্রি করেছেন দোকানের প্লট। আর এ জমানো টাকা তুলে দিয়েছেন ওই চক্রটির হাতে। মাত্র দু’বছরের ব্যবধানে নিঃস্ব হয়ে এখন পথে বসেছেন তিনি। পরিবার পরিজন সহ আশ্রয় নিয়েছেন অন্যের ভিটায়।

পৌর শহরের কেওড়াতলার বাসিন্দা ছেতারা বেগম (৬৫)। স্বামী-সন্তান নেই এই নারীর। অন্যের বাড়িতে ঝি এর কাজ করে পেট চলে তার। দু’এক পয়সা করে ১০ বছরের হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রমে ৫০ হাজার টাকা গুছিয়ে ছিলেন তিনি। তার কষ্টের সমুদয় অর্থ ফুঁসলিয়ে নেয় ওই একই চক্রটি। এখন টাকার অভাবে তার চিকিৎসা হচ্ছে না। চরম দুশ্চিন্তা- হতাশা আর মানবেতর দিন কাঁটছে ওই বৃদ্ধার ।

শহরতলীর কলেজ মোড় এলাকার বিধবা জোহরা বেগম (৬০) বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে কাপড় বিক্রি করেন। একটি এনজিও থেকে লোন নিয়ে এবং ব্যবসার টাকা মিলিয়ে দু’লাখ টাকা জমা রেখে ছিলেন নিউ বসুন্ধরা রিয়েল এস্টেট নামের ওই প্রতিষ্ঠানে। শুধু এরাই নয়, মোংলার মধ্য ও নি¤œবিত্ত ৭ শতাধিক পরিবার ওই চক্রটির প্রতারণার জালে আটকা পড়েছে। আর বিভিন্ন প্রলোভনে তাদের কাছ থেকে হাতিয়ে নেয়া হয়েছে ৩০ কোটি টাকা।

এ প্রতিষ্ঠানের লোভনীয় অফারে আকৃষ্ট হয়ে জমি বিক্রি ও ব্যাংক লোন সহ জীবনের উপার্জিত অর্থ কড়ি হারিয়ে এখন নিঃস্ব হয়ে পথে বসেছেন অনেকে। কবে নাগাদ ফেরৎ পাবেন গচ্ছিত টাকা তাও কারোরই জানা নেই।

ভুক্তভোগীরা জানান, ২০১১ সালের প্রথম দিকে মোংলা উপজেলা ও পৌর এলাকায় নিউ বসুন্ধরা রিয়েল এস্টেট নামের এ প্রতিষ্ঠানের যাত্রা শুরু হয়। শুরুতে প্রতিষ্ঠানের নিয়োগকৃত দালালরা মধ্যবৃত্ত ব্যবসায়ী ও নি¤œ পেশার মানুষকে টার্গেট করে আকর্ষনীয় ও লোভনীয় অফার দিয়ে গ্রাহক সংগ্রহে মাঠে নামে। সুদ নয়, ফরজে হাসনা নামে ব্যাংকের চেয়ে দ্বিগুন লভ্যাংশ দেয়ার অফার দেয়। আর অল্প সময়ের মধ্যে ওই প্রতিষ্ঠানের প্রতারনার জালে আটকা পড়ে মোংলার ৭শ’পরিবার। আর এ প্রতিষ্ঠানে ৫০ হাজার থেকে ২ কোটি টাকা পর্যন্ত জমা রাখেন গ্রাহকদের কেউ কেউ।

২০১৮ সালের অক্টোবর পর্যন্ত গ্রাহকদের কাছ থেকে প্রায় ৩০ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয় এ প্রতিষ্ঠানটি। একই বছর নভেম্বরে হঠাৎ আত্মগোপনে যেতে শুরু করে স্থানীয় পর্যায়ে দায়িত্বে থাকা প্রতিষ্ঠানটির গ্রাহক সংগ্রহকারী দালালরা। আর যারা আছেন তারাও গ্রাহকদের গচ্ছিত টাকা ফেরত দিতে নানা অজুহাতে তালবাহানা করে চলছে। এ অবস্থায় গত বছর ১৫ জুলাই দুদকের মানি লন্ডারিং মামলায় আটক হয়ে কারাগারে রয়েছেন নিউ বসুন্ধরা রিয়েল এস্টেট নামের এ প্রতিষ্ঠানের মালিক আঃ মান্নান তালুকদার। প্রতিষ্ঠান প্রধান কারাগারে আর তার সহযোগী দালালরা আত্মগোপনে থাকায় এখন দিশেহারা হয়ে পড়েছেন গ্রাহকরা।

এদিকে নিউ বসুন্ধরা রিয়েল স্টেট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আব্দুল মান্নান তালুকদারের ৩০টি ব্যাংক একাউন্ট জব্দের আদেশ দিয়েছেন আদালত। গত সপ্তাহে আদালত একই সাথে তার ১০৮টি জমির দলিলের সম্পত্তি এবং চারটি গাড়ী ক্রোক করার আদেশ দিয়েছেন। বাগেরহাটের জেষ্ঠ্য বিশেষ জজ আদালতের বিচারক গাজী রহমান দীর্ঘ শুনানি শেষে এই আদেশ দেন।

আদালতের এ আদেশের পর শঙ্কার মধ্যে পড়েছেন মোংলার আমনতকারীরা। উপার্জিত অর্থকড়ি হারানোর আশংকা সহ মানবেতর দিন কাটছে বিনিয়োগকারীদের। কবে নাগাদ ফেরত পাবেন গচ্ছিত টাকা তাও কারোর জানা নেই।

গ্রাহক মোঃ লুৎফূল আলম বাবুল জানান, একটু স্বচ্ছল জীবন যাপনের আশায় জীবনের উপার্জিত সম্পদ ভিটা বিক্রি,অবসর ভাতা আর ব্যাংক লোন নিয়ে নিউ বসুন্ধরা রিয়েল এস্টেট নামের এ প্রতিষ্ঠানে গচ্ছিত রেখেছিলেন গ্রাহকরা। তিনি বলেন, নিউ বসুন্ধরার সম্পত্তি ক্রোকের আদেশের পর তাদের সঞ্চিত টাকার কি হবে তা নিয়ে উদ্বেগ আর হতাশা কাটছে না।


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন