বৃহস্পতিবার, ৪ জুন ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
অসমে ভূমিধসে তিন জেলায় মৃত্যু ২১জনের  » «   একটি লাশের দাফন ও ছাত্রলীগের ‘ওরা ৪১ জন’  » «   করোনা সংকটে বিয়ানীবাজার উপজেলার কসবা-খাসা গ্রামে পাশে দাড়ানো ব্যক্তি ও সংগঠন  » «   যদি কিছু মনে না করেন  » «   এক দিনে ২২৭ কর্মকর্তাকে চাকুরিচ্যুত করল প্রাইম লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি  » «   আদর্শের বিপরীতেই দাঁড়িয়ে যাচ্ছে আদর্শ  » «   করোনায় সৌদি প্রবাসী বাংলাদেশিদের অসহায়ত্ব  » «   সোয়া ছয় কোটি মানুষের হাতে সরকারের ত্রাণ  » «   শারজাহর মসজিদগুলিতে পরিচ্ছন্নকরণ অব্যাহত  » «   ‘আলোকিত ৯৫ মাদারীপুর’ এর প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ২০২০ উদযাপন  » «   পরিবহন কল্যাণ তহবিলের টাকা নিয়ে সিলেটে শ্রমিকদের মধ্যে সংঘর্ষ, ভাঙচুর  » «   আমিরাত নিউজ এজিন্সিতে বাংলা ভাষা সংযুক্ত করা হয়েছে  » «   নিজ খরছে দেশে যেতে ইচ্ছুক প্রবাসীদের তালিকা করা হবে  » «   করোনা থেকে বাঁচতে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকার আহ্বান পরিবেশমন্ত্রীর  » «   লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশি হত্যা: মানব পাচারকারী চক্রের হোতা হাজী কামাল গ্রেফতার  » «  

প্রবাসী লুৎফুর রহমান ও ভাড়াটিয়াদের  রমজানের আনন্দ



আল্লাহর সৃষ্টি সেরা জীব হল মানুষ। আমাদের চারপাশের মানুষ রুপি অনেকের দেখা মিললেও  প্রকৃতপক্ষে তারা মানুষ কি না তা সন্দেহ থেকে যায়।ব্যক্তিগতভাবে মনে করি- মানুষ হল সে, যার মধ্যে  মানবতা আছে । যার হৃদয় অন্যের বিপদে কাদে। যে অন্যের বিপদে নিজেকে  বিলিয়ে দেয় । যার বোধে  নীতি- নৈতিকতা আছে । এই নীতি- নৈতিকতা ও মানবিক গুণ সম্পন্ন মানুষ গুলোকে আমরা দেখতে পাই যখন মানুষ অথবা প্রকৃতির উপর কোনো দুর্যোগ, মহামারী আসে, তখন।

বর্তমান সময় বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাসের ভয়াবহতার যে প্রভাব দেখা দিয়েছে তাতে  বিশ্বের শক্তিশালী রাষ্ট্রগুলো দিশেহারা,  মহাক্ষমতাধর  রাষ্ট্র নায়ক বা রাষ্ট্রপ্রধান বলে নিজেকে জাহির করা সরকার প্রধানরাও স্পষ্টত শতভাগ কাবু হয়ে আছেন।তাদের মুখে  এখন কোন যুক্তি নেই। কাজে কোন সাহস নেই। বলতে গেলে বিশ্বে সকল প্রকার অন্যায়, অবিচার, দাম্ভিকতার কলকাটি নাড়া বিশ্বমোড়লরা করোনার কাছে আত্নসমর্পণ করেই আছেন।

কোভিক ১৯ থেকে নিরাপদ থাকতে মানুষ যখন কর্মহীন ঘরবন্দি। ঠিক তখনি যারা এই অসহায় মানুষের পাশে বিভিন্নভাবে সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছেন- তারা-ইতো প্রকৃত মানুষ। তাদের  প্রতি অশেষ কৃতজ্ঞতা ।

ব্রিটেনে প্রায় দুইমাস যাবৎ গৃহবন্দি অবস্থায় বসবাস করছি।  সরকার থেকে সবধরনের সহযোগিতা পাচ্ছি। ঠিক তখনি, বিশ্বব্যাপী অনেক দেশের গৃহবন্দি মানুষগুলো প্রকৃত পক্ষে খুব অসহায় অবস্থায় আছেন । বিশেষ করে আমাদের জন্মভূমি বাংলাদেশে নিন্ম ও মধ্যবিত্ত মানুষ অনেক করুণ সময় পার করছেন ।

বাংলাদেশে লকডাউন চলাকালীন বর্তমান এই সময়ে সরকার , প্রবাসী বাংলাদেশী,  বিভিন্ন সংগঠন সহ দেশের বিত্তবানরা দেশের নিম্নবিত্ত শ্রেণীর  জনগণকে তাদের সাধ্যমত যে সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে তা সন্তোষজনক হলেও দেশের নিম্নবিত্ত জনগোষ্ঠির বাহিরেও যে মধ্যবিত্ত শ্রেণীর একটি বড় অংশ রয়েছে যারা শহর কেন্দ্রিক বসবাস করে; তারা এই মুহূর্তে সবচেয়ে বেশী অসহায়।

এই মধ্যবিত্ত শ্রেণীর লোকজন  শহর কেন্দ্রিক বসবাস করে বাসা ভাড়া নিয়ে। তারা কেউ হয়তো বেসরকারি স্কুল শিক্ষক, সাংবাদিক, বেসরকারি অফিসের তৃতীয় শ্রেণীর কর্মচারী, সাধারণ  দোকানদার  এই সমপর্যায়ের পেশা নিয়ে আছে । যাদের মাসিক আয়ে টানাপোড়নের মধ্য দিয়ে কোনোরকম সংসার চলে । শহর কেন্দ্রিক বসবাস করা  কর্মজীবী মধ্যবিত্ত  শ্রেণীর  মানুষ আজ সবচেয়ে বিপাকে।  তারা না পাচ্ছে সরকার থেকে সহযোগিতা। না পারছে কারো কাছে চাইতে। এই বিষয়টি হয়ত আমাদের অনেকেরই উপলদ্ধিতে আসছে না।

লকডাউন সময়ে দেশ- বিদেশের অনেক বন্ধ-স্বজনরা ফোন দিচ্ছেন। ফোন করছিও।  গতকাল আমার বন্ধু দুবাই প্রবাসী ব্যাবসায়ী লুৎফুর রহমানের সাথে  কথা হয় । এই সময়ে, যে কারো সাথে কথা বললে- প্রথমেই  করোনা বিপর্যয়ের কথা  আসে। কথা প্রসঙ্গে  এই সময়ে  আমাদের করণীয় কী- তা নিয়েও কথা হয়। বন্ধু লুৎফুরের সাথেও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি।

লুৎফুর রহমান প্রচার বিমুখ মানুষ। শান্ত এবং ধীর স্বভাবের। দীর্ঘদিন থেকে  তার সাধ্যমত নিজ এলাকাসহ অন্যান্য এলাকায়  অসহায় মানুষদের সহায়তা করে আসছে । বর্তমান করোনা বিপর্যয়েও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি।

কথা প্রসঙ্গে জানলাম, বাংলাদেশে তার বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত কর্মচারীদেরকে বিভিন্ন সুবিধা দিচ্ছেন। সিলেট উপশহরে এফ ব্লকে অবস্থিত তার ইমরান টাওয়ারে এগারোটি ফ্লাট রয়েছে। পবিত্র  রমজান মাস ও করোনা বিপর্যয়ের এই কঠিন সময়ে বন্ধু লুৎফুর তার সব কটি ফ্লাটের ভাড়া মওকুফ করে দিয়েছেন ।

এ ছাড়াও সিলেট শহরের শিবগঞ্জে অবস্থিত তার মালিকানাধীন  “মেজওয়ান বাড়ী” রেষ্টুরেন্ট ও পার্টি সেন্টার দেশে যতদিন লকডাউন চলবে, ততদিন পর্যন্ত এর সম্পূর্ণ ভাড়াও মওকুফ করে দিয়েছেন।

উল্লেখ্য  “মেজওয়ান বাড়ী” রেষ্টুরেন্ট ও পার্টি সেন্টারের মাসিক ভাড়া নব্বই হাজার টাকা । আর এগারোটি ফ্লাটের মাসিক ভাড়াও লক্ষাধিক। দুবাই প্রবাসী বন্ধু লুৎফুর রহমানের মানবিক এই কাজটি নিঃসন্দেহে প্রশংসার দাবি রাখে ।

লুৎফুর রহমানের মতো ধন্যাট্য আমাদের সমাজে অনেক আছেন। আমাদের জন্মভূমি প্রবাসী অধ্যুষ্যিত সিলেটে  এই সংখ্যা ভুরি ভুরি। অনেক প্রবাসীর বাসা, দোকানের টাকা মাসে মাসে নিদৃষ্ট একাউন্টে শুধু জমা হচ্ছে। প্রবাসে আছেন বিধায়, সেই টাকা খরচেরও উপলক্ষ বা প্রয়োজনীয়তা পড়ে না সব সময়। দেশেও যাওয়া হয় না নিয়মিত। আমার বিশ্বাস, বাংলাদেশের অগণিত ধনাট্য ব্যক্তি ও পরিবার সব জেলাতে রয়েছেন এবং অনেকে প্রবাসেও আছেন। এই রকম অবস্থা অন্যান্য শহরেও আছে।

            ছবি:সংযুক্ত আরব আমিরাত প্রবাসী লুৎফুর রহমান

করোনা মহামারি সময়ে একটা বিষয় বিশ্বের মানুষের কাছে  পরিস্কার করে দিয়েছে যে দুর্যোগ, বিপদ আসলে জাতি, ধর্ম, বর্ণ , গোত্র নির্বিশেষে আসে। এখানে প্রবাবশালী, ক্ষমতাবান, বিত্তবান, দরিদ্র বলে নিদৃষ্ট কোন সীমা -পরিসীমা নেই।

তবে এখানে আরও একটি বিষয়ও স্পষ্টভাবে প্রকাশ পাচ্ছে বিশ্বব্যাপী তা হলো- মানুষের ভেতরের মানুষকে দেখার ও বুঝার সুযোগ। মানুষের মানবিক হৃদয় প্রস্ফুটিত না হওয়ার অন্ধকার দিক। পাশাপাশি মানবিকতা জেগে উঠলে তা গোটা সমাজে কীভাবে আলোকিত হয়- সেই দিকটিও।

করোনা দুর্যোগে  বিত্তশালীদের  যে পথে হাটা  উচিত , বন্ধু লুৎফুর সে পথেই হাটছে। আমি বিশ্বাস করি, এপথের পথিক সংখ্যাগরিষ্টের হওয়া এই সময়ে খুব জরুরী। আসুন, যার যার অবস্থান থেকে অসহায় বিশেষ করে মধ্যবিত্ত ভাড়াটিয়াদের প্রতি মালিক পক্ষ একটু সদয় হই। সহানুভূতির হাত প্রসারিত করলে মন ও বিত্ত-বৈভব কমে না- এই কথা সৃষ্টিকর্তা ধর্মগ্রন্থে অনেক বার  উল্লেখ করেছে।

প্রবাসী লুৎফুর রহমান-মানবিক এই কাজের জন্য  অভিনন্দন এবং কৃতজ্ঞতা। ইতিহাসে করোনা কাল যেমন অমর থাকবে, তেমনি তোমার মানবিকতা ও মহানুভবতা অন্তত কয়েশত মানুষের মনে আমৃত্যু হাসি ছড়িয়ে মনে থাকবে।

সরবে নিরবে যারা এইরকম কাজ করছেন, তাদের সকলের প্রতি অভিনন্দন, শুভেচ্ছা। এই মহামারীতে মানুষ মানুষের পাশে থাকুক- প্রার্থনা।

ছরওয়ার আহমদ: স্যোসাল এক্টিভিস্ট, সাবেক ভিপি ; বিয়ানীবাজার সরকারী কলেজ।

আরও পড়ুন:

করোনা মহামারিতে জেগে উঠুক মানবিকতা