বুধবার, ১ এপ্রিল ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ১৮ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
স্পেনে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা এক লক্ষ ছাড়িয়ে গেছে  » «   করোনা ভাইরাসের সময় পর্তুগাল প্রবাসিদের মানবিক উদ্যোগ  » «   চলমান সংকটে এবার বাড়ি ভাড়া মওকুফের ঘোষণা দিলেন কাতার প্রবাসী মোহাম্মদ আলী  » «   গত ২৪ ঘণ্টায় সৌদি আরবে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১৫৭জন  » «   করোনা ভাইরাসের এ সময়ে কেমন আছেন গ্রীসের বাংলাদেশিরা?  » «   ইতালি : জীবন যেখানে থেমে আছে  » «   কুয়েতে মোট ২৮৯ জন করোনা আক্রান্ত তাদের ৫ জন বাংলাদেশি  » «   স্পেনে দ্রুত বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা  » «   আমিরাতে গত ২৪ ঘণ্টায় ৫৩ জন আক্রান্ত, ১ জনের মৃত্যু  » «   তবুও সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখুন  » «   আমিরাতের রেসিডেন্স ভিসা ১ মার্চ যাদের শেষ হয়েছে জরিমানা ছাড়াই ৩ মাসের মধ্যে নবায়নের সুযোগ  » «   ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের অসমসহ পাঁচটি রাজ্য এখনও করোনামুক্ত  » «   ইতালি-স্পেনে করোনায় মৃত্যু: ফ্রান্স প্রবাসীরা আতঙ্কিত  » «   করোনার মহাবিপর্যয়ে বিয়ানীবাজারে সিপিবি’র কন্ট্রোল টিম গঠন  » «   করোনায় লকডাউন সময়ে দুস্থদের পাশে মানবিক সংগঠন পারি  » «  

করোনা মোকাবেলা করতে বাংলাদেশের কাছে চিকিৎসা সরঞ্জাম চেয়েছে আমেরিকা-পররাষ্ট্রমন্ত্রী




দিনদিন মহামারী আকার ধারণ করছে করোনা ভাইরাস।যা মোকাবেলায় যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশ বাংলাদেশের কাছে মেডিকেল সরঞ্জাম চেয়েছে বলে জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন।

তিনি বলেন,মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তাদের দেশে মেডিকেল ইকুইপমেন্ট পাঠানোর জন্য আমাদের কাছে অনুরোধ করেছে।
মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গণমাধ্যমে পাঠানো এক ভিডিও বার্তায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কথা জানান।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন,বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস মহামারী আকার নেয়ায় প্রত্যেক দেশেই করোনাভাইরাস সংক্রান্ত মেডিকেল ইকুইপমেন্টের চাহিদা খুব বেড়েছে।কয়েকটি দেশ তাদের দেশে এই মেডিকেল ইকুইপমেন্ট দেয়ার জন্য আমাদের অনুরোধ করেছে।এমনকি স্বয়ং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রও তাদের দেশে চিকিৎসা সরঞ্জাম পাঠানোর জন্য আমাদের কাছে অনুরোধ করেছে।আমাদের ব্যবসায়িক মহল তাদের অনুরোধ বিবেচনা করছে।

তিনি বলেন, সৌভাগ্যের বিষয় এই যে, আমাদের দেশে অনেক ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান এগুলো তৈরির কাজে প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন।

চীন থেকে চিকিৎসা সামগ্রী আসছে জানিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন,আমাদের স্বাধীনতার দিন অর্থাৎ ২৬ মার্চ চীন সরকার তাদের প্রতিশ্রুত দশ হাজার টেস্টিং কিটস এবং দশ হাজার প্রটেকটিভ গাউন এবং এক হাজার ইনফ্রারেড থার্মোমিটার আমাদের গিফট হিসেবে হস্তান্তর করবে।এবং দুই দিন পর আরো ১৫ হাজার এন ৯৫ মাস্ক হস্তান্তর করবে।

করোনার কারণে দেশের অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে জানিয়ে এ কে আবদুল মোমেন আরও বলেন, সংক্রমণের কারণে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের বাজারে পণ্যসামগ্রী রফতানিতে বড় ধরণের আঘাত এসেছে। ইতিমধ্যে বিজিএমইএর তথ্যমতে দুই বিলিয়ন ডলারের রফতানি মূল্য থেমে গেছে এবং কয়েক লাখ শ্রমিক বেকার হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।

এ ছাড়াও করোনাভাইরাসের কারণে আমাদের রেমিট্যান্স প্রবাহ বাধাগ্রস্ত হতে পারে বলে তিনি মনে করেন।