রবিবার, ৩ জুলাই ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
বিলেতে কারী শিল্পে ঈদের ছুটি সময়ের দাবি  » «   ঈদের ছুটি  » «   ইউরোপে জ্বালানি সংকট চরমে, বিকল্প ভাবতে হচ্ছে ইউরোপকে  » «   হাইডে প্রবীণদের স্মরণে আলোচনা ও দোয়া মাহফিল  » «   ঈদের দিন হোক সবার উৎসবের দিন  » «   ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন হসপিটাল সিলেটের সার্টিফিকেট বিতরণী অনুষ্ঠিত  » «   নেদারল্যান্ডস বাংলাদেশী সমিতি’ ইউকে’র যাত্রা শুরু  » «   ব্রিটেন প্রবাসে ঈদ ছুটি নিয়ে ভাবনা ও আমাদের করণীয়  » «   ঈদে ছুটি নাই  » «   কমিউনিটি ও পরিবারের স্বার্থকে প্রাধান্য দিলে ঈদের ছুটি নিয়ে দ্বি-মত থাকবে না- শায়খ আব্দুল কাইয়ুম  » «   ব্রিটেনে ঈদ হলিডে : আকাঙ্ক্ষা ও বাস্তবতা  » «   দয়া নয়, ঈদের ছুটি শ্রমজীবি মুসলমানদের অধিকার  » «   ব্রিটেনে ঈদের ছুটি নিয়ে কমিউনিটি ও মানবাধিকার নেতারা যা বলেন  » «   বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতাল কর্তৃক বন্যা দুর্গতদের চিকিৎসার্থে বিনামূল্যে ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «   যুক্তরাজ্যে ঈদের ছুটির দাবীতে  আলতাব আলী পার্কে সমাবেশ অনুষ্ঠিত  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন


বিমান বন্দরে তথাকথিত ভিআইপি ও দলিত লজ্জা  



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

বিগত কয়েক বছর থেকে থেকে সিলেট বিমান বন্দরে তথাকথিত   ভিআইপিদের আনাগোনা দেখে মনে হয়- কিয়ামত খুব  সন্নিকটে । কিয়ামতের কিছু লক্ষণের মধ্যে একটি লক্ষণ  হলো- পৃথিবীতে এমন একসময়  আসবে যখন, সমাজের অপদার্থদের কারণে গুণীজনরা আত্নমর্যাদা রক্ষার্থে নিজ স্থান বা অবস্থান ত্যাগ করে পালিয়ে বেড়াবে এবং অপদার্থরা গুণীজনের স্থান দখল করে বসবে।

বিমান বন্দরের ভিআইপি প্রোটোকল রাষ্ট্র অতি গুরুত্বপূর্ণ ও বিদেশী গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের পাওয়ার কথা থাকলেও বিগত কয়েক বছর থেকে ভিআইপি প্রোটোকল পাচ্ছেন- রিক্সার ড্রাইভার, ঠেলাগাড়ির ড্রাইভার, তান্দুরী শেফ, বোচার ও বিদেশে থাকা তথাকথিত বাটপাররাজনৈতিকনেতারা। বিমান বন্দরের নীতি অনুসারে উল্লেখিত শ্রেণির লোক ভিআইপি প্রোটোকলের আওতায় না পড়লেও তাদেরকে ভিআইপি’র সকল  ধরনের সুবিধা পাইয়ে দেয় -বাংলাদেশে থাকা কিছু সুবিধাভোগী চরিত্রহীন  তথাকথিত রাজনৈতিক নেতা নামক দালাল ।

জানা যায় উল্লেখিত শ্রেণির লোকেরা যখন বিদেশ থেকে দেশে যাবার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে তখন, নিজেকে একজন গুরুত্বপূর্ণ  ব্যক্তি হিসাবে সমাজে  প্রকাশ করতে প্রাথমিক প্রদক্ষেপ হিসেবে বিমান বন্দরে ভিআইপি প্রোটোকল নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়! আর এই মনোবাসনা পূর্ণ করতে যোগাযোগ করতে হয় দেশে অবস্থানরত সুবিধাভোগী বাটপার, তথাকথিত রাজনৈতিক নেতাদের সাথে । দেশে অবস্থানরত দালালদের জন্য দামী উপঢৌকন অথবা নির্দৃষ্ট পরিমাণ অর্থের প্রতিশ্রুতি হলে ব্যবস্থা হয়ে যায় ভিআইপি প্রোটোকল । এই অবস্থায় রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা  আত্নমর্যাদা রক্ষার্থে  সিলেট বিমান বন্দরে দীর্ঘ দিন থেকে ভিআইপি প্রোটোকল নেয়াকে সঙ্কোচ বোধ করছেন । যেখানে গুরুত্বপূর্ণ মানুষের গুরুত্ব পাওয়ার কথা সেখানে, তারা গুরুত্ব পাচ্ছে  না ।

কথায় আছে যে সমাজে গুণীজনের  সম্মান নেই সেই সমাজে গুণীজন জন্মায় না । বিমান বন্দরে এই অবস্থা চলতে থাকলে আমাদের আগামী প্রজন্মের জন্য এক অশনি সংকেত বয়ে আনবে । এ থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার দীর্ঘদিনের আকাঙ্ক্ষা সিলেটের সচেতন জনগণের ।

নিরুপায় জনগণ  দীর্ঘদিন হতাশার সাগরে ভাসলেও  কিছুটা আশার সঞ্চার করেছিল হাইকোর্টের  একটি রায় । গত  কয়েকমাস পূর্বে একজন যুগ্ম -সচিবের জন্য মাদারিপুর কাঁঠালবাড়ী ঘাট থেকে তিন ঘণ্টা দেরিতে ফেরি ছাড়ার কারণে মাথায় গুরুতর আঘাত পাওয়া নড়াইলের কালিয়া পৌর এলাকার একটি স্কুলের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র তিতাস ঘোষ  ( এগারো ) মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণে মারা যায় । এর পরিপ্রেক্ষিতে  মানবাধিকার সংগঠন- লিগ্যাল সাপোর্ট অ্যান্ড পিপলস রাইটসের চেয়ারম্যান সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো. জহিরুদ্দিন মিলন  মৃত তিতাসের ক্ষতি পূরণ চেয়ে হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন।  বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহসান ও বিচারপতি  কে এম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে রিট শুনানি হয় । রিট শুনানির পর হাইকোর্ট বলেছেন- এখন থেকে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী ছাড়া আর কেউ ভিআইপি নয় ।

এই রায়ের পর মাসখানেক সিলেট বিমান বন্দরে ভুয়া  ভিআইপিদের আনাগোনা কমলেও  প্রথম আইনকে অবজ্ঞা করে ভিআইপি সুবিধা ভোগ করেন  ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয়  সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন। বিমান বন্দরে তার উপস্থিতিতে তার কর্মী সমর্থকরা  বিমান বন্দরের সকল নিয়ম নীতি উপেক্ষা করে বিমানের পাশে গিয়ে তাকে স্বাগত জানায় । এই সংবাদটি ছাত্রলীগের সাংগঠনিক নেত্রী মাননীয়  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কানে পৌঁছালে তিনি ক্ষোব্ধ হোন। ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভনের  অন্যান্য অনৈতিক কর্মকান্ড সহ সিলেট বিমান বন্দরে ভিআইপি সুবিধা ভোগের কারণে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয়  সভাপতির পদ থেকে তাঁকে অব্যাহতি দেন। এই ঘটনার পরও থামেনি বিমান বন্দরে ভুয়া ভিআইপিদের সুবিধা ভোগ । আর এই কাজটি করে যাচ্ছে বিমান বন্দরের কিছু অসাধু  কর্মচারী  ও তথাকথিত  রাজনৈতিক নেতারা ।

এই  সমস্যা থেকে উত্তরণের জন্য প্রয়োজন রাজনৈতিক নেতিত্রীবৃন্দের সচেতনতার। আইন সবার জন্য সমান- এই কথাটি জনগণকে সবচেয়ে বেশী বলেও বেড়ান বাংলাদেশের রাজনৈতিক নেতারা। আইন প্রথমে নেতাকে মানতে হবে । তারপর তা অনুসরণ করবে তার অনুসারী কর্মী ও জনগণ ।

বিমান বন্দরে অনৈতিক ভিআইপি সুবিধা ব্যবহারের ক্ষেত্রে দিন দিন মানুষের যে অসন্তোষ ও ক্ষোভ সৃষ্টি হচ্ছে ,সেখানে মানুষের মনে আশার সঞ্চার ঘটালেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নব নির্বাচিত সাংগঠনিক সম্পাদক  শফিউল আলম চৌধুরী  নাদেল । সম্প্রতি  বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণার পর ঢাকায় অবস্থানরত নাদেল যখন ঘোষণা দিলেন  তিনি -ত্রিশ ডিসেম্বর বিমান যোগে সিলেট আসছেন। তার এই শুভ আগমনের বার্তায় আনন্দিত সিলেট জেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের অসংখ্য নেতা-কর্মী তাকে পূণ্যভূমি সিলেটে স্বাগত জানতে সিলেট বিমান বন্দরের  ভিআইপি লাউঞ্জে অবস্থান করছিলেন ।

কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নব নির্বাচিত সাংগঠনিক সম্পাদক  শফিউল আলম চৌধুরী  নাদেল নির্ধারিত ফ্লাইটে  নির্ধারিত সময়ে সিলেট বিমান বন্দরে পৌছালেও তিনি ভিআইপি লাউঞ্জে অপেক্ষারত নেতৃবৃন্দের দিকে না গিয়ে আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থেকে সাধারণ যাত্রীদের পথ অনুসরণ করে বিমান বন্দর থেকে বেরিয়ে আসেন । এতে বিস্মিত হয়েছেন- ভিআইপি লাউঞ্জে অপেক্ষারত আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মী ও শুভাকাঙ্খিরা । সকলের মনে একটি প্রশ্ন ছিল যে,  পাতিনেতারা  ভিআইপি লাউঞ্জ ব্যবহার করলেও শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল কে নয়! বর্তমান এই হযবরল পরিস্থিতিতে জনাব নাদেল ভিআইপি  কৌটায় না পড়লেও তিনি ইচ্ছা করলে ভিআইপি সুবিধা ভোগ করতে পারতেন । কিন্তু আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থেকে ভিআইপি লাউঞ্জ ব্যবহার না করে সাধারণ যাত্রীদের সাথে বেরিয়ে তিনি একটি উদাহরণ সৃষ্টি করেছেন । যা  বর্তমান বাংলাদেশের আর্থসামাজিক অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে নিঃসন্দেহে একটি ইতিবাচক দিক । এই উদাহরণ জনাব নাদেলকে সম্মানের আরো উচ্চ আসনে নিয়ে গেছে বলে  অগণিত মানুষ মনে করে।

বিমান বন্দরের ভিআইপি লাউঞ্জ সহ সর্ব ক্ষেত্রে নেতারা যদি এভাবে আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হোন তাহলে, নেতার যেমন জনগণের কাছে  শ্রদ্ধাশীল হবেন তেমনি সর্বক্ষেত্রে  তাদের অনুসারী ও জনগণ আইন মানতে উৎসাহিত হবেন ।

লন্ডন,জানুয়ারি,দুই হাজার বিশ।

ছরওয়ার আহমদ: স্যোসাল এক্টিভিস্ট, সাবেক ভিপি ; বিয়ানীবাজার সরকারী কলেজ।


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

"এই বিভাগে প্রকাশিত মতামত ও লেখার দায় লেখকের একান্তই নিজস্ব " -সম্পাদক