শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
আজিজুর রহমান চৌধুরি স্মারক সম্মাননায় ভূষিত বাংলাদেশের স্থপতি ও লেখক, নাট্যকার শাকুর মজিদ  » «   কেসি সলিসিটর্সের দশক পূর্তি উদযাপন  » «   বঙ্গবন্ধু স্কলারশিপ আন্তর্জাতিক অঙ্গণে বাংলাদেশের উন্নয়নের প্রতিচ্ছবি  » «   লীলা নাগের স্মৃতি রক্ষায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় উদ্যোগ নেবে  » «   ফুসফুস-ক্যান্সার পরীক্ষার জন্য মাইল এন্ড লেজার সেন্টারে স্থাপন করা হচ্ছে বিশেষ ‘স্ক্রিনিং মেশিন’  » «   অলি-মিঠু-টিপু প্যানেলের পরিচিতি ও ইশতেহার ঘোষণা  » «   ২০ নভেম্বর লন্ডনের রয়েল রিজেন্সিতে ৫ম বেঙ্গলী ওয়েডিং ফেয়ার  » «   একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির যুক্তরাজ্য শাখা গঠিত  » «   টি আলী স্যার ফাউন্ডেশন সম্মাননা পেলেন সিলেটের ২৪গুণী শিক্ষক  » «   নওয়াগ্রাম প্রগতি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ফুল, ফল ও ঔষধি বৃক্ষরোপণ  » «   আলোকিত মানুষ শিক্ষক মো. সমছুল ইসলাম এর ৬ষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী  » «   সিলেটের বিয়ানীবাজারে একটি পরিত্যক্ত কূপে তাজা গ্যাসের মজুদ আবিষ্কৃত  » «   বাংলাদেশী কারী  ব্রিটেনের প্রবৃত্তি ও খাবার সংস্কৃতিতে অনন্য  অবদান রাখছে  » «   পুরুষতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থায় নারীবাদের প্রতিবন্ধকতা  » «   রিষি সুনাক এশিয়ান বংশদ্ভোত, কনজারভেটিভ এবং ধনীদের বন্ধু  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন


লন্ডনে একাত্তরে চা বাগানে নারকীয় গণহত্যা নিয়ে আলোচনা
সিজন অব বাংলা ড্রামার আয়োজনে ছান্দসিকের পরিবেশনা



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

পূর্ব লন্ডনের কবি নজরুল সেন্টারে টাওয়ার হ্যামলেটস এর সিজন অব বাংলা ড্রামার আয়োজনে আবৃত্তি সংগঠন- ছান্দসিক পরিবেশন করেছে ‘জেনসাইড ইন টি এস্টেটস ইন নাইনটিন সেভেনটি ওয়ান।’

১6 নভেম্বর শনিবার পূর্ব লন্ডনের নজরুল সেন্টারে সন্ধ্যায় অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় সংগঠিত গণহত্যা নিয়ে অনুষ্ঠানে ছিল বীরাঙ্গনাসহ ৭১ সালের বিভীষিকা সময়ের ঘটনার পাঠ ও আলোচনা।

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ এবং যুদ্ধপরবর্তি সময়কে ধারণ করে ব্যতিক্রমি অনুষ্ঠানে মুনিরা পারভীনের সঞ্চালনায় বাংলাদেশ থেকে অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন – মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক অপূর্ব শর্মা। আলোচক ছিলেন- বীর মুক্তিযোদ্ধা ও যুক্তরাজ্যস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনের সাবেক প্রেস মিনিস্টার আবু মুসা হাসান ও মুক্তিযোদ্ধা, সাংবাদিক ইসহাক কাজল।

পহেলা নভেম্বরে শুরু হওয়া মাসব্যাপী এই নাট্য উৎসবে গবেষক অপূর্ব শর্মা  সিলেটে চা বাগানে পাক হানাদার বাহিনী কর্তৃক সংগঠিত গণহত্যা নিয়ে তার গবেষণা গ্রন্থ-‘চা বাগানে গণহত্যা-১৯৭১’ থেকে মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের ইতিহাস তার বক্তব্যে তুলে ধরেছেন।

মুক্তিযুদ্ধে প্রান্তিক জনগোষ্ঠির অবদান অনেক বেশী হলেও নানা কারণে তাদের অবদান এবং যুদ্ধসময়ের অনেক গুরুত্বপূর্ণ সাহসী, লোমহর্ষক ও বেদনাবিধুর ইতিহাস অজানা রয়ে গেছে। দীর্ঘ দশ বছরের গবেষণায় বইটিতে অপূর্ব শর্মা তুলে ধরেছেন- সিলেটে চা বাগানে সংগঠিত মুক্তিযুদ্ধ ও যুদ্ধপরবর্তী প্রাসঙ্গিক দিকগুলো।

মূলত এইসব ঘটনা থেকেই বর্ণনা করেছেন এই প্রধান অতিথি। দেশমাতৃকার স্বাধীনতার জন্য চা বাগানের যারা প্রাণ বিসর্জন দিয়েছেন, এখনও যারা বেঁচে আছেন অথবা ইতিহাসের সেইদিনগুলোর সাক্ষি হয়ে আছেন; তাদের অবদানকে তুলে ধরার দায়িত্ব বোধ থেকেই চা বাগানের গণহত্যা নিয়ে বই লিখেছেন- জানিয়ে  অপূর্ব শর্মা বলেছেন, নায্য সুযোগ সুবিধা থেকে এখনও বঞ্চিত রয়েছে প্রান্তিক এই জনগোষ্ঠি। মুক্তিযোদ্ধারা এখনও অবহেলিত। তাদের অবদানকে রাষ্ট্রিয় ও সামাজিকভাবে তুলে ধরা হয়নি। অথচ তাদের অবদান কোন অংশে কম নয়।

মুক্তিযোদ্ধা ও সাংবাদিক আবু মুসা হাসান বলেন, আজকের অনুষ্ঠানে ১৯৭১ সালে সিলেটে চা বাগানের বাসিন্দাদের উপর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর যে বর্বর নির্যাতনের কাহিনী শুনলাম, সেই ধরনের নির্মমতা সারা দেশেই ঘটেছে। মুক্তিযোদ্ধাদের আশ্রয় ও সহযোগিতা দেবার কারনে এবং যাদের আত্মীয় স্বজন যুদ্ধে গেছেন, সেই সকল পরিবারের উপর নির্যাতন হয়েছে সবচেয়ে বেশী। বাড়ী-ঘরে আগুন দিয়েছে, মা-বোনদের ধর্ষণ করেছে পাক বাহিনী ও তাদের দোসর রাজাকার, আলবদর। এই ধরণের অনুষ্ঠান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে জানার এবং দেশপ্রেমে উজ্জীবিত হতে বিরাট ভূমিকার রাখবে।

বিশিষ্ট সাংবাদিক , মুক্তিযুদ্ধা ইসহাক কাজল এর ২০০৬ সালে প্রকাশিত গবেষণা গ্রন্থ – ‘সুরমা উপত্যকার চা শ্রমিক আন্দোলন : অতীত ও বর্তমান’ বই থেকে স্বাধীনতা যুদ্ধে চা বাগানের শ্রমিকদের ইতিহাস তুলে ধরেন।  একজন শ্রমিকনেতা হিসাবে ইসহাক কাজল নিজের অভিজ্ঞতা তুলে ধরে বলেন-বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে চা শ্রমিকদের অনেক অবদান রয়েছে। বহু শ্রমিক মুক্তিযুদ্ধে শহীদ হয়েছেন। কিন্তু এই সকল যোদ্ধাদের আত্মদানের স্বীকৃতি নেই। চা বাগানের শ্রমিকরা এখনও নায্য অধিকার থেকে বঞ্চিত,যা খুবই বেদনার।

ছান্দসিক আয়োজিত অনুষ্ঠানে মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন ঐহিহাসিক,সাহসী, লোমহর্সক বেদনাবহ ঘটনা থেকে পাঠ করেন- মুনীরা পারভীন,শতরূপা চৌধুরী, রাজ দাস, সমভা বিশ্বাস, সাবরিনা এনি, তানভীর আহমেদ। আবহ সঙ্গীতে ছিলেন আমিন খান।

অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে দর্শকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন অপূর্ব শর্মা ও মুনীরা পারভীন।


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন