মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
ব্রিটেন নির্বাচনে ব্রেক্সিট না মানবিকতা?  » «   ব্রিটিশ-বাংলাদেশী রুশনারা আলী আবারও এমপি হচ্ছেন!  » «   মিয়ানমারকে বয়কটের ঘোষণা ৩০ মানবাধিকার সংস্থার  » «   ভয়েস অব বার্সেলোনার সান্তা কলমা শাখা কমিটি ঘোষনা  » «   ৫২ বাংলা টিভির মধ্যপ্রাচ্য টকশো ‘প্রবাসি সংযোগ’  » «   ১৭ দফা দাবিতে সিপিবি বিয়ানীবাজার উপজেলা শাখার উদ্যোগে পদযাত্রা অনুষ্ঠিত  » «   লালাবাজার ইউনিয়ন এডুকেশন ট্রাষ্ট ইউকে’র সম্মেলন ও নির্বাচন অনুষ্টিত  » «   ব্রিটিশ পার্লামেন্টের দিকেই হাঁটছেন আপসানা বেগম  » «   জিএসসি সাউথ ইস্ট রিজিওনের প্রায় আড়াই হাজার মেম্বারশীপ ফরম জমা  » «   আমিরাতে যুবলীগের নবনির্বাচিত কমিটিকে স্বাগত জানিয়ে আলোচনা সভা  » «   ওমানে ৫২ বাংলা টিম আমিরাতের মতবিনিময়  » «   জলবায়ু পরিবর্তন সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী: বিশ্বনেতৃবৃন্দের ঐক্যবদ্ধ কাজ করার আহবান  » «   জলবায়ু সম্মেলনে বাংলাদেশ প্যাভিলিয়নে পরিবেশবিদদের সাথে প্রধানমন্ত্রী  » «   ইতালীতে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি  » «   জলবায়ু সম্মেলনে শেখ হাসিনা বাংলাদেশ প্যাভিলিয়ন পরিদর্শন করেন  » «  

মুসলিম চ্যারিটি রান সম্পন্ন হয়েছে সফলভাবে



২২সেপ্টেম্বর রোববারের মুসলিম চ্যারিটি রান নিয়ে বেশ উদ্বিগ্ন ছিলেন আয়োজকরা।আবহাওয়ার পূর্বাভাষে বৃষ্ঠির সম্ভাবনা থকায় অনেকেই দ্বিধাদ্বন্দ্বে ছিলেন আদৌ রান হবে কি-না । কিন্তু সকল উদ্বীগ্নতা কেটেই ঐদিন ভিক্টোরিয়া পার্কের নির্ধারিত স্থান মানুষের পদচারনায় মুখরিত হয়ে ওঠে।

মূল প্রতিযোগিতা শুরু হওয়ার আগে ইস্ট লন্ডন মসজিদের ট্রাষ্টি সিরাজুল ইসলামের পরিচালনায় দীর্ঘক্ষণ চলে শরীরচর্চা।সকাল ১১টায় অংশগ্রহনকারী সকলেই গিয়ে দাঁড়ান স্টার্টিং পয়েন্টে। সোয়া এগারোটা বাজতেই বেজে উঠে হুইশেল। শুরু হয় ৫ কিলোমিটার দৌঁড়। মাত্র ১৫ মিনিট ৫৫ সেকেন্ডে পাঁচ কিলোমিটার রুট ঘুরে এসে প্রথম হওয়ার রেকর্ড গড়েন ইতিওপিয়ান বংশোদ্ভুত বৃটিশ মুসলিম সাইফু জামাল। তিনি হেলপ ইয়াতিম চ্যারিটি সংস্থার পক্ষে দৌড়ে অংশগ্রহণ করেন। অন্যান্য বিজয়ীরাও আধঘন্টার আগেই পাঁচ কিলোমিটার পথ ঘুরে আসেন। আর এভাবেই ইস্ট লন্ডন মসজিদ ও বিভিন্ন চ্যারিটির জন্য হাজার হাজার পাউন্ড সংগ্রহ করেন অংশগ্রহণকারীরা।

২০১২ সালে শুরু হওয়া এই চ্যারিটি রান প্রথম তিন বছর ‘রান ফর ইউর মস্ক’ নামে পরিচালিত হয়। সাফল্যের ধারাবাহিকতায় ২০১৫ সালে কিছু পরিবর্তন এনে ক্যাম্পেইনের নামকরণ করা হয় মুসলিম চ্যারিটি রান। বিগত দিনে শুধু ইস্ট লন্ডন মসজিদের জন্য অর্থ সংগ্রহ করা হতো। আর মুসলিম চ্যারিটি রান নামকরণের পর থেকে ইস্ট লন্ডন মসজিদের জন্য ফান্ডরেইজিংয়ের পাশাপাশি অন্যান্য চ্যারিটি সংস্থার জন্যও ফান্ডরেইজ করছেন অংশগ্রহণকারীরা।

এবারের চ্যারিটি রানে ৩১টি চ্যারিটি সংগঠন অংশগ্রহণ করছে। চ্যারিটিগুলো হচ্ছে, ইস্ট লন্ডন মসজিদ, ইন্টারপাল, মুনতাদা এইড, প্যানি অ্যাপিল, লুইশাম ইসলামিক সেন্টার, লনলী অরফান, মুসলিম কাউন্সিল অব বৃটেন, মুসলিম এইড, গ্লোবাল রিলিফ ট্রাস্ট, মুসলিম চ্যারিটি, লন্ডন ইস্ট একাডেমী এণ্ড আল-মিজান স্কুল, হাগস, হিউম্যান এইড, এমআরডিএফ, হেলপিং হিউমিনিটি, হিউম্যান কেয়ার, মুসলিম হেলপ ইউকে, হেলপ ইয়াতিম, স্টেপনী শাহজালাল মস্ক, অফ দ্যা স্ট্রিট, সিরিয়া রিলিফ, ফিন্সবারী পার্ক মস্ক, হিউম্যান অ্যাপিল, মাউন্টেন অব মার্সি, গ্লোবাল এইড ট্রাস্ট, কেন্টিশ টাউন বায়তুল আমান মসজিদ, ওয়ান ন্যাশন, হিউম্যান রিলিফ ফাউন্ডেশন, এইটথ ইস্ট লন্ডন স্কাউট গ্রুপ, দারুল আমান মসজিদ ও দারুল উম্মাহ মসজিদ ইউকে।

চ্যারিটি রানে অংশগ্রহণকারীদের ৫টি ক্যাটাগরিতে ভাগ করে ৫ বিজয়ীকে পুরষ্কার প্রদান করা হয়। এর মধ্যে অনুর্ধ ১২ বছর বয়স ক্যাটাগরিতে বিজয়ী হন মোহাম্মদ ইসা আলী। তিনি মাত্র ২৬ মিনিট ১০ সেকেন্ডে পাঁচ কিলোমিটার রুট ঘুরে আসেন। তাছাড়া ১৩ থেকে ১৭ বছর বয়স ক্যাটাগরিতে বিজয়ী হন মাজিন আবদি। তিনি ২০ মিনিট ৩১ সেকেন্ডের মধ্যে প্রতিযোগিতা শেষ করেন। এরপর ১৮ থেকে ২৪ বছর বয়স ক্যাটাগরিতে বিজয়ী হন সাইফু জামাল। তিনি ১৫ মিনিট ৫৫ সেকেন্ডে পাঁচ কিলোমিটার দৌঁড় সম্পন্ন করেন । ২৫ থেকে ৩৪ বয়স ক্যাটারিতে বিজয়ী হন সাহিব আহমদ। তিনি ২০ মিনিটে প্রতিযোগিতায় উত্তীর্ণ হন। ৩৫ থেকে ৫০ বছর ক্যাটাগরীতে বিজয়ী হন আব্দুল্লাহ কিজিতো । তিনি ২১ মিনিট ৪০ সেকেন্ডে দৌঁড় সম্পন্ন করেন। তাছাড়া সর্বশেষ ক্যাটাগরি ৫১ ও ততোর্ধ বয়স ক্যাটাগরিতে বিজয়ী হন মুহাম্মদ রাহমান। তিনি ২৪ মিনিট ৩৫ সেকেন্ডে দৌড় সম্পন্ন করেন। প্রতিযোগিতা শেষে বিজয়ীদের প্রত্যেকের হাতে মুসলিম চ্যারিটি রানের মনোগ্রামখচিত ক্রিস্টাল ট্রফি তুলে দেয়া হয়।

ইস্ট লন্ডন মসজিদ ও লন্ডন মুসলিম সেন্টারের নির্বাহী পরিচালক দেলওয়ার হোসাইন খানের উপস্থাপনায় পুরষ্কার বিতরনী পর্বে বক্তব্য রাখেন ডেপুটি মেয়র কাউন্সিলার সিরাজুল ইসলাম, ইস্ট লন্ডন মসজিদের চেয়ারম্যান মুহাম্মদ হাবিবুর রহমান, সেক্রেটারি আইয়ুব খান, ইমাম ও খতীব শায়েখ আব্দুল কাইয়ূম ও সিনিয়র ইমাম মোহাম্মদ মাহমুদ।এছাড়াও বিভিন্ন চ্যারিটি সংস্থার প্রতিনিধিদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মুনতাদা এইড এর রেজা মালিক, পেনি অ্যাপিল এর জাহান রহমান, স্টেপনী শাহাজাল মসজিদের শফিক ইসলাম ও হিউম্যান অ্যাপিল এর মোহাম্মদ কালাম।

ডেপুটি মেয়র সিরাজুল ইসলাম এ ধরনের উৎসবমুখর একটি কর্মসূচি ৮ বছর ধরে নিয়মিত পরিচালনার জন্য ইস্ট লন্ডন মসজিদকে ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, যুব সমাজকে নানা অপরাধ কর্মকাণ্ড থেকে ফিরিয়ে আনতে এই কর্মসূচি বিরাট ভুমিকা রাখছে। তিনি আগামী বছরগুলোতে চ্যারিটি রানে কাউন্সিলের পক্ষ থেকে সবধরনের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে বলে অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।

ইস্ট লন্ডন মসজিদের চেয়ারম্যান মুহাম্মদ হাবিবুর রহমান মুসলিম চ্যারিটি রানে অংশগ্রহণকারীদের ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, এই রান কমিউনিটির মানুষের একটি বার্ষিক মিলন মেলায় রূপান্তরিত হয়েছে।ইস্ট লন্ডন মসজিদের পক্ষে ১৩০জন দৌঁড়ে অংশগ্রহণ করেন।

ইস্ট লন্ডন মসজিদের সেক্রেটারি আইয়ূব খান প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। ইস্ট লন্ডন মসজিদের ইমাম ও খতীব শায়খ আব্দুল কাইয়ূম এর মোনাজাতের মধ্য দিয়ে পুরস্কার বিতরনী পর্বের সমাপ্তি ঘটে। ৮ বছর যাবত মুসলিম চ্যারিটি রান সফলতার সাথে আয়োজনের জন্য চ্যারিটি রানের মূল অর্গানাইজার, ইস্ট লন্ডন মসজিদের সিনিয়র ফান্ডরেইজিং ম্যানেজার তজম্মুল আলীকে আনুষ্ঠানিকভাবে ধন্যবাদ জানানো হয়।