মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৪ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
https://blu-ray.world/ download movies
সর্বশেষ সংবাদ
বিয়ানীবাজার ক্যান্সার এন্ড জেনারেল হাসপাতাল কর্তৃক বন্যা দুর্গতদের চিকিৎসার্থে বিনামূল্যে ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল ক্যাম্প  » «   যুক্তরাজ্যে ঈদের ছুটির দাবীতে  আলতাব আলী পার্কে সমাবেশ অনুষ্ঠিত  » «   পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে স্পেনে দূতাবাসের বিশেষ আয়োজন  » «   পদ্মা সেতুর স্মারক নোট বাজারে আসবে রবিবার  » «   পদ্মা সেতুর জন্য অভিনন্দন বিশ্বব্যাংক প্রতিনিধির  » «   অদম্য বাংলাদেশ, খুলল পদ্মার দ্বার  » «   আছে শুধু ভালোবাসা, দিয়ে গেলাম তাই: প্রধানমন্ত্রী  » «   রেমিটেন্স প্রেরণে উদ্বুদ্ধকরণে মাদ্রিদে মতবিনিময় সভা’ অনুষ্ঠিত  » «   বিশ্বনাথে মায়ের কোল থেকে ভেসে গেল শিশু, ৫ জনের মৃত্যু  » «   লন্ডনে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র ইউকের বিশ বছরপূর্তি উদযাপন  » «   মধ্যপ্রাচ্যের প্রতিবাদ এবং সাধারণ জনগণ  » «   স্পেনে ঢাকা ফ্রুতাস (Frutas) এর ১৬ বছর পূর্তি উৎসব অনুষ্ঠিত  » «   সিলেটে বন্যা : বৃষ্টি হয়েছে নদ-নদীর পানি কমেছে  » «   সিলেটে রানওয়েতে বন্যার পানি, বন্ধ বিমানের ফ্লাইট  » «   যুক্তরাজ্যে ঈদে ছুটির দাবীতে আলতাব আলী পার্কে সমাবেশ ২২শে জুন  » «  
সাবস্ক্রাইব করুন
পেইজে লাইক দিন


১৭ টি গীর্জা, একটি মন্দিরের লাইসেন্স দিয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাত



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

 


সংযুক্ত আরব আমিরাতের আবুধাবিতে অমুসলিম উপাসনালয়গুলি সহ কয়েক দশক পুরানো গীর্জার রবিবার আনুষ্ঠানিকভাবে আইনী স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে।

দেশটির রাজধানীর ১৭ টি গীর্জা এবং একটি হিন্দু মন্দিরকে আমিরাত প্রাসাদে অনুষ্ঠিত ঐতিহাসিক অনুষ্ঠানে লাইসেন্স দেওয়া হয়েছিল।

‘আ কল ফর হার্মোনি’ ব্যানারের আওতায় আবুধাবিতে সম্প্রদায় উন্নয়ন বিভাগ (ডিসিডি) সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে সমস্ত ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানকে একটি লাইসেন্সের ছাতার আওতায় আনতে হবে যাতে কর্তৃপক্ষ তাদের পরিচালনায় তাদের সহায়তা করতে পারে।

প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান ডঃ মুগীর আল খাইলি বলেন “কয়েক দশক ধরে, আমাদের মহান নেতারা বিভিন্ন ধর্মের লোকদের স্বাগত জানিয়েছেন, সংযুক্ত আরব আমিরাতকে সকলের জন্য জায়গা করে নিয়েছেন। আবুধাবি এখন সহনশীলতা ও সহ-অস্তিত্বের জন্য একটি শীর্ষস্থানীয় মডেল।’

তিনি আরো বলেন “সংযুক্ত আরব আমিরাতের ঐক্য গ্রহণ এবং দেশের উন্নয়নে যারা অবদান রেখেছিল তাদের প্রত্যেককে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য উত্সাহী। এই নতুন উদ্যোগের ফলে এখন উপাসনালয়গুলি এক ছাতার আওতায় কাজ এবং পরিচালনা করা হবে।” আগের মতো নয়, ধর্মীয় সংস্থাগুলি যখনই পরামর্শ বা সহায়তার প্রয়োজন হবে তখন তারা একটি সরকারি চ্যানেলে নির্ভর করতে পারে।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের আইন অনুসারে এবং দেশের রীতিনীতি ও ঐতিহ্যকে প্রভাবিত না করে সকল ধর্মের লোকেরা তাদের বিশ্বাস অনুশীলন করতে সক্ষম হবে তা নিশ্চিত করার জন্য ডিসিডি আইনী কাঠামো, নীতি ও পদ্ধতি তৈরি করেছে।

আল খাইলি বলেন, সংযুক্ত আরব আমিরাতে দীর্ঘকাল ধরে উপাসনালয় প্রতিষ্ঠা করা স্বাগত জানানো হয়েছে, যা বিভিন্ন সম্প্রদায়ের বৈচিত্র্য এবং মূল্যবোধের প্রতি দেশের সম্মানকে প্রতিফলিত করে।

এই সাইটগুলির বেশিরভাগই আমিরাতের শাসকরা জমি দিয়ে তৈরি করেছিলেন এবং তারা স্থানীয় কর্তৃপক্ষের অনানুষ্ঠানিক অনুমোদনে কাজ করে যাচ্ছিল।

উদাহরণস্বরূপ, সেন্ট জোসেফের ক্যাথেড্রাল হ’ল আমিরাতের প্রাচীনতম গির্জা ১৯৬৫ সাল থেকে শুরু হয়েছিল এবং বহু ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ৪০ বছরেরও বেশি সময় ধরে বিদ্যমান আবুধাবীতে।

আবুধাবিতে সেন্ট অ্যান্ড্রুয়ের অ্যাংলিকান চার্চ সংযুক্ত আরব আমিরাতের মিলনের পূর্বাভাস দেয় এবং পাঁচ দশকেরও বেশি সময় ধরে হাজার হাজার খ্রিস্টানের আধ্যাত্মিক আবাসস্থল ছিল।

সেন্ট অ্যান্ড্রুজ চার্চ, সেন্ট জর্জ অর্থোডক্স চার্চ, কপটিক অর্থোডক্স চার্চ এবং ইভানজেলিকাল কমিউনিটি চার্চের মতো অন্যান্য গীর্জাও রয়েছে।

এদিকে আবুধাবীতে এমন উদ্যোগের ফলে খ্রিস্টান ও সনাতন ধর্মাবলম্বী বাংলাদেশিদের মধ্যে আনন্দ বিরাজ করছে। তারা এ জন্য সংযুক্ত আরব আমিরাত সরকারকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।


সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন